• ঢাকা শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১ পৌষ ১৪২৬

ছেলেদের সাইড ব্যাগ কেন এত উপকারী

গাজী আনিস, আরটিভি অনলাইন
|  ২৭ নভেম্বর ২০১৮, ১৮:০৬ | আপডেট : ২৭ নভেম্বর ২০১৮, ২২:১৯
ছেলেদের বিচিত্র জীবনে অনেক কিছুর প্রয়োজন হয়। প্রতিনিয়ত টুকিটাকি অনেক জিনিস সঙ্গে নিয়ে চলতে হয়। কারও কারও  বাসা ও অফিসের একগুচ্ছ চাবি, হালকা নাশতা, এমনকি অতি প্রয়োজনীয় ঔষধ সঙ্গী হয়। কেউবা মানিব্যাগ নিয়ে পড়েন বিড়ম্বনায়, পকেটে নাকি ব্যাগ কোনটিতে মানিব্যাগ নিরাপদ এ নিয়ে ভাবতে থাকেন।

বর্তমানে এসব ছোটখাটো বিষয় নিয়ে চিন্তা করার দিন শেষ। ছেলেরা চাইলেই ব্যবহার করতে পারেন সাইড ব্যাগ। অফিস  কিংবা কলেজ-ইউনিভার্সিটিতে যারা যাতায়াত করেন তাদের অনেকের পছন্দের তালিকায় আছে এ ব্যাগ। সুন্দর ও রুচিশীল ব্যাগই একজন স্মার্ট ও সচেতন মানুষের পরিচয় বহন করে। এছাড়া যারা প্রতিদিন সকালে উঠে অফিসে দৌড়ান তারা বেশ ভালো করেই বুঝেন এসব ব্যাগের প্রয়োজনীয়তা। বিশেষ করে যারা শার্ট-প্যান্টের পকেটে অনেক প্রয়োজনীয় জিনিষ নিয়ে চলাচল করেন।

western ছেলেদের যন্ত্রণা কমাতে সাইড ব্যাগ অগ্রগণ্য ভূমিকা পালন করছে। এই ব্যাগে মোবাইল, চার্জার, চাবি, মানিব্যাগ, প্রয়োজনীয় ওষুধ, ক্রিম ও অন্যান্য প্রসাধনী, ছোট ডিভাইস, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, অবসরে পড়ার জন্য ছোট বই, নোট খাতা, কলম, পকেট টিস্যু, মাস্ক, চেক বই, সানগ্লাস, ঘড়ি, ভিজিটিং কার্ড,  হেড ফোনসহ ছোট ছোট প্রয়োজনীয় জিনিস রাখতে পারবেন।  

তবে এ ব্যাগ নির্বাচনে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। কিন্তু মাঝে মাঝে এ অতি প্রয়োজনীয় এ ব্যাগটি কেনার সময় অনেকে ভুল করে থাকেন। ব্রান্ডের ও লোকাল উভয়ই পাওয়া যায়। এক্ষেত্রে দরদামের তারতম্য হয়। সাধারণত মার্কেট ও শো রুমগুলোতে কাপড়ের ও চামড়ার ব্যাগ পাওয়া যায়। দাম ১৫০০ টাকা থেকে ৪০০০ এর মধ্যে। চাইলে আপনার পোশাকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে ব্যাগ কিনতে পারবেন।  

এই ব্যাগে বেশ কয়েকটি পকেট থাকে। বেশি পকেট আছে এমন ব্যাগ নির্বাচন করুন। এতে সুবিধা হচ্ছে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র আলাদা করে নির্দিষ্ট একেকটি পকেটে রাখা যাবে। পকেট বেশি হলে ব্যাগের ভেতরে রাখা ছোটখাটো জিনিসগুলো খুঁজে পেতে সুবিধা হয়। ব্যাগটি এমন হওয়া দরকার যার ম্যাটেরিয়াল অনেকটা হালকা। কারণ এমনিতেই অনেক বেশি জিনিসপত্র থাকার কারণে ব্যাগ ভারি হয়ে যায়। ব্যাগ ভারি হয়ে গেলে তা বহনে অনেক অসুবিধা হয়। এমন ব্যাগ নির্বাচন করুন ব্যাগের হ্যান্ডেল ছোট বড় করা যায়।

ব্যাগের রঙের দিকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া প্রয়োজন। তবে হালকা রং বাছাই করাই উত্তম। বেশি জমকালো রং একেবারেই মানানসই নয়। লেদার বা চামড়ার ব্যাগে আলাদা ঐতিহ্য আছে। যে কোনও পোশাকের সঙ্গে লেদারের ব্যাগ ভালো মানায়।

সাইড ব্যাগ রাজধানীর বেশ কয়েকটি মার্কেটে পাওয়া যায়। ঢাকা নিউমার্কেট, বসুন্ধরা সিটি, যমুনা ফিউচার পার্ক, বায়তুল মোকাররম, জিগাতলা, গুলশানসহ বিভিন্ন শপিং কমপ্লেক্স ও আঞ্চলিক মার্কেটে পাওয়া যায়। কম দামে লেদারের ব্যাগ কিনতে চাইলে ঢাকার রায়েরবাজার-হাজারীবাগে চলে যেতে পারেন। প্রয়োজনে অর্ডার দিয়ে ব্যাগ তৈরি করে নিতে পারেন। ব্যাগ আকর্ষণীয় রাখতে ও দীর্ঘস্থায়ী করতে মাঝে মাঝে মালিশ করতে পারেন।

বিদেশি ব্যাগের ব্র্যান্ডগুলোর মধ্যে আছে প্রেসিডেন্ট, ক্যামেল মাউন্টেইন, ব্ল্যাক ডায়মন্ড, উইলসন, পাওয়ার, অরনেট, পিয়ারি গার্ডেন, ফ্যান্টাসিয়া, লিভস কিং, মিনিস্টার, ম্যাক্স, ন্যাক্স, টি ট্রাভেলস, টার্গেট, টিডল ব্র্যান্ডের ব্যাগ।

তবে যে ব্র্যান্ডই কিনুন সাইট ব্যাগ টেকসই করতে হলে অতিরিক্ত চাপ দেয়া উচিৎ নয়। ব্যাগ আগুন ও পানি থেকে দূরে রাখতে হবে। ব্যাগ ভিজে গেলে চুলার ওপরে শুকানো উচিত নয়। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব রোদে অথবা স্বাভাবিক তাপমাত্রায় তা শুকিয়ে নিতে হবে।

এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়