logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ২০ ফাল্গুন ১৪২৭

স্বাধীন ভারতে প্রথমবার কোনো নারীর ফাঁসি হতে যাচ্ছে

শবনম আলী,
শবনম আলী।

ভারতে প্রথম কোনও নারীকে ফাঁসি দেওয়া হবে। দোষী ওই নারীকে মথুরার মহিলা কারাগারেই এই সাজা দেওয়া হবে। প্রেমিকের সঙ্গে বিয়েতে রাজি না হওয়ায় পরিবারের ৭ সদস্যকে একসঙ্গে নির্মমভাবে হত্যা করেছিলেন তিনি।

আজ থেকে ১৩ বছর আগে উত্তরপ্রদেশের সেই ঘটনায় রীতি মতো হইচই পড়ে গিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত মামলায় দোষী সাব্যস্ত হন শবনম আলী।

আবারও আলোচনায় এসেছেন তিনি। কারণ স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে তিনিই হতে পারেন মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া প্রথম নারী।

বর্তমানে ৩৮ বছর বয়সী শবনম রামপুর কারাগারে বন্দি রয়েছেন। ২৫ বছর বয়সে এই ভয়ঙ্কর হত্যাযজ্ঞ ঘটিয়েছিলেন তিনি।

সে সময় শবনম তার গ্রামের বাসিন্দা সেলিমের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। তারা বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন। তবে মাস্টার্স পাস মেয়ের সঙ্গে ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত পড়া ছেলের বিয়ে দিতে চাননি শবনমের পরিবার। এতে প্রেমিকের কুপরামর্শে নিজের পরিবারের সদস্যদের হত্যা করেন শবনম।

ওই রাতে শবনম তার মা, বাবা, দুই ভাই, ভাবি, ১০ মাস বয়সী ভাইয়ের ছেলে এবং এক আত্মীয়কে ঘুমের ওষুধ মেশানো দুধ খাইয়ে প্রথমে অজ্ঞান করেন। এরপর গলা কেটে হত্যা করেন সবাইকে।

পরবর্তীতে ২০১০ সালে শবনম এবং সেলিম দু’জনকেই দোষী সাব্যস্ত করে মৃত্যুদণ্ডের রায় দেন আমরোহার দায়রা আদালত। গেলো ১১ বছরে সাজা মওকুফের জন্য এলাহাবাদ হাইকোর্ট, সুপ্রিম কোর্ট এবং ভারতীয় রাষ্ট্রপতির কাছেও গিয়েছিলেন শবনম। নিম্ন আদালতের রায় পুনর্বিবেচনা করতে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জানান তিনি। ভারতের শীর্ষ আদালত ২০২০ সালের জানুয়ারিতে শবনমের আবেদনটি খারিজ করে দেন।

এদিকে ভারতীয় আইন বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, বিচার বিভাগীয় কমিটির কাছে আবেদনটি পুনর্বিবেচনা এবং কিউরেটিভ পিটিশন দায়েরের উপায় এখনও শবনমের হাতে রয়েছে।

অন্যদিকে শবনমের ফাঁসি কার্যকর করার দিনক্ষণ ঠিক করতে আমরোহা দায়রা আদালতে ইতোমধ্যেই আবেদন করা হয়েছে।

প্রায় ১৫০ বছরের পুরোনো মথুরা কারাগারই ভারতের একমাত্র কারাগার, যেখানে নারী আসামির ফাঁসি কার্যকরের ব্যবস্থা রয়েছে। স্বাধীন ভারতে এখন পর্যন্ত কোনো নারীর মৃত্যুদণ্ড হয়নি। তাই সেই ফাঁসির মঞ্চ এখনও অব্যবহৃতই রয়েছে।

এই মুহূর্তে মথুরা কারাগারে শবনমের ফাঁসির জন্য পুরোদমে প্রস্তুতি চলছে। বিহারের বক্সার কারাগার থেকে ফাঁসির দড়ি চাওয়া হয়েছে। জহ্লাদ গিয়ে ফাঁসিমঞ্চের সব পর্যবেক্ষণও করেছেন।

শবনমের মৃত্যুর পরোয়ানা এখন পর্যন্ত হাতে পৌঁছায়নি বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবীরা।

সূত্র- আনন্দবাজার পত্রিকা।

এম

RTV Drama
RTVPLUS