logo
  • ঢাকা সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

নিউ ইয়র্কে ‘আজকাল সম্মাননা’ পেলেন জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত ও আলী রীয়াজ

আব্দুল হামিদ, নিউ ইয়র্ক
|  ১৩ অক্টোবর ২০১৯, ১৯:১৩
আজকাল সম্মাননা
ছবি: নিজস্ব
নিউ ইয়র্ক থেকে প্রকাশিত এবং উত্তর আমেরিকায় বাংলা ভাষায় সর্বাধিক প্রচারিত পত্রিকা ‘সাপ্তাহিক আজকাল’ সম্মাননা পেয়েছেন কথাসাহিত্যক ও একুশে পদকপ্রাপ্ত আলোকিতজন জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত এবং ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির সরকার ও রাজনীতি বিভাগের ডিস্টিংগুইশড প্রফেসর ড. আলী রীয়াজ। শুক্রবার সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্কের একটি ব্যাঙ্কুয়েটে আয়োজিত সাপ্তাহিক আজকাল’র যুগপদার্পণ প্রীতি সম্মিলনে এই দুই বিশিষ্টজনের হাতে ‘আজকাল সম্মাননা’ তুলে দেয়া হয়। জ্যাকসন হাইটসের বেলোজিনো ব্যাঙ্কুয়েট হলে এ প্রীতি সম্মিলনের আয়োজন করা হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে দশমবর্ষ পদার্পণ অনুষ্ঠানে ‘আজকাল সম্মাননা’ প্রদান করা হয় মুক্তিযোদ্ধা, লেখক ও মূলধারার রাজনীতিক ড. নুরুন নবী  এবং অভিনেতা, নির্মাতা, শিল্পী, নির্দেশক আফজাল হোসেনকে।

প্রীতি সম্মিলনে জ্যোতিপ্রকাশ দত্তের হাতে সম্মননা তুলে দেন ২০১৭ সালে আজকাল সম্মাননাপ্রাপ্ত ড. নুরুন নবী। প্রফেসর ড. আলী রীয়াজের হাতে সম্মাননা তুলে দেন ইউএস কংগ্রেসওইম্যান গ্রেস মেং।

সম্মাননা গ্রহণ করে কথাসাহিত্যিক জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত বলেন, নিউ ইয়র্কের এত বড় হলে একটি সাপ্তাহিক পত্রিকার এত বড় আয়োজন সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে। জীবনে অনেক সম্মাননা পেয়েছি, কিন্তু আজকের এ সম্মাননাটির গুরুত্ব আমার কাছে অন্যরকম। তিনি বলেন, সাপ্তাহিক আজকাল এ ধরনের আয়োজন করে অন্য সংবাদপত্রের চোখ খুলে দিয়েছে।

সম্মাননা গ্রহণ করে প্রফেসর ড. আলী রীয়াজ বলেন, প্রতিটি সম্মাননা কোনও না কোনও গুরুত্ব বহন করে। আজ আমি সত্যিই আনন্দিত আজকালের পক্ষ থেকে সম্মাননা গ্রহণ করে। অনুষ্ঠান এবং সবকিছু দেখে কমিউনিটিতে আজকালের দায়িত্বশীলতার ছবি ফুটে ওঠেছে।

সম্মাননা প্রদানের সময় সাপ্তাহিক আজকাল’র ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও প্রকাশ জাকারিয়া মাসুদ, ব্যবস্থাপনা সম্পাদক মিলা হোসেন মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন। 

অনুষ্ঠানে ইউএস কংগ্রেসের সাইটেশন ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও প্রকাশ জাকারিয়া মাসুদের তুলে দেন কংগ্রেসওইম্যান গ্রেস মেং। বক্তব্যে তিনি সাপ্তাহিক আজকালের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, বহু বছর ধরে আজকালকে চিনি এবং জানি। এই কমিউনিটির গণমাধ্যমগুলো নিজ নিজ দেশের প্রবাসীদের পথ দেখাতে দারুণভাবে কাজ করছে। আজকাল এর মধ্যে অন্যতম প্রধান কাগজ।

এছাড়া সাপ্তাহিক আজকাল’কে স্টেট সিনেটের পক্ষ থেকে সিনেটর জন ল্যূ এবং সিটি কম্পটোলার স্কট স্টিঙ্গার, ব্রুকলিন ও কুইন্স বোরো প্রেসিডেন্টের পক্ষ থেকে সাইটেশন প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সাপ্তাহিক আজকাল’র ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও প্রকাশ জাকারিয়া মাসুদ, জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন, নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুননেসা, সাপ্তাহিক আজকাল’র ব্যবস্থাপনা সম্পাদক মিলা হোসেন, উপদেষ্টা সম্পাদক গোলাম মোর্তোজা, নির্বাহী সম্পাদক শাহাব উদ্দিন সাগর, বাণিজ্যিক প্রধান আবু বকর সিদ্দিকী, মুক্তিযোদ্ধা, লেখক ও মূলধারার রাজনীতিক ড. নুরুন নবী, স্টেট সিনেটর জন ল্যূ, কাউন্সিলম্যান কস্টা কনস্টান্টিনিডস, অ্যাসেম্বলিওম্যান ক্যাটরিনা ক্রুজ, কুইন্স ও ব্রুকলিন বোরো প্রেসিডেন্টের প্রতিনিধি।

