রাশিয়ায় টিএনটি প্ল্যান্টে বিস্ফোরণে নিখোঁজ ২, আহত ৪২

প্রকাশ | ০১ জুন ২০১৯, ২২:৩৭ | আপডেট: ০১ জুন ২০১৯, ২২:৪২

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
ছবি: রাশিয়ার টেলিভিশন নেটওয়ার্ক আরটি

রাশিয়ার মধ্যাঞ্চলের ডিজারঝিনস্কের একটি ট্রাইনাইট্রোটলুইন (টিএনটি) প্ল্যান্টে একাধিক বিস্ফোরণে দুজন নিখোঁজ এবং কমপক্ষে ৪২ আহত হয়েছেন।

রুশ টেলিভিশন নেটওয়ার্ক আরটি এক প্রতিবেদনে জানায়, শনিবারের এসব বিস্ফোরণের ফলে আশেপাশের কয়েকটি ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং পুরো শহর ধোঁয়ায় ছেয়ে গেছে।

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, এসব বিস্ফোরণ এতটাই শক্তিশালী ছিল যে ১৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত আরেকটি শহরের মানুষ শব্দ শুনতে পান।

আরও বলা হয়, এসব বিস্ফোরণের ফলে আশেপাশের ভবনগুলোর জানালাগুলো ভেঙে চুর্ণবিচুর্ণ হয়ে গেছে। কোনও কোনও ভবনের ছাদের পলেস্তারা খসে পড়েছে।

বিস্ফোরণের পর ডিজারঝিনস্কের বাসিন্দারা রাস্তায় ধোয়ার কুণ্ডলী দেখেছে এবং কর্তৃপক্ষ শহরটিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে প্রতিবেদনটিতে।

এতে বলা হয়, সব কর্মীকে নিরাপদে সরানো হয়েছে বলে জানিয়েছে প্ল্যানটির প্রশাসন। কিন্তু স্থানীয় কর্তৃপক্ষের মতে, এখনও দুজন নিখোঁজ আছেন।

ইমার্জেন্সি সার্ভিসেসের বরাত দিয়ে এই প্রতিবেদনে বলা হয়, এসব বিস্ফোরণে সবমিলিয়ে ৪২ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে চার জনের অবস্থা গুরুতর।

রুশ টেলিভিশন নেটওয়ার্কটি জানায়, এই টিএনটি প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের বিস্ফোরণের ঘটনা এটিই প্রথম নয়। গত ৪ এপ্রিলে প্রতিষ্ঠানটির একটি একতলা ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

আরও জানায়, এদিনের আগুন নেভাতে প্রায় এক ঘণ্টা লেগে যায় এবং সৌভাগ্যক্রমে এখানকার প্রত্যেকেই অক্ষত ছিলেন। তবে গত আগস্টের ভয়াবহ বিস্ফোরণে পাঁচজন নিহত হন।

উল্লেখ্য, জার্মান রসায়নবিদ জুলিয়াস উইলব্রান্ড ১৮৬৩ সালে প্রথম টিএনটি প্রস্তুত করেন। এটা হলুদ রঙ হিসেবে ব্যবহৃত হত। প্রথমদিকে এটাকে বিস্ফোরক হিসেবে ব্যবহার করা হত না। কারণ প্রচলিত বিস্ফোরকের তুলনায় এটি ছিল কম ক্ষমতাসম্পন্ন এবং এটাকে ডেটোনেট করা খুবই কষ্টসাধ্য ছিল। ১৯১০ সালে টিএনটি নিরাপদভাবে তরল অবস্থায় পাত্রে ভরা সম্ভব হয়।

কে/পি