logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস বাদুড় থেকে ছড়িয়ে থাকতে পারে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ২৭ জানুয়ারি ২০২০, ১১:৩৩ | আপডেট : ৩০ জানুয়ারি ২০২০, ১৫:৫২
coronavirus may have spreaded from bats
ছবি সংগৃহীত
বাদুড়ের স্যুপ থেকে করোনাভাইরাস ছড়িয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে। চীনে ছড়িয়ে পড়া রহস্যময় প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে এখন পর্যন্ত কমপক্ষে ৮০ জনের মৃত্যু হয়েছে। চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। এরপর পুরো বিশ্বে ২৭৪৪ আক্রান্ত হয়েছে, এমন পরিস্থিতিতে উহান শহর লকডাউন করে দেয়া হয়েছে। খবর ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য সানের।

চীনা বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, কেবল ফ্রুট ব্যাট বা মেগাব্যাটের মধ্যে পাওয়া যায় ভাইরাসের সঙ্গে উহানে ছড়িয়ে পড়া ভাইরাসের মিল রয়েছে। এরপর বিভিন্ন ফুটেজ ও ছবি ছড়িয়ে পড়ে যেখানে দেখা যায় যে, চীনা মানুষজন বাদুড়ের স্যুপ খাচ্ছে।

বাদুড়ের স্যুপ ব্যতিক্রমী হলেও বিশেষ করে উহানে এই খাবারটি খুবই জনপ্রিয়। এই শহরেরই একটি মাছ বাজার থেকে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশিত অসমর্থিত ফুটেজে দেখা গেছে, মানুষজন একটি বাটি থেকে দাঁত বের করে রাখা মৃত একটি বাদুড় খাচ্ছে। আরেকটি ছবিতে দেখা যায়, একটি মৃত বাদুড়ের পেট সরিয়ে ফেলা হয়েছে এবং সেখানে ঝোল রয়েছে।

বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা

সম্প্রতি চায়না সায়েন্স বুলেটে প্রকাশিত এক নতুন গবেষণায় বলা হয়েছে, বাদুড়ের শরীরে পাওয়া যায় এমন একটি ভাইরাসের সঙ্গে নতুন করোনাভাইরাসের সম্পর্ক রয়েছে। এর আগে প্রাণঘাতী সার্স ও ইবোলা ভাইরাসের বিস্তারও উড়ন্ত কোনও স্তন্যপায়ী থেকে হয়েছিল বলে মনে করা হয়।

বিশেষজ্ঞরা ভেবেছিলেন নতুন ভাইরাস মহামারীর কারণ হবে না কারণ আগে যেসব ভাইরাসের প্রকোপ দেখা গেছে, সেসব ভাইরাসের জিন ভিন্ন ছিল। এদিকে নতুন এই ভাইরাসের প্রতিষেধক তৈরি করতে কমপক্ষে এক বছর পর্যন্ত লেগে যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

চায়নিজ একাডেমি অব সায়েন্সেস, পিপলস লিবারেশন আর্মি ও ইন্সটিটিউট পাস্টোর অব সাংহাই যৌথভাবে এই নতুন গবেষণা পরিচালনা করেছে। সেখানে দেখা গেছে, মানবদেহে থাকা এসিই২ নামের একটি প্রোটিনের সঙ্গে এই ভাইরাসের একটি ‘দৃঢ় সম্পর্ক’ রয়েছে।

গবেষকরা বলছেন, এই বান্ডিং প্রোটিনের সঙ্গে সার্স ভাইরাসের উচ্চমাত্রা মিল হয়েছে। ২০০২-২০০৩ সালে ছড়িয়ে পড়া ওই ভাইরাসে প্রায় ৮০০ জনের মৃত্যু হয় এবং বিশ্বজুড়ে আট হাজার মানুষ আক্রান্ত হয়। সরকারি একটি ডাটাবেজে করোনাভাইরাসে নতুন স্ট্রেইনের বিবর্তন শনাক্ত করেছেন এবং বিবর্তন ট্রি থেকে জানতে পেরেছেন এটা বেটাকরোনাভাইরাসভুক্ত।

তাদের দুটির মধ্যে ৭০ থেকে ৮০ ভাগ জিনগত মিল রয়েছে, যা শূকর ও মানুষের সাদৃশ্যের চেয়ে কম। তাদের গবেষণায় জানা গেছে, ২০১৯-এনসিওভি নামের নতুন এই করোনাভাইরাসটি গবেষকরা অবমূল্যায়িত করে থাকতে পারেন।

এক বিবৃতিতে গবেষকরা জানিয়েছে, উহান করোনাভাইরাসের প্রাকৃতিক হোস্ট বাদুড় হতে পারে; কিন্তু বাদুড় ও মানুষের মাঝখানে একটি অজ্ঞাত মাধ্যম থেকে থাকতে পারে। কিন্তু নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উহান ইন্সটিটিউট অব ভিরোলজির একজন সিনিয়র গবেষক বলেছেন, এই গবেষণার ফলাফল সতর্কভাব নিতে হবে।

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টকে তিনি বলেন, একটি কম্পিউটার মডেলে ক্যালকুলেশনের ভিত্তিতে এই ফলাফল তৈরি করা হয়েছে। বাস্তব জীবনে এটা ঘটবে তা অনিবার্য নয়। বান্ডিং প্রোটিন গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু অন্যান্য আরও অনেক কিছুর সঙ্গে এটি নিয়েও তদন্ত করা হচ্ছে। এর সঙ্গে অন্য প্রোটিনেরও সম্পর্ক থাকতে পারে।

এদিকে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, নতুন এই ভাইরাসটি একটি আরএনএ ভাইরাস। অর্থাৎ স্পলপক্স বা গুটি বসন্তের মতো ডিএনএ ভাইরাসের ১০০ গুণ দ্রুত রূপান্তর ঘটে এই আরএনএ ভাইরাসের।

সাপ থেকে ছড়িয়েছে ভাইরাসটি?

