logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারি ২০২১, ৭ মাঘ ১৪২৭

ইরানের বিজ্ঞানী হত্যার প্রতিশোধের ঘোষণার পরই পারস্য উপসাগরে ফিরলো মার্কিন রণতরী

US warship, returns, Persian, Gulf after Iran, announces, revenge, killing, scientist
পারস্য উপসাগরে ফিরলো মার্কিন রণতরী
ইরানের শীর্ষপর্যায়ের পদার্থবিজ্ঞানী হত্যার মধ্যেই আমেরিকা নিজেদের বিমানবাহনীর রণতরী পারস্য উপসাগরে ফিরিয়ে আনছে। আমেরিকা ভাবছে বিজ্ঞানী হত্যার ঘটনায় পরে ইরাক ও আফগানিস্তানে থাকা মার্কিন সেনা ঘাটিতে হামলার ঘটনা ঘটতে পারে। সেই আশঙ্কা থেকে মার্কিন রণতরী পারস্য উপসাগরে আনা হচ্ছে।

অন্যদিকে আন্তর্জাতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, ইরানের শীর্ষপর্যায়ের পদার্থবিজ্ঞানী মোহসেন ফাখরিজাদেহ হত্যার পরবর্তীতে ইরান প্রতিশোধের হুমকি দিয়েছিল। সেই হুমকির কারণেই আমেরিকা পারস্য উপসাগরে রণতরী ভাসিয়েছেন। এরমধ্যে দিয়ে আমেরিকা একপর্যায়ে নিজেদের শক্তির ইঙ্গিত দিচ্ছে। এতে দুই দেশের মধ্যে কিছুটা উত্তেজনা বিরাজ করছে। খবর ফক্স নিউজ

মার্কিন নৌবাহিনীর বাহরাইনভিত্তিক পঞ্চম নৌবহরের মুখপাত্র কমান্ডার রেবেকা রিব্যারিচ এক বিবৃতিতে জানান, মার্কিন বিমানবাহী রণতরী ইউএসএস নিমিটজক পারস্য উপসাগরে ফেরায় কোনো ধরনের হুমকি নেই। নিয়ম-মাফিক এই রণতরী উপসাগরে চলছে।  

মার্কিন নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তা বলেন, ইরাক ও আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের জন্য বিমানবাহী রণতরী পারস্য উপসাগরে ফিরছে। সেনাদের স্বাচ্ছন্দ্যে দেশে ফিরিয়ে আনা এবং এয়ার কভার দেওয়ার জন্যই এ ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে মার্কিনীরা। ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন ইরাক ও আফগানিস্তান থেকে ২০২১ সালের ১৫ জানুয়ারির মধ্যে সেনা প্রত্যাহার করবে। 

ইরানের শীর্ষ পর্যায়ের পদার্থবিজ্ঞানী মোহসেন ফাখরিজাদেহ শুক্রবার অতর্কিত হামলায় নিহত হওয়ার আগেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে মার্কিন প্রশাসন। তবে মার্কিন ওই কর্মকর্তা মনে করেন, আমেরিকার এ ধরনের পদক্ষেপ ইরানের বিরুদ্ধে শক্তি প্রদর্শনের বার্তা দেবে। বিজ্ঞানীকে হত্যার পেছনে ইসরাইলকে দায়ী করছে ইরান তবে ইসরাইল হত্যার দায় অস্বীকার করছে।

ইহুদিবাদী ইসরাইলের যুদ্ধবাজ প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ২০১৮ সালের একটি অনুষ্ঠানে ইরানবিরোধী আলোচনা করতে গিয়ে বিজ্ঞানী ফাখরিজাদেহের নাম বার বার উল্লেখ করেছিলেন। সে সময় তিনি হুমকি দিয়ে বলেছিলেন- স্মরণ রাখবেন নামটি হচ্ছে ফাখরিজাদেহ। তিনি ইরানের একজন গুরুত্বপূর্ণ বিজ্ঞানী ছিলেন। তাকে ইরানি বোমার জনক বলা হতো। 

এফএ

RTV Drama
RTVPLUS