logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

শর্ত ছাড়াই ইরানের সঙ্গে আলোচনা করতে প্রস্তুত যুক্তরাষ্ট্র

আয়াতুল্লাহ আলী খামেনেয়ি, ডোনাল্ড ট্রাম্প
বিবিসি বাংলা
কোনও শর্ত ছাড়াই ইরানের সঙ্গে আলোচনা করতে প্রস্তুত আছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদকে দেয়া এক চিঠিতে এই কথা জানিয়েছে দেশটি। খবর বিবিসি বাংলার।

জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত কেলি ক্র্যাফট এই চিঠিতে বলেন, ইরানের কারণে যাতে আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা হুমকির মুখে না পড়ে এবং উত্তেজনা কমে সেজন্য যুক্তরাষ্ট্র আলোচনা করতে প্রস্তুত।

ইরানের ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পসের কুদস ফোর্সের প্রধান মেজর জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার সিদ্ধান্ত ঠিক ছিল দাবি করে তিনি বলেন, নিজেদের রক্ষার জন্য এটি করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদকে দেয়া এই চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, মধ্যপ্রাচ্যে নিজেদের সৈন্য এবং স্বার্থ রক্ষা করার জন্য যুক্তরাষ্ট্র প্রয়োজন অনুযায়ী অতিরিক্ত ব্যবস্থা নেবে।

অন্যদিকে জাতিসংঘ সনদের ৫১ ধারা উল্লেখ করে জাতিসংঘে নিযুক্ত ইরানি রাষ্ট্রদূত মাজিদ তখত রাভানচি এক চিঠিতে জানান, ইরান কোনও যুদ্ধে জড়াতে বা উত্তেজনা বাড়াতে চায় না।

ইরাকে অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের দুটি ঘাঁটিতে সুনির্দিষ্ট এবং যথাযথ সামরিক পদক্ষেপের মাধ্যমে ইরান আত্মরক্ষা করার চেষ্টা করেছে বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত দেশটির রাষ্ট্রদূত।

তিনি জানান, এই অভিযান ছিল সুনির্দিষ্ট সামরিক পদক্ষেপ। এর মাধ্যমে সামরিক ছাড়া কোনও বেসামরিক মানুষ এবং তাদের সম্পদের ক্ষতি হয়নি।

জাতিসংঘ সনদের ৫১ ধারায় বলা হয়েছে, কোনও রাষ্ট্র যদি নিজেদের রক্ষা করার জন্য পদক্ষেপ নেয়, তবে বিষয়টি দ্রুত জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদকে জানাতে হবে।

এর আগে গত ৩ জানুয়ারি ভোররাতে ইরাকের বাগদাদ ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টের কাছে বিমান হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্র।

এতে ইরানের ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পসের (আইআরজিসি) কুদস ফোর্সের প্রধান মেজর জেনারেল কাসেম সোলাইমানি নিহত হন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা বিভাগের সদর দপ্তর পেন্টাগন জানায়, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে এই হামলা চালানো হয়।

অন্যদিকে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনেয়ি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের জন্য কঠোর প্রতিশোধ অপেক্ষা করছে।

এর জবাবে বুধবার দুটি আমেরিকান ঘাঁটিতে ইরানের ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে ৮০ জন নিহত এবং ২০০ জন আহত হন বলে জানায় ইরানি রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বুধবার জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে বলেন, ইরানের হামলায় কোনও আমেরিকান আহত বা নিহত হননি।

কে/এসএস

RTVPLUS