logo
  • ঢাকা বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭

ঢাবিতে ভর্তি আবেদন ৮ মার্চ থেকে অনলাইনে, আট বিভাগীয় শহরে পরীক্ষা

২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে এবার ভর্তি পরীক্ষার আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হবে আগামী ৮ মার্চ, আর ভর্তি পরীক্ষা শুরু হবে ২১ মে। এমনটাই জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তি বিষয়ক সাধারণ ভর্তি কমিটির সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এবার পরীক্ষা হবে ১০০ নাম্বারের, যা ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে ছিলো ১২০ নাম্বারের।

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় এক বছর ধরে বন্ধ আছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা কার্যক্রম।

দেশে গেলো বছরের ৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছিলো। করোনা পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে গত বছরের ১৬ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করে আবাসিক হল খালি করে দেয়া হয়।

সম্প্রতি করোনা সংক্রমণ কমে আসার প্রেক্ষাপটে বিশ্ববিদ্যালয়ে আবারো শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর প্রক্রিয়া শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ। জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের নেয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীদের মধ্যে যাদের পরীক্ষা আছে, তাদের জন্য ১৩ মার্চ থেকে আবাসিক হলগুলো খুলে দেয়া হচ্ছে।

এছাড়া মার্চের শেষ সপ্তাহ থেকে পরীক্ষাগুলো শুরু হবে এবং ৭ এপ্রিল থেকে সার্বক্ষণিক অফিস কার্যক্রম শুরু হবে বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর নিশ্চিত করেছেন।

উপাচার্য ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে ভর্তি কমিটির সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এবার আবেদন করতে হবে অনলাইনে, আর ভর্তি পরীক্ষা শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবর্তে আট বিভাগীয় শহরে অনুষ্ঠিত হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, অনলাইনের মাধ্যমে ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া আসছে ৮ মার্চ সোমবার বিকেল চারটা থেকে শুরু হয়ে চলবে ৩১ মার্চ বুধবার রাত বারটা (১১:৫৯মিনিট) পর্যন্ত।

আর টাকা জমা দেয়ার শেষ তারিখ পহেলা এপ্রিল বৃহস্পতিবার রাত বারটা (১১:৫৯মিনিট) পর্যন্ত।

বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২১ মে হবে ২০২১ ক ইউনিটের পরীক্ষা, ২২মে'২০২১ খ ইউনিটের পরীক্ষা, ২৭ মে'২০২১ গ ইউনিটের, ২৮ মে'২০২১ ঘ ইউনিটের এবং ৫ জুন' ২০২১ চ ইউনিটের (সাধারণ জ্ঞান) ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিটি পরীক্ষা সকাল এগারটা থেকে বেলা সাড়ে বারটা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে।

এবার ক, খ, গ ও ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় ৬০ নম্বরের এমসিকিউ এবং ৪০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা নেয়া হবে। আর চ ইউনিটের ক্ষেত্রে ৪০ নম্বরের এমসিকিউ ও ৬০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

জীব বিজ্ঞান অনুষদের ডীন অধ্যাপক মো. ইমদাদুল হক বলেছেন পরীক্ষায় নাম্বারের ক্ষেত্রে সামান্য কিছু পরিবর্তন করা হয়েছে এইচএসসি পরীক্ষা না হওয়ার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে। এবার এসএসসি ও এইচএসসির ফলের ওপর ২০ নম্বরের মূল্যায়ন থাকবে।

প্রসঙ্গত ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে ক, খ, গ ও ঘ ইউনিটের জন্য ৭৫ নম্বরের এমসিকিউ এবং ৪৫ নম্বরের লিখিত পরীক্ষার নিয়ম ছিলো আর চ ইউনিটের জন্য ছিলো ৫০ নম্বরের এমসিকিউ ও ৭০ নম্বরের অঙ্কন পরীক্ষা। গত এসএসসি ও এইচএসসি জিপিএ যোগ করে মোট ২০০ নম্বরের ভিত্তিতে ফল ঘোষণা করা হয়েছিলো।

আবেদনকারীদের ন্যূনতম যোগ্যতা হিসেবে মাধ্যমিক/সমমান এবং উচ্চ মাধ্যমিক/ সমমান পরীক্ষায় আলাদাভাবে ক ইউনিটের জন্য জিপিএ ৩দশমিক৫, খ ইউনিটের জন্য জিপিএ ৩, গ ইউনিটের জন্য জিপিএ ৩দশমিক ৫, ঘ ইউনিটের জন্য জিপিএ ৩ এবং চা ইউনিটের জন্য জিপিএ ৩ থাকতে হবে।

সূত্র- বিবিসি বাংলা।

এম

RTV Drama
RTVPLUS