যুক্তরাষ্ট্রে ৫ কন্টেইনার বর্জ্য ফেরত পাঠালো ইন্দোনেশিয়া

প্রকাশ | ১৯ জুন ২০১৯, ১০:২৫ | আপডেট: ১৯ জুন ২০১৯, ১৩:৪১

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্র থেকে পাঠানো পাঁচ কন্টেইনার বর্জ্য ফেরত পাঠিয়েছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ ইন্দোনেশিয়া। একইসঙ্গে ইন্দোনেশিয়াকে ‘ময়লার ভাগাড়’ বানাতে দেয়া হবে না বলেও ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির কর্মকর্তারা। সম্প্রতি বেশ কিছু দেশ বিভিন্ন দেশের বর্জ্য ফেরত পাঠানো শুরু করেছে, ওই তালিকায় সবশেষ যুক্ত হলো ইন্দোনেশিয়ার নাম।

ইন্দোনেশিয়ার পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা সাঈদ মুহাধর বলেছেন, ওই পাঁচ কন্টেইনারে শুধু কাগজজাতীয় আবর্জনা থাকার কথা ছিল। কিন্তু এর সঙ্গে প্রচুর পরিমাণে বোতল, প্লাস্টিক বর্জ্য ও ডায়াপার ছিল।

সরকারের শীর্ষ এই কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা এএফপি বলেছেন, এটা ঠিক না। আমরা ময়লার ভাগাড় হতে চাই না।

মুহাধর বলেন, কানাডীয় একটি প্রতিষ্ঠানের মালিকানাধীন ওই কন্টেইনারগুলো যুক্তরাষ্ট্রের সিয়াটল থেকে ইন্দোনেশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর সুরাবায়ায় গত মার্চ মাসের শেষদিকে পৌঁছায়। তবে ওই ময়লাগুলো উৎপত্তিস্থল কোথায় তা এখনও স্পষ্ট নয়।

এ ঘটনার পর জাকার্তা বন্দর ও সুমাত্রা দ্বীপের বাতাম শহরের অন্য সব কন্টেইনারও পরীক্ষা করে দেখছে ইন্দোনেশিয়ার কর্তৃপক্ষ।

গত মাসে এশিয়ার আরেক দেশ মালয়েশিয়া শত শত টন আমদানি করার বর্জ্য ফেরত পাঠানোর ঘোষণা দেয়। এর আগে ফিলিপিন্সও কানাডা থেকে আসা বিপুল পরিমাণ বর্জ্য ফেরত পাঠানোর ঘোষণা দিলে উভয় দেশের মধ্যে কূটনৈতিক টানাপোড়েন দেখা দেয়।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বেশিরভাগ প্লাস্টিক বর্জ্য আমদানি করতো চীন। তবে পরিবেশ রক্ষার জন্য গত বছর এ কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে দেশটি। ওয়ার্ল্ডওয়াইড ফান্ড ফর ন্যাচারের (ডব্লিউডব্লিউএফ) তথ্যমতে, প্রতি বছর সারাবিশ্বে অন্তত ৩০০ মিলিয়ন টন প্লাস্টিক বর্জ্য তৈরি হয়। এর বেশিরভাগেরই জায়গা হয় মাটির নিচে বা সাগরে।

এ/পি