logo
  • ঢাকা সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬

ভারতের এস্যাট পরীক্ষা ভয়ঙ্কর: নাসা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০২ এপ্রিল ২০১৯, ১৫:১৭
ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ে কক্ষপথে উপগ্রহ ধ্বংসের যে পরীক্ষা চালিয়েছে ভারত, এ ঘটনায় আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের বড় ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করছে নাসা। মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থার হিসেব মতে, ভারতের পরীক্ষানিরীক্ষার পর আগামী ১০ দিনে মহাকাশ স্টেশনের বিপদ বেড়েছে অন্তত ৪৪ শতাংশ।

bestelectronics
‘মিশন শক্তি’র ‘এস্যাট’ ক্ষেপণাস্ত্র পৃথিবীর ৩০০ কিলোমিটার উপরে থাকা উপগ্রহটিকে ধ্বংস করেছে। আর তার মাত্র ৭০ কিলোমিটার উপরের (৩৭০ কিলোমিটার) কক্ষপথেই রয়েছে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন (আইএসএস)।

নাসার প্রধান জিম ব্রিডেনস্টিন বলেছেন, ভয়ঙ্কর, ভয়াবহ ঘটনা। ‘এস্যাট’ ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে পৃথিবীর ৩০০ কিলোমিটার উপরের কক্ষপথে ভারতীয় উপগ্রহের অন্তত ৪০০টি ধবংসাবশেষের সৃষ্টি হয়েছে। যাদের গতিবেগ ওই উপগ্রহটির মতোই। সেগুলো কক্ষপথে প্রদক্ষিণের সময় কোন দিকে ছুটবে বা কার গায়ে গিয়ে ধাক্কা মারবে আর তার ফলে কী হবে, তা কেউই জানেন না। ইতোমধ্যেই মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ওই ধবংসাবশেষগুলোর মধ্যে ২৪টিকে উপরের দিকে উঠতে দেখা গেছে।

উপরের দিকে ওঠা বলতে বোঝায় পৃথিবীর উপরের কক্ষপথের দিকে এগোনো। নাসা প্রধানের আশঙ্কা, আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন যেহেতু রয়েছে পৃথিবীর ৩৭০ কিলোমিটার উপরের কক্ষপথে, তাই ক্রমশ উপরের দিকে ওঠা ২৪টি ধবংসাবশেষের কোনও একটি বা দুটি যদি ধাক্কা মারে মহাকাশ স্টেশনে, তাহলে স্টেশন তো বটেই, সেই স্টেশনে থাকা মহাকাশচারীদের পক্ষেও তা অত্যন্ত বিপজ্জনক হয়ে উঠবে।

ভারতের এস্যাট পরীক্ষার পর কক্ষপথে ছোট, বড় ও মাঝারি নানা রকমের ধবংসাবশেষের সৃষ্টি হয়েছে। নাসার প্রধান জিম জানিয়েছেন, তাদের মধ্যে যেগুলো বেশ বড়, সেগুলোকেই আগে খোঁজা হচ্ছে। সেগুলোর ব্যাস ১০ সেন্টিমিটারের চেয়েও বড়। এমন ৬০টি খণ্ডের সন্ধান পাওয়া গেছে। ব্রিডেনস্টিনের কথায়, এদের মধ্যেই ২৪টিকে উপরের দিকে উঠতে দেখা গেছে। এগুলোই ভয়াবহ ঘটনা ঘটিয়ে দিতে পারে যেকোনও মুহূর্তে। সেগুলো মহাকাশ স্টেশন ছাড়িয়ে আরও উপরের কক্ষপথের দিকে এগোতে থাকলেও খুব বিপদ। যা আগামী ১০ দিনে মহাকাশ স্টেশনে বিপদের আশঙ্কাকে অন্তত ৪৪ শতাংশ বাড়িয়ে দিয়েছে।

ইতোমধ্যেই পৃথিবীর বিভিন্ন কক্ষপথে ১০ সেন্টিমিটারের চেয়ে বেশি ব্যাসের ধবংসাবশেষ মিলেছে কমপক্ষে ২৩ হাজারটি। যার মধ্যে ৩ হাজার ধ্বংসাবশেষের সৃষ্টি হয়েছিল ২০০৭ সালে, চীনের অ্যান্টি-স্যাটেলাইট পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর।

এ/পি

bestelectronics bestelectronics
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়