কথা নেই, বার্তা নেই বাসে আগুন লাগালো: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ | ১৫ নভেম্বর ২০২০, ২৩:৩৬ | আপডেট: ১৫ নভেম্বর ২০২০, ২৩:৪৪

আরটিভি নিউজ
জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় হঠাৎ বাসে আগুন দেওয়ার ঘটনায় বিএনপির জড়িত থাকার ব্যাপারে ইঙ্গিত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষ’ উপলক্ষে জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশনে রোববার (১৫ নভেম্বর) রাতে সাধারণ আলোচনায় অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বিভিন্ন ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে। এর মধ্যে কোনো কথা নেই, বার্তা নেই কয়েকটি বাসে আগুন দেওয়া হলো। কেন, কী স্বার্থে, কীসের জন্য? নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার নামে অংশগ্রহণ করে। টাকা-পয়সা যা পায় পকেটে নিয়ে রেখে দেয়। নির্বাচনের দিন নির্বাচন করে না, এজেন্টও দেয় না, কিছুই করে না। মাঝ পথে নির্বাচন বয়কটের নাম দিয়ে বাসে আগুন দিয়ে একটা পরিস্থিতি তৈরি করতে চায়। এদের উদ্দেশ্যটা কী?

শেখ হাসিনা বলেন, আজকে বাংলাদেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে, সারা দেশের মানুষ একদিকে করোনা মোকাবিলা করছে; একদিকে করোনা সামলাচ্ছি আরেকদিকে দেশের অর্থনৈতিক গতিধারা যাতে সচল থাকে সে ব্যবস্থা নিয়েছি। বিশেষ প্রণোদনা দিয়েছি। টাকা-পয়সা যেখানে যা দরকার দিয়ে আমরা মানুষের জীবনটা সচল রেখেছি। ভ্যাকসিন আবিষ্কার হচ্ছে, আমরা ভ্যাকসিন কেনার টাকা-পয়সা রেখে দিয়েছি। যখনই চালু হবে তখনই যেন আমরা পাই, সেই ব্যবস্থাটাও করে রেখেছি। যখন যা দরকার সেটা আমরা করে যাচ্ছি। তাহলে অভিযোগটা কোথায়?

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আমরা অনেক দূর কাজ এগিয়েছি, দারিদ্র্যের হার কমিয়েছি। বাংলাদেশ বিশ্বে যে একটা ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে চলতো, এখন আর ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে চলে না। নিজেদের বাজেট নিজেদের অর্থে দিতে পারি। চ্যালেঞ্জ নিয়েছিলাম পদ্ম সেতু নিজেদের অর্থে করব, সেটা আমরা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। স্বাক্ষরতার হার বৃদ্ধি করেছি, চিকিৎসা সেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছি।

মুজিববর্ষে জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উত্থাপন করা সাধারণ প্রস্তাব সংসদে গৃহীত হয়েছে। প্রস্তাবটি গ্রহণের আগে ১৯৭২ সালের ৪ নভেম্বর বাংলাদেশের সংবিধান গ্রহণের সময় গণপরিষদে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ সংসদ কক্ষে শোনানো হয়। গত ৯ অক্টোবর সংসদের কার্যপ্রণালী বিধির ১৪৭ বিধির আওতায় শেখ হাসিনা এ প্রস্তাব এনেছিলেন। নোটিস আকারে তার প্রস্তাব উত্থাপনের পর এ নিয়ে আলোচনা শুরু হয়।

আলোচনা শেষে রোববার রাতে প্রস্তাবটি স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী ভোটে দিলে তা কণ্ঠভোটে পাস হয়। প্রস্তাবটি পাসের পর স্পিকার বলেন, এর মধ্যে দিয়ে বিশেষ অধিবেশন সমাপ্তি হল। এরপর সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত স্পিকার সংসদের বৈঠক মুলতবি করেন।

এফএ