logo
  • ঢাকা সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১১ মাঘ ১৪২৭

এবার শীতেও গরম থাকবে ঘর

এবার শীতেও গরম থাকবে ঘর
ফাইল ছবি
দেশে শীতের জোয়ার ইতোমধ্যে বইতে শুরু করেছে। কনকনে ঠাণ্ডার ফাঁকে রোদের তাপে চাঙা হয়ে উঠে শরীর। খুবই ভালো লাগে এই রোদের ছোঁয়া। শরীরে গরম কাপর থাকলে আরও সুন্দরভাবে উপভোগ করা যায় শীতকে। কিন্তু শীতের হাওয়ায় ব্যর্থ হয় সেই চেষ্টা। ঘরে সেই সকল পোশাক পড়ে থাকা হয় না আমাদের। কিন্তু ঘরে তো তাণ্ডব চালাতে থাকে শীত। চলুন শীতে ঘরকে গরম রাখার উপায়গুলো এবার জেনে নেয়া যাক-

বাইরের বাতাস ঘরের ভেতর প্রবেশ করে ঘরকে ঠাণ্ডা করে তুলে। এজন্য ঘরের দরজা-জানালার ফাঁকাস্থানগুলো ভালো করে বন্ধ রাখুন। রাবারের বেল্ট, মোটা কাগজ বা কাপড় ব্যবহার করতে পারেন বাতাসকে ঠেকানোর জন্য। তবে ঘরে যদি রোদ প্রবেশের সুযোগ থাকে তাহলে এই সুযোগ মিস করবেন না। দুপুরের দিকে কিছুটা সময়ের জন্য হলেও ঘরের ভেতর সূর্যের আলো ঢুকতে দিন। এতে করে ঘর গরম থাকবে।

দিনের বেলায় যখন রোদ উঠে তখন রাতে ব্যবহার করা কাপড় যেমন কাঁথা, বালিশ, লেপ ও কম্বল জাতীয় জিনিসগুলো রোদে গরম করতে দিন। দুপাশই ভালো করে গরম করুন রোদের তাপে। গরম হলে ভালো করে ভাজ করে তা বিছানায় একটি মোটা কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখুন। রাতে ঘুমানোর সময় তা ব্যবহার করবেন এবং নিজেই বুঝতে পারবেন দিনের সূর্যের তাপ আপনি রাতে উপভোগ করতে পারছেন।

ঘরের দেয়ালে পাতলা ফয়েল কাগজ লাগিয়ে নিতে পারেন। এই কাগজ মুড়ে রাখলে দেয়াল থেকে ঠাণ্ডা বাইরে বের হতে বাধা প্রদান করে। গিফট শপে এসব কাগজ সচরাচর কিনতে পাওয়া যায়। পছন্দসই রঙ ও ডিজাইনের কাগজ লাগিয়ে আজই আটকে নিন ঘরের দেয়ালে। জানালা যদি ঘরে রোদ ঢোকার ভালো উৎস হয় তাহলে জানালার কাছে একটি বড় আয়না বসিয়ে নিন। এতে করে আয়না থেকে প্রতিফলিত তাপে ঘর আরও উষ্ণ হবে।

ঘরের মেঝে কার্পেট ব্যবহার ঘর গরম রাখার উত্তম উপায়। বাজারে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বিভিন্ন রকম কার্পেটের পাশাপাশি বেত ও পাটের তৈরি আধুনিক ডিজাইনের চাটাইও কিনতে পাওয়া যায়। পছন্দসই কিনে মেলে নিন ঘরের মেঝেতে। শীতে রান্নার কাজটা সকালে বা সন্ধ্যায় করতে পারেন। এতে করে পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘর গরম থাকবে। ঘরের জানালা-দরজা ফাঁকা না থাকলে রান্নার এই গরমই দীর্ঘক্ষণ ঘরকে গরম রাখতে সাহায্য করবে।

এসআর/এসএস

RTV Drama
RTVPLUS