logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬

কাশ্মীর ইস্যুতে নিরাপত্তা পরিষদে শুধু চীনকেই পেলো পাকিস্তান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ১৭ আগস্ট ২০১৯, ০৫:৪৫ | আপডেট : ১৭ আগস্ট ২০১৯, ০৯:২৭
কাশ্মীর, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ, ভারত, পাকিস্তান
ছবি: সংগৃহীত
জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের রুদ্ধদ্বার বৈঠকে চীন ছাড়া আর কেউই পাকিস্তানের ডাকে সাড়া দেয়নি। ইসলামাবাদের পরমবন্ধু চীন ছাড়া অন্য রাষ্ট্রগুলো বলছে, কাশ্মীর ভারত-পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ বিষয়। বৈঠকে পাকিস্তানকে খোলাখুলি সমর্থন দিয়েছে চীন। কিন্তু বাকি চার স্থায়ী সদস্য যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, ফ্রান্স ও ব্রিটেন পাশে দাঁড়িয়েছে ভারতের। তারা মনে করে, ভারত-পাকিস্তানের দ্বিপাক্ষিক বিষয় কাশ্মীর।    

চীনের আবেদনে সাড়া দিয়ে কাশ্মীর নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসেছিল জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শুরু হয়েছিল বৈঠক। প্রায় সোয়া ঘণ্টা ধরে চলে আলোচনা। ওই বৈঠকে ভারত ও পাকিস্তানের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন না। বৈঠকটি আনুষ্ঠানিক ছিল না, ফলে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের নথিতে ঠাঁই পাবে না।

জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি দিমিত্রি পলিনস্কি বলেন, ভারত-পাকিস্তান সম্পর্কের স্থিতাবস্থার পক্ষে রাশিয়া। ১৯৭২ সিমলা চুক্তি মেনে দ্বিপাক্ষিক রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করা উচিত। আমরা ভারত-পাকিস্তানের বন্ধু। এর পেছনে কোনও উদ্দেশ্য নেই। নয়াদিল্লি ও ইসলামাবাদের সুসম্পর্কের পক্ষে আমরা প্রশ্ন করবো।

---------------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট রাজধানী সরিয়ে কোথায় নিতে চান?
---------------------------------------------------------------------

কিন্তু নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে পাকিস্তানের সঙ্গ দিয়েছে বন্ধু চীন। তারা প্রশ্ন করেছে, এক তরফাভাবে কাশ্মীর থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহার করেছে ভারত। যদিও বেইজিংকে নয়াদিল্লি ইতোমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছে, কাশ্মীর ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখের পরিবর্তনে আন্তর্জাতিক সীমান্তের সঙ্গে কোনও অদলবদল করা হয়নি। জাতিসংঘে ভারতের প্রতিনিধি সৈয়দ আকবরউদ্দিনও স্পষ্ট করে জানিয়ে দেন, ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল ভারতের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। সেখানকার মানুষের উন্নয়নের জন্যই প্রত্যাহার করা হয়েছে।

এদিকে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকের আগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ফোন করেছিলেন ইমরান খান। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে জানিয়ে দিয়েছে বৈঠকে। কাশ্মীর ভারত ও পাকিস্তানের দ্বিপাক্ষিক বিষয় বলে মনে করে ব্রিটেন এবং ফ্রান্সও।

প্রসঙ্গত, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে আলোচনা চেয়ে ৫ আগস্ট চিঠি দেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি। পাকিস্তানের পাশে দাঁড়ায় তাদের বন্ধু রাষ্ট্র চীন। বেইজিংয়ের আবেদনে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে সম্মত হয় জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়