বক্তব্যে সাপ্তাহিক আজকাল’র ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও প্রকাশক জাকারিয়া মাসুদ বলেন, ১১ বছর আগে সাপ্তাহিক আজকাল অর্থাৎ ২০০৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে যাত্রা শুরু করেছিল। সেই থেকে দীর্ঘ ১১ বছর নিরবিচ্ছিন্নভাবে আজকাল প্রকাশিত হয়ে আসছে। সাপ্তাহিক আজকাল সবসময় চেষ্টা করেছে নতুন কিছু নিয়ে পাঠকের সামনে হাজির হওয়ার। সবার সহযোগিতায় আজকাল সেটি করতে সক্ষম হয়েছে।

তিনি বলেন, আজকাল সবসময় বিভিন্ন উৎসব-আনন্দে বিশেষ বিশেষ আয়োজন করে যা কমিউনিটিতে প্রশংসিত হয়েছে। ভবিষ্যতেও এ ধরনের চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। তিনি অনুষ্ঠানের অতিথি, বিজ্ঞাপনদাতা, স্পন্সর, লেখক, পাঠকসহ, আজকাল পরিবারের সাবেক এবং বর্তমান সদস্যদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

অনুষ্ঠানে যুগপদার্পণ উপলক্ষে প্রকাশিত বিশেষ সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন করেন কথাসাহিত্যিক পূরবী বসু। এসময় মঞ্চে ছিলেন সাপ্তাহিক আজাকলের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও প্রকাশক জাকারিয়া মাসুদ, সাবেক সম্পাদক মনজুর আহমদ, ব্যবস্থাপনা সম্পাদক মিলা হোসেন, উপদেষ্টা সম্পাদক গোলাম মোর্তোজা, নির্বাহী সম্পাদক শাহাব উদ্দিন সাগর, প্রধান নির্বাহী বেলায়েত হোসেন, প্রধান বাণিজ্যিক কর্মকর্তা আবু বকর সিদ্দিকী। একই মঞ্চে যুগপদার্পণ অনুষ্ঠানের কেক কাটা হয়। এসময় সম্মাননাপ্রাপ্ত দুই আলোকিতজন ছাড়াও সাপ্তাহিক আজকাল পরিবারের সাবেক এবং বর্তমান সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

পুরো অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন সাপ্তাহিক আজকাল’র প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও উপস্থাপিকা দিমা নেফারতিতি ও উপস্থাপিকা শামসুন নাহার নিম্মি।

যুগপদার্পণ প্রীতি সম্মিলন শুরু হয় তপন মোদক ও নিয়াজ মোর্শেদ অপুর তবলা এবং সেতারের লহরী দিয়ে। এছাড়া ছিল নিউ ইয়র্কের স্বনামধন্য সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পারফর্মিং আর্টস-বাপার পরিবেশনায় নৃত্যায়োজন। কবিতা আবৃত্তি করে এ প্রজন্মের জেবিন হাই মুন। সংগীত পরিবেশন করেন জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী অনিমা ডি কস্টা ও শাহ মাহবুব। অনুষ্ঠানের মিউজিকে ছিল মাটি ব্যান্ড এবং সাউন্ডে ছিল সাউন্ড গিয়ার। অনুষ্ঠানের স্পন্সর ছিল চয়েস মানি, গীতা শুকলা টিম ও ডা. আতাউল চৌধুরী তুষার।

অনুষ্ঠানে নিউ ইয়র্কের কমিউনিটির বিশিষ্টজন, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, গণমাধ্যমের সম্পাদক ও সাংবাদিক, লেখক, কবি, আজকাল’র বিজ্ঞাপনদাতা, মূলধারার রাজনীতিক ও সরকারি-বেসরকারি প্রতিনিধিরা অংশ নেন। এছাড়া বিভিন্ন স্টেট থেকেও অতিথিরা যোগ দেন। যুগপদার্র্পণের প্রীতি সম্মিলন উপলক্ষে প্রকাশিত বিশেষ সংখ্যা এবং সাপ্তাহিক আজকাল’র কলেবর সংখ্যা অতিথিদের মাঝে বিতরণ করা হয়। সবশেষে ছিল নৈশভোজ। অনুষ্ঠানে সাপ্তাহিক আজকালকে ফুল দিয়ে বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানানো হয়।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • অন্যান্য এর সর্বশেষ
  • অন্যান্য এর পাঠক প্রিয়