logo
  • ঢাকা বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬

সাতক্ষীরায় সাহিত্য আড্ডায় অলকেশ রয়ের স্রষ্টা

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক
|  ০৫ নভেম্বর ২০১৯, ১৬:০০
সাতক্ষীরা সাহিত্য আড্ডা অলকেশ রয়
সাহিত্য আড্ডায় অলকেশ রয়ের স্রষ্টা কথাসাহিত্যিক অরুণ কুমার বিশ্বাস, ছবি: সংগৃহীত
হেমন্তের ঝকঝকে সকাল। ব্যস্ততা বাড়ছে সাতক্ষীরা শহরে। হঠাৎ উপস্থিত হলেন ফেলুদার জ্ঞাতি ভাই! না না, চমকানোর কিছু নেই। ফেলুদার মতো প্রাইভেট ডিটেকটিভ ‘অলোকেশ রয়’। অবশ্য অলোকেশ রয় এখনও বইয়ের মধ্যে। নামটি লোকমুখে ছড়াচ্ছে কেবল। বাংলা গোয়েন্দা কাহিনির ইতিহাসে এটি একটি নতুন চরিত্র। সেটি পাঠকের মাঝে আরো ছড়িয়ে দেয়ার জন্য সাক্ষাৎ হাজির হলেন তার স্রষ্টা স্বয়ং অরুণ কুমার বিশ্বাস।

শীত আসছে আসছে সকালে সাতক্ষীরা শহরের একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টের সুসজ্জিত ক্যাফে রুম ভর্তি লোক। খবর পেয়ে ছুটে এলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও ডেইলি সাতক্ষীরার সম্পাদক হাফিজুর রহমান মাসুম, শিশুসাহিত্যিক আবুল হোসেন আজাদ, ছড়াশিল্পী আহমেদ সাব্বির, কথাসাহিত্যিক বাবলু ভঞ্জ চৌধুরী, কবি সুলতান মাহমুদ রতন, নুরুজ্জামান, স ম তুহিন, কবি ও গীতিকার তৃপ্তিমোহন মল্লিক, কবি ও ছড়াকার বাশার মাহফুজ, কবি সায়েম ফেরদৌস মিতুল, ছড়াকার হিমাদ্রি হাবিব, শেখ আমিনুর রহমান কাজল, এসএম নাজমুল হক (পল্টু), প্রথম আলো বন্ধুসভার সভাপতি জাহিদা জাহান মৌ, সাংবাদিক এস এম হাবিবুল হাসান, কবি মনিরুজ্জামান মুন্না, সেলিম রায়হান প্রমুখ।

মাসুদ রানা, ফেলুদা, ব্যোমকেশ, দারোগা প্রিয়নাথরা তখন চোখ পিটপিট করে দেখছে তাদের নতুন সতীর্থ অলোকেশ রয়কে। পাঠ্যাভ্যাস তৈরিতে ডিটেকটিভ গল্পের ভূমিকা নিয়ে শুরু হলো আলোচনা। যত অবক্ষয়, পিতার হাতে সন্তান হত্যা, মায়ের কোলে শিশু হত্যা, আত্মহত্যা–অর্থ্যাৎ প্রবৃত্তির লাগাম না টানতে পারার অন্যতম কারণ বই পড়ার অভ্যেস না তৈরি হওয়া–সুন্দর করে বুঝিয়ে বললেন অরুণ কুমার বিশ্বাস। হাফিজুর রহমান মাসুম অত্যন্ত জোরের সাথে বললেন, বিদ্যালয়-মহাবিদ্যালয়ে ঠিক পাঠের, পাঠ-চর্চার পরিবেশ নেই, সাতক্ষীরার মত জেলা শহরের প্রধান কলেজটিতেও একটি অডিটরিয়াম নেই–আক্ষেপ করলেন তিনি।

সাহিত্য আড্ডায় অলকেশ রয়ের স্রষ্টা কথাসাহিত্যিক অরুণ কুমার বিশ্বাস, ছবি: সংগৃহীত

তাদের মধ্যে তরুণ লেখক ও লেখক হতে চান–এমন কিছু তরুণ-তরুণীও ছিলেন। লেখককে হাতের কাছে পেয়ে লেখক হওয়ার কলাকৌশল জানতে আগ্রহী হয়ে উঠলেন তারা। টেবিলে সুস্বাদু সালাদ, স্যুপ, ফ্রাই, কোমল পানীয় উপেক্ষা করে তাদের নজর অরুণ কুমারের মুখের দিকে। অরুণ কুমার বিশ্বাস কিন্তু কাস্টমসের অতিরিক্ত কমিশনারের মতো ছিলেন না এদিন। পেশায় শুল্ক আমলা তখন গভীর দৃষ্টিপাত করলেন নিজের অন্তরে; সামনে তখন প্রিয় কফি, বললেন, ‘কেউ শেখাতে পারে না, নিজের কাছ থেকে শিখতে হয়।’

ততক্ষণে ভোমরা বন্দর পরিদর্শনের সময় অনেক গড়িয়ে গেছে। কাস্টমসের অতিরিক্ত কমিশনার অরুণ কুমার বিশ্বাস বলে উঠলেন, সবাইকে অভিবাদন। তারপর সরকারি সাদা গাড়িতে রওনা দিলেন ভোমরার দিকে। আর রেখে গেলেন অলোকেশ রয়কে।

জিএ/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়