Mir cement
logo
  • ঢাকা বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ৯ আষাঢ় ১৪২৮

ইবি সংবাদদাতা, আরটিভি নিউজ

  ০৮ জুন ২০২১, ১৮:০২

ঘাসফুলে নয়নাভিরাম ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস

ঘাসফুলে নয়নাভিরাম ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস

মহামারি করোনাভাইরাসের প্রভাবে বদলে গেছে পুরো পৃথিবীর চিত্র। কোভিড-১৯ আতঙ্কের কারণে গাছপালা ও বহু প্রাণীর আশ্রয় ধ্বংস করে প্রকৃতিকে কোণঠাসা করেছে যে মানুষ- তারাই এখন অসহায়, নিরুপায় হয়ে বন্দি জীবন কাটাচ্ছে ঘরে।

এই সুযোগে প্রকৃতি একদমই বসে নেই। নিজেকে গুছিয়ে নিচ্ছে, সাজিয়ে নিচ্ছে যত দ্রুত সম্ভব। এটাই যেন ওদের উপযুক্ত সময়। জনবহুল এলাকাগুলো ফাঁকা, যান চলাচল বন্ধ আর জনশূন্য উল্লেখযোগ্য সব স্থাপনা ও কেন্দ্রগুলো। বন্ধ হয়ে পড়ে আছে স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়। জনজীবন থমকে গেলেও কমেছে দূষণ, চারিদিকে চকচকে তকতকে আলো।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৃতিও এর ব্যতিক্রম নয়। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের মনোমুগ্ধকর লীলাভূমি ও সাংস্কৃতিক রাজধানী খ্যাত বাংলাদেশের নয়নাভিরাম ক্যাম্পাস ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়। ‘লকডাউনে’ প্রভাব পড়েছে এখানেও। ক্যাম্পাসজুড়ে কোথাও কোনও শিক্ষার্থী নেই, মানুষের হৈচৈ নেই, কোলাহল নেই, গাড়ির শব্দ নেই। ময়লা আবর্জনা নেই, রিক্ততা নেই। কেবল প্রকৃতির অন্তরঙ্গতা। ডালে ডালে সবুজের সমারোহ। শিক্ষার্থী ছাড়া শূন্য মাঠগুলো তাই ঘাসফুলের দখলে। হালকা বাতাসের তালে শুভ্রতা ছড়াচ্ছে বহুগুনো।

আর তাই পরিবেশ সচেতন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর প্রকৃতির রূপ ঘেরা সবুজ-শ্যামল বাংলাকে নিয়ে বলা কবিতার কথা মনে পড়ে। তিনি বলেছেন, ‘মরু বিজয়ের কেতন উড়াও শূন্যে হে প্রবল প্রাণ

ধূলিরে ধন্য করো করুণার পুণ্যে হে কোমল প্রাণ’।

ঠিক এমনিভাবে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ফুটবল ও ক্রিকেট মাঠটি ঘাসফুলে ভরে উঠেছে। যে মাঠজুড়ে দাপিয়ে বেড়াতো শিক্ষার্থীরা, সে মাঠে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে এখন ঘাসফুল। সময়ে সময়ে মৃদু বাতাসের তালে শুভ্রতা ছড়াচ্ছে। যা দেখে প্রাণ জুড়াচ্ছে ক্যাম্পাসের এলাকায় অবস্থানরত শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের। তাই গোধূলি লগ্নে অনেকেই সেই দৃশ্যকে ফ্রেমবন্দি করতে ছুটে যান। করোনা জনজীবনে ভীতি ধরালেও প্রকৃতিকে দিয়েছে নিজের মতো করে বাঁচার প্রয়াস। তাইতো প্রকৃতি সুযোগ পেলেই নিজেকে মেলে ধরছে বাহারি রূপে।

এসএস

RTV Drama
RTVPLUS