logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ৪ বৈশাখ ১৪২৮

টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের অ্যালেনে ছয় বাংলাদেশির লাশ উদ্ধার

‘আমি নিজেকে ও আমার পরিবারকে হত্যা করেছি’

ভীষণ মর্মান্তিক ঘটনা। একই পরিবারের ছয় বাংলাদেশির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের অ্যালেন শহরের একটি বাড়ির। সেখানে দুই ভাই পরিবারের চার সদস্যকে হত্যা করার পর তারা নিজেরাও আত্মহত্যা করেছে বলে ধারণা পুলিশের।

আরও পড়ুনঃ টেক্সাসে একই পরিবারের ৬ বাংলাদেশির মরদেহ উদ্ধার

অ্যালেন পুলিশের ভাষ্য, বড় ভাই তানভীর তৌহিদ (২১) ছোট দুই ভাই ফারহান তৌহিদ তারা দুজনেই মানসিক বিষণ্নতায় ভুগছিল। আর এই হতাশা থেকে মুক্তি পেতে দুই ভাই এমন ঘটনা ঘটিয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে মন করা হচ্ছে।

আর এই হত্যাকাণ্ডের আগে ফারহান তৌহিদ ইনস্টাগ্রামে একটি দীর্ঘ ‘সুইসাইড নোট’ পোস্ট করেছেন। এতে তিনি লিখেছেন, ‘আমি নিজেকে ও আমার পরিবারকে হত্যা করেছি।’

এছাড়া নবম শ্রেণি থেকে মানসিক হতাশার বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন কীভাবে সেকথাও লেখেন ফারহান। তার বড় ভাইও হতাশার সঙ্গে লড়াই করেছেন বলে জানিয়েছেন।

গেলো ফেব্রুয়ারি মাসে ইনস্টাগ্রাম পোস্টে ফারহান লেখেন, তার ভাই বলেছেন, ‘আমরা যদি এক বছরে সবকিছু ঠিক করতে না পারি, তবে আমরা নিজেদের ও পরিবারকে হত্যা করব।’

নিজেরা আত্মহত্যা করলে পরিবার লজ্জায় পড়বে। তাই লজ্জা ও কষ্ট থেকে মুক্তি দেয়ার জন্য অন্যদের হত্যা করে নিজেদের আত্মহত্যার কথা সুইসাইড নোটে উল্লেখ রয়েছে বলে পুলিশের বরাত দিয়ে মার্কিন সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে। ওই সুইসাইড নোটে হত্যার পরিকল্পনার কথাও লেখা রয়েছে।

তাদের এক পারিবারিক বন্ধুর কাছ থেকে ফোন পেয়ে ডালাস শহরতলির অ্যালেনের পাইন ব্লাফ ড্রাইভ এলাকার ওই বাড়িতে পুলিশ রাত ১টার দিকে তল্লাশির জন্য যায়। বাড়ির এক কক্ষে একইসঙ্গে বাবা-মা ও তিন সন্তানের লাশ পড়ে থাকতে দেখে। একটু দূরেই পড়েছিল তাদের দাদির লাশ।

নিহতরা হলেন- ১৯ বছর বয়সী যমজ ভাই-বোন ফারহান তৌহিদ ও ফারবিন তৌহিদ, বড় ভাই তানভীর তৌহিদ (২১), মা আইরিন ইসলাম (৫৬), বাবা তৌহিদুল ইসলাম (৫৪), তানভীর তৌহিদের নানি আলতাফুন্নেসা (৭৭)।

সাপ্তাহিক ছুটির দিন রোববার দুই ভাই পরিবারের অন্য সদস্যদের হত্যার পর নিজেরা আত্মহত্যা করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ঘটনাটির তদন্ত চলছে। ঘটনার তদন্তকারী কর্মকর্তা স্থানীয় পুলিশের সার্জেন্ট জন ফেল্টি একথা জানান।

এম

RTV Drama
RTVPLUS