Mir cement
logo
  • ঢাকা সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯

আরটিভি নিউজ

  ২৩ জানুয়ারি ২০২২, ১৭:০০
আপডেট : ২৩ জানুয়ারি ২০২২, ১৭:১৪

নাক দিয়ে জল গড়ানো বাংলাদেশে ওমিক্রন রোগীদের প্রধান উপসর্গ

'Runny nose' is the main symptom of Omicron disease in Bangladesh
ফাইল ছবি

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের অতি সংক্রামক ধরণ ওমিক্রনে সংক্রমিতদের ৭৩ শতাংশেরই নাক দিয়ে পানি ঝরছে, সেই সঙ্গে মাথাব্যথা, অবসন্নতা, ক্লান্তিবোধ ও হাঁচির মতো উপসর্গও দেখা যাচ্ছে।

রোববার (২৩ জানুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনে অধ্যাপক ডা. মো. নাজমুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এই মুখপাত্র ওমিক্রনের লক্ষণ ও উপসর্গ তুলে ধরে বলেন, ‘উপসর্গগুলোর মধ্যে ৭৩ শতাংশ মানুষের ক্ষেত্রে নাক দিয়ে পানি ঝরছে। মাথা ব্যথার কথা বলেছেন ৬৮ শতাংশ রোগী। ৬৪ শতাংশ রোগী অবসন্নতা ও ক্লান্তি অনুভব করার কথা বলেছেন। হাঁচি হচ্ছে ৬০ শতাংশের। ৬০ শতাংশ রোগী গলা ব্যথা এবং ৪৪ শতাংশ কাশির কথা বলেছেন।

তিনি আরও বলেন, উল্লেখিত লক্ষণ ও উপসর্গগুলো আমাদের মাথায় রাখতে হবে। এর সঙ্গে কিন্তু সিজনাল যে ফ্লু হচ্ছে, ইনফ্লুয়েঞ্জা হচ্ছে, তার সঙ্গেও কিন্তু মিল রয়েছে। কাজেই যেকোনো পরিস্থিতিতে চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করেই আমাদের চিকিৎসা গ্রহণ করা উচিৎ। স্বাস্থ্যবিধি না মানা হলে রোগীর চাপে হাসপাতালে সেবা নিয়ে সংকট তৈরি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।’

ডা. নাজমুল বলেন, ‘রোগীর সংখ্যা যদি প্রতিদিনই বাড়তে থাকে এবং স্বাস্থ্যবিধিকে অমান্য করে আমরা যদি নিজের মতো করে চলতে থাকি, তাহলে কিন্তু রোগীর সংখ্যা আরও বাড়বে। সেটি কিন্তু সামগ্রিকভাবে পুরো স্বাস্থ্য ব্যবস্থার ওপর বাড়তি চাপ সৃষ্টি করবে।’

অধ্যাপক ডা. নাজমুল বলেন, ‘দেশে করোনাভাইরাসের ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট এখনও প্রাধান্য বিস্তার করছে, তবে ডেল্টার জায়গা আস্তে আস্তে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট দখল করছে। দক্ষিণ আফ্রিকায় পাওয়া এই ভ্যারিয়েন্টের কমিউনিটি ট্রান্সমিশন ঘটেছে।’

ওমিক্রনের বিস্তারে জানুয়ারির শুরু থেকে দেশে কোভিড রোগীর সংখ্যা দ্রুত বাড়ছে। এই মুহূর্তে দেশে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৯০ হাজারের বেশি, যা ১৫ জানুয়ারি ছিল ৩১ হাজার ৭৫৩ জন। অর্থাৎ, মাত্র ১ সপ্তাহে সক্রিয় রোগী বেড়ে তিনগুন হয়েছে।

কেএফ/এসকে

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS