• ঢাকা সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৬ ফাল্গুন ১৪২৫

জাকারবার্গকে ম্যাকডোনাল্ডসের ফ্রাঞ্চাইজি খোলার অফার দিয়েছিলেন তার বাবা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৫:৪৯ | আপডেট : ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৫:৫৪
র‌্যান্ডি জাকারবার্গ
কলেজের পড়াশোনা ছেড়ে দিয়ে মার্ক জাকারবার্গ যদি তার বাবার অফার গ্রহণ করতেন তাহলে ইন্টারনেট দুনিয়া আজ হয়তো ভিন্ন হতো।

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা শুরু করার আগে তার বাবা মার্ক জাকারবার্গ ও তার তিন বোনকে পড়াশোনার পরিবর্তে ম্যাকডোনাল্ডসের ফ্রাঞ্চাইজি খোলার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। যদি মার্ক জাকারবার্গ তার বাবার ওই প্রস্তাব মেনে নিতেন তাহলে ১৫ বছর আগে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ডর্ম (আবাসিক হল) থেকে ফেসবুকের জন্ম হতো না।

জাকারবার্গের বোন র‌্যান্ডি জাকারবার্গ সম্প্রতি সিএনএন বিজনেস-এর লরি সেগালকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, হাস্যকর মনে হলেও, আমরা প্রত্যেকেই কলেজের পড়াশোনা শুরু করার আগে আমাদের বাবা একটি ফ্রাঞ্চাইজিতে বিনিয়োগ করে তা চালানোর প্রস্তাব দিয়েছিলেন।

ফেসবুক নিয়ে সিএনএনের ‘ফেসবুক অ্যাট ১৫: ইটস কম্লিকেটেড’ শিরোনামের এক ডকুমেন্টরিতে ওই সাক্ষাৎকারটি প্রচারিত হবে। আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি এই ডকুমেন্টরিটি প্রচারিত হবে। ওই ডকুমেন্টরিতে নিউ ইয়র্ক সিটির প্রায় ২২ মাইল উত্তরে ডবস ফেরি, নিউ ইয়র্কে ভাই-বোনদের একসঙ্গে বেড়ে ওঠা নিয়ে কথা বলেছেন র‌্যান্ডি জাকারবার্গ।

র‌্যান্ডি বলেন, মার্ক জাকারবার্গের হার্ভার্ড ছেড়ে দেয়া নিয়ে তাদের বাবা-মায়ের অনুভূতি মিশ্র হলেও, তারা সব সময় তাদের ভাই-বোনের সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেছেন।

র‌্যান্ডি জাকারবার্গ বলেন, আমার মনে হয় তারা মেনে নিয়েছিল, যদি আপনি একটি ব্যবসা খুলতে চাইতেন তাহলে আপনি হয়তো ম্যাকডোনাল্ডসের ফ্রাঞ্চাইজি টাকা গ্রহণ করতেন। কিন্তু, এটা (ফেসবুক) হয়তো দ্বিতীয় ভালো পছন্দ ছিল।

বিশ্বজুড়ে বর্তমানে ফেসবুকের মাসিক ব্যবহারকারী ২৩২ কোটি এবং সবশেষ প্রান্তিকে ১৬.৯ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে। আর মার্ক জাকারবার্গের বর্তমান সম্পদের পরিমাণ ৬৫.৩ বিলিয়ন ডলার।

ফেসবুকের শুরুর দিককার একজন কর্মী ও প্লাটফর্মটির লাইভ ভিডিও চেষ্টার সাবেক প্রধান র‌্যান্ডি বর্তমানে নিজেই জাকারবার্গ মিডিয়া নামে একটি প্রোডাকশন কোম্পানির সিইও।  জাকারবার্গ প্রোডাকশনের কাজগুলোর মধ্যে রয়েছে-  ডট নামে একজন টেক-সেভি মেয়েকে নিয়ে শিশুদের জন্য একটি টেলিভিশন শো, সু’স টেক কিচেন নামে শিশুদের জন্য পপ-আপ এক্সপেরিয়েন্স এবং টেকনোলজির সবশেষ ট্রেন্ড নিয়ে একটি সিরিয়াস এক্সএম বিজনেস রেডিও শো।

সিএনএন বিজনেস-এর লরি সেগালকে সাক্ষাৎকার দিচ্ছেন র‌্যান্ডি জাকারবার্গ

তবে নিজের কোম্পানি খোলার আগে ফেসবুকে যোগ দিতে একটি শীর্ষ স্থানীয় বিজ্ঞাপনী সংস্থার চাকরি ছেড়ে দিয়েছিলেন র‌্যান্ডি। তিনি বলেন, শহরতলীর একটি বাড়িতে ফেসবুকের ছোট টিমের সঙ্গে দেখা করতে এবং নতুন একটি লোগোর বিষয়ে পরামর্শ দিতে প্রথমবার ক্যালিফোর্নিয়ায় উড়ে গিয়েছিলেন।

সেদিনগুলো খুব সাদামাটা ছিল। কিন্তু বিদেশে নির্বাচনে হস্তক্ষেপ, গোপনীয়তা কেলেঙ্কারি ও ভুল তথ্য ছড়ানোর অভিযোগে ফেসবুক এখন টালমাটাল।

মোবাইল ফোন থেকে যে কেউ লাইভ ভিডিও পোস্ট করতে ২০১৬ সালে বিশ্বজুড়ে চালু হওয়া ‘ফেসবুক লাইভ’ ফিচারেরও কিছু ঝামেলার সম্মুখীন হচ্ছে। কনসার্ট ও খাবার রান্নার লাইভস্ট্রিমিংয়ের পাশাপাশি ব্যবহারকারীরা আত্মহত্যা, সহিংস হামলা ও হত্যার দৃশ্যও এই ফেসবুক লাইভ-এ প্রচার করছে।

ফেসবুকের প্রথম দিককার লাইভস্ট্রিম প্রচেষ্টার কথা স্মরণ করে র‌্যান্ডি জাকারবার্গ বলেন, আমি মনে করি এটা তৈরির ক্ষেত্রে ওই সময় আমরা খুব তরুণ ও আদর্শবাদী ছিলাম…আমার মনে পড়ে, আমার ভাবনা অনেকটা এমন ছিল ‘ওহ ঈশ্বর, আমরা সবার কথা বলার সুযোগ করে দিচ্ছি’ এবং ঘুম থেকে উঠে এটা নিয়ে খুব উত্তেজনা অনুভব করেছিলাম। কিন্তু অনেক বছর পর, পুরো বিশ্বে চলমান সবকিছু দেখে ঘুম থেকে উঠে আমার অনুভূতি ছিল, ‘ওহ ঈশ্বর, আমরা সবাইকে কথা বলার সুযোগ করে দিয়েছি।’

তিনি আরও বলেন, গণমাধ্যম ও কন্টেন্ট এবং ব্যবহাকারীদের হাতে ক্ষমতা তুলে দেয়ার ‘দারুণ উদ্দেশ্য’ থেকেই ওই টুল তৈরি করা হয়েছিল।

র‌্যান্ডি জাকারবার্গ বলেন, অবশ্য আমরা যেটা বুঝতে পেরেছি যে যখনই আপনি কোনও একটি টুল তৈরি করবেন যখন কিছু লোক সেটিকে দারুণভাবে ব্যবহার করবে এবং কিছু লোক সেটির অপব্যবহার করবে।

তিনি বলেন, প্রযুক্তির দুনিয়ার বর্তমান হচ্ছে সবকিছু ‘এখন, এখন, এখন’ হয়ে দাঁড়িয়েছে, যার ফলে বড় চিত্রটা মিস হয়ে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে।

শত কোটি ডলারের কোম্পানি তৈরি করতে আমরা তরুণদের ওপর চাপ দিচ্ছি। তাই স্বাভাবিকভাবেই তারা যা বানাচ্ছে তা ভবিষ্যতে কী পরিণতি বয়ে আনবে সেটি ভাবার সময় পাচ্ছে না তারা। আমি মনে ফেসবুক দারুণ উদ্দেশ্য ও শেয়ারহোল্ডারদের বাধ্যবাধকতার কারণে বিভিন্ন জিনিস বানায়, তাদের বসে চিন্তা করার সময় নেই, ‘দাঁড়াও, আমরা যেসব টুল তৈরি করছে, তার কী ঘটতে পারে?, বলেন র‌্যান্ডি।

তিনি বলেন, আমি উদ্বেগ এই ভেবে যে প্রযুক্তি কীভাবে ‘আমাদের নয় বরং আমাদের সন্তান ও তাদের সন্তানদের বিশ্ব বদলে’ দিতে পারে। তিনি সিলিকন ভ্যালির বড় বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের অন্যান্য দিক, বিশেষ করে লিঙ্গ বৈচিত্র্যের মতো বিষয় নিয়েও তিনি সমালোচনা মুখর।

যদিও তিনি প্রায়ই তার ভাইয়ের সমর্থনে এগিয়ে আসেন।

গত বছর একটি পোস্টের বিষয়ে মন্তব্য করে ব্যাপক সামালোচিত হন মার্ক জাকারবার্গ। ইহুদিদের গণহত্যার ইতিহাস মানতে নারাজকারী গ্রুপের পোস্ট সরিয়ে না ফেলায় সমালোচনার জবাবে তখন জাকারবার্গ বলেছিলেন, তারা ‘ইচ্ছাকৃতভাবে এমনটি করেনি’। কিন্তু র‌্যান্ডি সেসময় তার ভাইয়ের প্রশংসা করে বলেন, কঠিন এই নতুন বিশ্বে যেখানে বাক স্বাধীনতার ধারণা প্রতিনিয়ত পরিবর্তিত হচ্ছে, সেখানে দারুণ কাজ করছে জাকারবার্গ।

পরিবারের সঙ্গে মার্ক জাকারবার্গ

এই দুই ভাই-বোন অন্যভাবে একে অপরকে সমর্থন করেন। মার্ক জাকারবার্গ একবার তার বোনের ব্রডওয়ে ডেব্যুর সময় প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সঙ্গে বৈঠক সংক্ষিপ্ত করেন।

কিন্তু অনেক দিন হয়, এই দুই ভাই-বোন সুপার নিটেন্ডোয় মারিও কার্ট খেলতে রাতের বেলা একজন আরেকজনের রুমে যান না এবং পারিবারিক প্রাঙ্কের পরিকল্পনা করেন না। র‌্যান্ডি জাকারবার্গের সবচেয়ে পছন্দের প্রাঙ্ক হচ্ছে: ১৯৯৯ সালে নববর্ষের আগে মাঝরাতে সার্কিট ব্রেকার কেটে দেয়া। ওই সময় তার মা Y2K বাগ নিয়ে খুব নার্ভাস ছিলেন, তাই তিনি চিৎকার করে বলতে থাকেন, Y2K আক্রমণ করেছে!

র‌্যান্ডি জাকারবার্গ বলেন, এটা নিচু প্রকৃতির কাজ ছিল কিন্তু দারুণ লেগেছিল। অনেক দিনের জন্য আমাদের গ্রাউন্ডেড করে রাখা হয়েছিল। কিন্তু এটা একেবারে অর্থহীন ছিল না।

র‌্যান্ডি বলেছেন, তাদের পারিবারিক সম্পর্ক খুবই নিবিড় এবং তার বিশ্বাস এটাই সবাইকে যুক্ত করার পেছনে ফেসবুকের অনুপ্রেরণার উৎস।

র‌্যান্ডি জাকারবার্গ বলেন, যখন আপনার এমন বড় পরিবার থাকবে, আপনি পরিবারের মধ্যেই আপনার সব সঙ্গী পেয়ে যাবেন। ‘সম্ভবত তার শৈশবের পুরোটা তার তিন বোনের সঙ্গে কাটানো পর, তার মনে হয়েছে, আমাকে অন্যদের সঙ্গে ‍যুক্ত হতে হবে।’

এ/ এমকে

 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়