logo
  • ঢাকা সোমবার, ২০ জানুয়ারি ২০২০, ৭ মাঘ ১৪২৭

সোলায়মানির প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাতে ইরাকিদের ঢল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০৪ জানুয়ারি ২০২০, ২১:৪৩ | আপডেট : ০৪ জানুয়ারি ২০২০, ২১:৪৬
কাসেম সোলায়মানি, আয়াতুল্লাহ খামেনি
ইরানের নিউজ সাইট পার্সটুডে
ইরানের ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পসের (আইআরজিসি) কুদস ফোর্সের প্রধান মেজর জেনারেল কাসেম সোলায়মানি এবং ইরাকের মিলিশিয়া কমান্ডার আবু মাহদি আল-মুহান্দিসের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাতে কয়েক লাখ ইরাকির ঢল নেমেছে। খবর ইরানি নিউজ সাইট পার্সটুডের।

ইরাকের রাজধানী বাগদাদে তাদের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানান অসংখ্য মানুষ। এমনকি সোলায়মানির কফিন বহনকারী গাড়িটি মানুষের ভিড়ের কারণে সামনের দিকে ঠিকমতো এগিয়ে যেতে পারছিল না। রাজধানীর পাশাপাশি দেশটির অন্যান্য শহরে মানুষের ঢল নামে।

বাগদাদে অবস্থিত ইরানের দূতাবাস জানিয়েছে, ইরাকিদের অনুরোধে সোলায়মানিসহ অন্যান্য ইরানি শহিদের মরদেহ কারবালা এবং নাজাফ শহরে নিয়ে যাওয়া হবে। এই দুই শহরের মানুষ তাদের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাবেন।

শনিবার সোলায়মানিসহ ইরানি শহিদদের মরদেহ ইরানে পৌঁছানোর কথা। এরপর তাদের মরদেহ মাশহাদে ইমাম রেজা (আ.) এর মাজারে নিয়ে যাওয়া হবে। আগামীকাল তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে নেয়া হবে তাদের মরদেহ। এখানে তাদের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। মঙ্গলবার নিজ প্রদেশ কেরমানে সোলায়মানিকে দাফন করা হবে।

শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) ভোরে ইরাকের বাগদাদ ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টের কাছে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় ইরানের ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পসের (আইআরজিসি) কুদস ফোর্সের প্রধান মেজর জেনারেল কাসেম সোলায়মানি এবং ইরাকি মিলিশিয়া কমান্ডার আবু মাহদি আল-মুহান্দিস নিহত হন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা বিভাগের সদরদপ্তর পেন্টাগন জানায়, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে এই হামলা চালানো হয়। অন্যদিকে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের জন্য কঠোর প্রতিশোধ অপেক্ষা করছে।

কে/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ
  • আন্তর্জাতিক এর পাঠক প্রিয়