পিকিং বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা দাবি করেছেন, বাদুড় থেকে ভাইরাসটি মানবদেহে প্রবেশ করেছে সাপের মাধ্যমে। উহানের ওই মাছ বাজারে অন্যান্য বণ্যপ্রাণীর সঙ্গে সাপও বিক্রি করা হয়। গবেষকরা বলছেন, নতুন ২০১৯-এনসিওভি ভাইরাসটি বাদুড়কে আক্রান্ত করে এমন একটি করোনাভাইরাস এবং আরেকটি অজানা করোনাভাইরাসের সমন্বয়।

গবেষকরা দেখতে পেয়েছেন, করোনাভাইরাসের সাদৃশ্য ভার্সনের কারণে আক্রান্ত হবার বেশি ঝুঁকি আছে সাপের। এর মানে হচ্ছে, ভাইরাসটি আরও শক্তিশালী ও অনুলিপি তৈরি করার ‘আধার’ হিসেবে কাজ করে সাপ।

তারা বলছেন, করোনাভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাব্য উৎস উহানের হুয়ানান ‍সিফুড মার্কেটে সাপও বিক্রি হয়। আর সেখান থেকেই এই ভাইরাস মানবদেহে ছড়িয়ে পড়ার আগে অন্য কোনও প্রাণীর শরীরে প্রবেশ করে থাকতে পারে।

জার্নাল অব মেডিকেল ভিরোলজিতে এক আর্টিকেলে গবেষকরা জানিয়েছে, আমাদের বিবর্তন বিশ্লেষণ থেকে এই প্রথমবার দেখা গেছে যে ২০১৯-এনসিওভি ভাইরাসের আধার হিসেবে সম্ভবত কাজ করে সাপ।

লকডাউন

ব্যাপক হারে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ার প্রেক্ষিতে এটির বিস্তার রোধে উহান শহর বন্ধ করে দেয় চীনা কৃর্তপক্ষ। ‍উহানের সঙ্গে অন্যান্য শহরের ফ্লাইট রয়েছে, এমন শহরের বিমানবন্দরে যাত্রীদের শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা হয় এবং সব যাত্রীর গভীর পর্যবেক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়।

এতকিছুর পরও করোনাভাইরাসটি চীনের বাইরে বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে ফ্রান্সে অন্তত তিনজনের শরীরে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। যুক্তরাজ্যে এখনও এই ভাইরাসে আক্রান্ত কারও সন্ধান পাওয়া যায়নি। তবে যুক্তরাজ্যের রোগ বিশেষজ্ঞ নিল ফার্গুসনের আশঙ্কা ইতোমধ্যেই দেশটিতে পাড়ি জমিয়েছে ভাইরাসটি।

কেননা উহান থেকে সপ্তাহে তিনটি ফ্লাইট যুক্তরাজ্যে আসে। তবে ওই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর সম্ভাব্য সংক্রমণের আশঙ্কায় উহান থেকে যেসব ফ্লাইট এসেছে, সেগুলোকে হিথ্রো বিমানবন্দরের ৪ নম্বর টার্মিনালের একটি বিচ্ছিন্ন এলাকায় অবতরণ করানো হয়।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সব যাত্রীদের জন্য ব্লাংকেট টেমপারেচার স্কিনিং চালু করার পরিকল্পনা নেই তাদের। কারণ আগেও এ ধরনের পদক্ষেপ ব্যর্থ হয়েছে। এদিকে পাবলিক হেলথ ইংল্যান্ড যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের ঝুঁকি ‘খুব কম’ থেকে ‘কমে’ উন্নীত করেছে।

এরইমধ্যে করোনাভাইরাস অন্তত ১২টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এসব দেশের মধ্যে রয়েছে-চীন, থাইল্যান্ড, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, নেপাল, মালয়েশিয়া, কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, সিঙ্গাপুর, ফ্রান্স ও ভিয়েতনাম।

লন্ডনের ইমপেরিয়াল কলেজের অধ্যাপক ফার্গুসন পূর্বাভাস দিয়ে বলেন, এই ভাইরাসে ৯ হাজার ৭০০ জন সংক্রমিত হতে পারে। তিনি দাবি করেন যে, আক্রান্ত প্রতি ১০০ জনে দুজন ব্যক্তির মৃত্যু হতে পারে, যা ১৯১৮ সালে ছড়িয়ে পড়া স্প্যানিশ ফ্লু’র সঙ্গে তুলনাযোগ্য। সাম্প্রতিক ইতিহাসে সেটাই ছিল মারাত্মক মহামারী, যার ফলে বিশ্বজুড়ে পাঁচ কোটি মানুষের মৃত্যু হয়।

এ/ এমকে

সংশ্লিষ্ট সংবাদ : করোনাভাইরাস

আরও
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ
  • আন্তর্জাতিক এর পাঠক প্রিয়