ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তানকে ‘এফ-16’ ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশ | ০৮ মার্চ ২০১৯, ১৮:৫৪

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
ছবি: পাকিস্তান-ভিত্তিক গণমাধ্যম ‘ডন’

যুক্তরাষ্ট্র ‘এফ-16’ ফাইটার জেটগুলো পাকিস্তানকে দেয়ার সময়  ভবিষ্যতে শুধু ভারতের সঙ্গে সংঘাত হলে তা থামাতে বিমানগুলো ব্যবহারের স্বীকৃতি দেয়নি, বরং দুই দেশের মধ্যে পারমাণবিক সংঘর্ষ দেখা দিলে সেটি এড়াতেও পাকিস্তান এগুলো ব্যবহার করতে পারবে বলে উল্লেখ করে।

শুক্রবার প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে এই তথ্য জানায় পাকিস্তানের গণমাধ্যম ‘ডন’। এতে বলা হয়, ২০০৮ সালের ২৪ এপ্রিল  ইসলামাবাদে যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন রাষ্ট্রদূত অ্যান প্যাটার্সন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো একটি বার্তায় উভয় পয়েন্টই বিশেষভাবে উল্লেখ করেন।

এই বার্তায় অ্যান প্যাটার্সন লেখেন, একটি বর্ধিত এফ-16 প্রোগ্রাম অনুযায়ী ভবিষ্যতে ভারতের সঙ্গে সংঘাতের জবাবে পারমাণবিক অস্ত্রের পরিবর্তে প্রচলিত যুদ্ধরীতি অনুসারে নির্দিষ্ট সময় ও স্থানে এগুলো ব্যবহার করতে পারবে পাকিস্তান।

রাষ্ট্রদূত প্যাটার্সন ওয়াশিংটনে ২০-অনুচ্ছেদের যে প্রজ্ঞাপন পাঠান, সেখান থেকেই এটি উদ্ধৃত করেছে গণমাধ্যমটি। প্রজ্ঞাপনটি প্রকাশ করে গোপন নথি ফাঁসের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী সাড়া ফেলা ওয়েবসাইট ‘উইকিলিকস’।

প্যাটার্সন যে প্যাকেজের কথা উল্লেখ করেন, সেটির অন্তর্ভুক্তি ছিল ‘500 এআইএম-120-সি5 অ্যাডভান্সড মিডিয়াম রেঞ্জ এয়ার-টু-এয়ার মিসাইল’(এএমআরএএএম)। গত সপ্তাহে কাশ্মীরে ইন্ডিয়ান এয়ার ফোর্সের বিরুদ্ধে এটি ব্যবহার করা হয়েছে বলে দাবি করেছে ভারত।

পাকিস্তান যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে আরও এফ-16 ফাইটার জেট কিনতে চাইলে এবং ভারত এতে আপত্তি জানালে ২০০৯ সালের ১৮ মার্চ রাষ্ট্রদূত প্যাটার্সন ওয়াশিংটনে আরেকটি দীর্ঘ বার্তা পাঠান।

এই বিক্রি বন্ধে ভারতের অনুরোধের বিষয়ে তিনি লেখেন, যদি লক্ষ্য হয় বিমানবাহিনীকে শায়েস্তা করে সেনাবাহিনীকে কৌশল পাল্টাতে চাপ দেয়া এবং ভারতীয় সীমান্ত থেকে সৈন্যদেরকে পুনঃমোতায়েন করা, তবে আরও এফ-16 ফাইটার জেট বিক্রির প্রস্তাবটি বাতিল করা আমাদের জন্য লাভজনক হবে না।

কে/এসএস