logo
  • ঢাকা রোববার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২ আশ্বিন ১৪২৭

প্রার্থীতা যাচাই বাছাই শেষ, উপনির্বাচন ২৬ সেপ্টেম্বর

পাবনা-৪ আসনে হবে ত্রিমুখী লড়াই

  পাবনা প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

|  ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:৪৬ | আপডেট : ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২২:৪৩
There will be a three-way battle in Pabna-4 constituency
পাবনা-৪ (ঈশ্বরদী-আটঘরিয়া) আসনের উপনির্বাচনে তিন প্রার্থী
পাবনা-৪ (ঈশ্বরদী-আটঘরিয়া) আসনের উপনির্বাচনকে ঘিরে উৎসবমুখর পরিবেশ তৈরি হয়েছে। গত ২৭ আগস্ট সরকারদলীয় আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন পান ঈশ্বরদী উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি প্রবীণ রাজনীতিবিদ মো. নুরুজ্জামান বিশ্বাস। এছাড়া এ আসটিতে সাবেক ভূমিমন্ত্রী ডিলুর পরিবারের মনোনয়ন প্রত্যাশীসহ সব মিলেয় ২৮ জন প্রার্থী মনোনয়ন চেয়েছিলেন।

বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে উপনির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টিসহ সকল প্রার্থীরা তাদের দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে। বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জমাকৃত মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই করে তিন দলের তিনজন প্রার্থীকেই বৈধ প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করা হয়।

আগামী ৮ সেপ্টেম্বর এই উপনির্বাচনে প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। আর ভোট গ্রহণ হবে চলতি মাসের ২৬ সেপ্টেম্বর। 

চলতি বছরের ২ এপ্রিল সাবেক ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর মৃত্যুতে এই আসনটি শূন্য ঘোষণা করা হয়। তবে এই উপনির্বাচনকে ঘিরে বেশ উৎসাহ উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে সরকারদলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে। আর বিএনপিসহ জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে নির্বাচন কর্মকর্তাসহ সরকারের নিরপেক্ষতা আশা করেছেন। গুরুত্বপূর্ণ এই আসটিকে নিজেদের প্রার্থীকে জয় করাতে নেতা-কর্মীদের মাঠে কাজ করার জন্য বলেছেন নৌকার প্রার্থী। অপরদিকে নির্বাচন একপেশে ও একমুখী না করে সকলের জন্য নির্বাচনের মাঠে সমান পরিবেশ প্রত্যাশা করেন বিএনপি ও জাপার প্রার্থীরা।

নির্বাচন নিয়ে নৌকার প্রার্থী নুরুজ্জামান বিশ্বাস বলেন, শেখ হাসিনা ও বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করছি। দলের প্রধান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি আমাকে এই আসনে নৌকার মাঝি করার জন্য। এই আসনে প্রয়াত ভূমিমন্ত্রী চারবার নৌকা প্রতীক নিয়ে এমপি হয়েছেন। আমরা দল প্রধানকে পাবনা-৪ (ঈশ্বরদী-আটঘরিয়া) আসনটি পুনরায় উপহার দিতে চাই। দলের সকল নেতাকর্মী আমার সাথে আছে। আমি সকলকে নিয়ে কাজ করতে চাই।

বিএনপি মনোনীত প্রার্থী পাবনা জেলা বিএনপির আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, ৩০ ডিসেম্বরের মতো নির্বাচন না হলে এই আসনটি বিএনপি বিপুল ভোটে বিজয়ী হবে। সরকার ও নির্বাচন কমিশনের কাছে আমাদের একটাই চাওয়া অন্তত এই একটি আসনে সুষ্ঠু নির্বাচন করে জনগণের ভোট দেওয়ার অধিকার ফিরিয়ে দিন। সাধারণ মানুষ এখন আর ভোটকেন্দ্রে আসতে চায় না। সবাই জানে রাতের অন্ধকারে ভোট হয়ে যায়। তারপরও নির্বাচন নির্বাচন খেলাতে অংশগ্রহণ করতে হয়। সারা বাংলাদেশের মতো এই অঞ্চলের মানুষ সুষ্ঠু নির্বাচন প্রত্যাশা করছে। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিএনপির বিজয় নিশ্চিত।

জাতীয় পার্টির প্রার্থী রেজাউল করিম বলেন, দলীয় সিদ্ধান্ত মোতাবেক আমরা এই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছি। নির্বাচনের পরিবেশ ভালো থাকলে এই নির্বাচনে ভালো ফলাফল করব ইনশাল্লাহ। বাংলাদেশের এক সময়ের বৃহত্তর এই দলটির দলীয় প্রধান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ গ্রামীণ উন্নয়নের রূপকার। রাজনীতিতে শেষকথা বলে কিছু নেই। শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত নির্বাচনে লড়তে চাই। মানুষের ভালোবাসা নিয়ে নিরপেক্ষ ভোটের মাধ্যমে বিজয়ী হতে চাই।

পাবনা জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ শেখ বলেন, নির্বাচনকে নিয়ে আমাদের সকল ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন। নিয়ম অনুযায়ী নির্বাচনের সকল কাজ এগিয়ে চলছে। প্রার্থীরা নির্বাচন কমিশনের দেওয়া সকল নিয়ম অনুসরণ করে কাজ করছেন। নির্বাচনে সকল প্রার্থীর জন্য আইন সমান থাকবে।

এছাড়া পাবনা-৪ (ঈশ্বরদী-আটঘরিয়া) আসনে দুটি উপজেলার দুটি পৌরসভা ও ১২টি ইউনিয়নের মোট ভোটকেন্দ্র রয়েছে ১২৯টি। মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৮১ হাজার ১১২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৯১ হাজার ৬৯৭ জন আর নারী ভোটার ১ লাখ ৮৯ হাজার ৪১৫ জন।
এসএ/পি
 

RTVPLUS
bangal
corona
দেশ আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ৩৫৫৪৯৩ ২৬৫০৯২ ৫০৭২
বিশ্ব ৩,২১,৯৬,৬৫৫ ২,৩৭,৫১,১৩৪ ৯,৮৩,৬০৯
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • রাজনীতি এর সর্বশেষ
  • রাজনীতি এর পাঠক প্রিয়