• ঢাকা সোমবার, ১৭ জুন ২০১৯, ৩ আষাঢ় ১৪২৬

নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশির বিরুদ্ধে মার্কেটে আগুন দেয়ার অভিযোগ

কামরুজ্জামান হেলাল, যুক্তরাষ্ট্র
|  ০৮ জুন ২০১৯, ১৫:৪৬ | আপডেট : ০৮ জুন ২০১৯, ১৬:০৩
ছবি: সংগৃহীত
নিউ ইয়র্কের ব্রুকলিনে এক প্রতিদ্বন্দ্বী সুপারমার্কেটে আগুন দেয়ার ঘটনায় মামুনার খান নামে এক বাংলাদেশি দোকান মালিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ফেডারেল প্রসিকিউটররা জানিয়েছেন, দোষী প্রমাণিত  হলে ২০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে মামুনার খানের।

whirpool
ওজন পার্কে অবস্থিত দেশি বাজার নামের একটি দোকানের সহ-প্রতিষ্ঠাতা মামুনার। ওজন পার্কে অবস্থিত দেশি বাজারের কাছাকাছি এলাকায় প্রিমিয়াম সুপারমার্কেট নামে প্রতিদ্বন্দ্বী একটি দোকান রয়েছে। চলতি বছরের ৩ ফেব্রুয়ারি প্রিমিয়াম সুপারমার্কেটে অগ্নিসংযোগের প্রচেষ্টা চালানো হয়।

দোকানটির কর্তৃপক্ষের দাবি, মামুনার সেখানে আগুন লাগানোর চেষ্টা চালিয়েছেন। প্রসিকিউটরদের উপস্থাপিত ভিডিওতে দেখা গেছে মামুনার সুপারমার্কেটে ঢুকে অজানা এক দাহ্য পদার্থে আগুন ধরিয়ে দেন। পরে একটি মার্সিডিজ বেঞ্জ এসইউভিতে করে। পালিয়ে যান।

যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি রিচার্ড পি. ডোনোঘুয়ে বলেন, দায়েরকৃত অভিযোগ অনুযায়ী মামুনার খান একটি সুপারমার্কেটে আগুন দিয়েছেন। দোকানটি তখন খোলা ছিল উল্লেখ করে অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, আগুন দেয়ার সময় কর্মচারী, ক্রেতা ও আগুন নেভাতে আসা দমকলকর্মীদের নিরাপত্তার বিষয়কে পুরোপুরিভাবে উপেক্ষা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রতিদ্বন্দ্বীর সম্পদ জ্বালিয়ে দেয়ার চেষ্টা একটি গুরুতর ও সহিংস অপরাধ আমরা এবং আমাদের আইনি সহযোগীরা মিলে এ ধরনের অপরাধের সাজা নিশ্চিত করবো।

প্রসিকিউটররা জানিয়েছেন, ঘটনার পরদিন বাংলাদেশে চলে যান মামুনার। তিন মাস পর যুক্তরাষ্ট্রে ফিরলে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। মামুনার খানের বিরুদ্ধে ‘জেনে বুঝে, ইচ্ছাকৃত ও বিদ্বেষপূর্ণভাবে’ আগুন দিয়ে একটি ভবন ও অন্য ব্যক্তিগত সম্পদ নষ্ট করার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

ঘটনাটি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল সূত্রগুলো জানিয়েছে, এর আগে মামুনার অভিযোগ করেছিলেন যে প্রিমিয়াম সুপারমার্কেটে দাম কম নেয়ায় তার ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। মামুনার তার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ অস্বীকার করে এগুলো ‘মিথ্যা অভিযোগ’ বলে দাবি করেছেন।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়