logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

‘চিলিংহ্যাম দুর্গে আতঙ্ক’ বইয়ের রিভিউ প্রতিযোগিতার পুরস্কার প্রদান

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২০ নভেম্বর ২০১৯, ১১:০৫ | আপডেট : ২০ নভেম্বর ২০১৯, ১২:০০
চিলিংহ্যাম দুর্গে আতঙ্ক রিভিউ প্রতিযোগিতা পুরস্কার
পরন্ত বিকেল ঘনিয়ে হেমন্তের মঙ্গলসন্ধ্যা নেমেছে কুয়াশার চাদরে মোড়া ধুলায় ধূসরিত হয়ে। তার ফাঁক গলে (১৯ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার) প্রবেশ শাহবাগস্থ কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরির ভিআইপি সেমিনার কক্ষে। ভিন্নমাত্রিক আয়োজনে নতুনত্বের ছাপ স্পষ্ট। পেছনের ব্যানারে লেখা বুক রিভিউ প্রতিযোগিতা। ব্যানারের মধ্যেই বইয়ের প্রচ্ছদ বলে দিচ্ছে কী বই এবং কার লেখা।

ততক্ষণে মাইক্রোফোন চলে গেছে উপস্থাপকের হাতে। সঞ্চালকের কথা মতো মঞ্চ আলো করে শূন্য আসন পূরণ করলেন অনুষ্ঠানটির সভাপতি, বরেণ্য শিশুসাহিত্যিক আলী ইমাম, খন্দকার মাহমুদুল হাসান, রম্য লেখক সুমন্ত আসলাম, প্রকাশক কামরুল হাসান শায়ক ও শান্তা তাওহীদা। আর তাদের মাঝে আসন নিলেন ডিটেকটিভ চরিত্র অলকেশ রয়ের স্রষ্টা কথাসাহিত্যিক অরুণ কুমার বিশ্বাস।

মূলত আজকের এই আয়োজন অলকেশ রয়ের স্রষ্টা অরুণ কুমার বিশ্বাসের ‘চিলিংহ্যাম দুর্গে আতঙ্ক’ বইয়ের রিভিউ প্রতিযোগিতার পুরস্কারকে কেন্দ্র করে। তথ্য-প্রযুক্তির উৎকর্ষতার সঙ্গে সঙ্গে সাহিত্যের বাজার কী করে গতিপথ বদলায় কিংবা সময়ের প্রয়োজনে বদলাতে হয়, তারই উজ্জ্বল নমুনা এই অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে রিভিউ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী ১০ জনকে আয়োজক প্রতিষ্ঠান বই বাজার.কমের পক্ষ থেকে পুরস্কার প্রদান করা হয়। লেখকসহ অতিথিরা তাদের হাতে পুরস্কার ও বই তুলে দেন। এমনকি উপস্থিত সকল দর্শক-শ্রোতাকেও লেখকের বই উপহার দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানটি নিয়ে সভাপতি আলী ইমাম বলেন, আজকের এই অনুষ্ঠানটি একটি ভিন্নমাত্রিক আয়োজন। এর কারণ অরুণ কুমার বিশ্বাস শুধু লিখেই তার দায়িত্ব শেষ করেন না। তিনি পাঠকদের কাছে বই পৌছে দেওয়ার কৌশল জানেন, সেটি আজকের এই সময়ে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তিনি সরকারের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা হিসেবে যেমন সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন তেমনি সাহিত্যজগতেও তিনি সরব পদচারণা করছেন। ভবিষ্যতে বাংলাদেশের শিশুসাহিত্যকে তিনি নেতৃত্ব দেবেন বলে আমার বিশ্বাস।

আলী ইমামেম কথার সূত্র ধরে খন্দকার মাহমুদুল হাসান বলেন, আমরা যারা লেখালেখি করি তারা নিজের জন্য লিখি। কিন্তু আমাদের সবার সব লেখা যেমন আলোচিত হয় না তেমনি সব লেখকও আলোচিত হন না। এই সময়ে কম বয়সী লেখকদের মধ্যে আমি বলবো অরুণ কুমার বিশ্বাস নিজেকে আলোচনায় আনতে সক্ষম হয়েছেন। এজন্যে তাকে সাধুবাদ জানাই।

রম্য লেখক সুমন্ত আসলাম বলেন, অরুণ কুমার বিশ্বাস যেভাবে দুই হাতে লিখতে পারেন, আমি সেভাবে পারি না। তার লেখার উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করছি।

‘চিলিংহ্যাম দুর্গে আতঙ্ক’ বইটির প্রকাশক পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স এর কর্ণধার কামরুল হাসান শায়ক বলেন, বর্তমানে আমাদের সমাজে কিশোর-তরুণরা যেভাবে মাদকে আক্রান্ত, সেখান থেকে পরিত্রাণের পথ খুলে দেবে অরুণ কুমার বিশ্বাসের এই বই। তরুণদের বইমুখী করতে এমন বই খুব দরকার।

শান্তা তাওহীদা ‘চিলিংহ্যাম দুর্গে আতঙ্ক’ বইটির নানা দিক নিয়ে বিশ্নেষণধর্মী আলোচনা করেন।

কথাসাহিত্যিক অরুণ কুমার বিশ্বাস বইটি নিয়ে নিজের আত্মসমালোচনা করে বলেন, আমার এই বইটি লেখা প্রায় ১০ বছর আগে লন্ডনে বসে। তখন লেখক হিসেবে আমি আজকের মতো পরিণত ছিলাম না। তারপরও বলছি লন্ডনে বসে লেখা হলেও রহস্যোপন্যাস হিসেবে বইটি কিশোর তরুণদের তো বটেই সকল বয়সী মানুষদের ভালো লাগবে।

পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • অন্যান্য এর সর্বশেষ
  • অন্যান্য এর পাঠক প্রিয়