Mir cement
logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

শিক্ষিকা থেকে আমেরিকার ফার্স্ট লেডি জিল!

Joe Biden and Jill Biden
জো বাইডেন ও জিল বাইডেন

যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত জো বাইডেন। আর তার স্ত্রী হিসেবে জিল বাইডেন এখন আমেরিকার ‘ফার্স্ট লেডি’। আগামী ৪ বছর হোয়াইট হাউস হবে তার আবাসস্থল। ১৯৯০ এর দশকে কলেজে ইংরেজি পড়াতেন জিল বাইডেন।

বাইডেন প্রার্থী হওয়ার পর বিভিন্ন প্রচারণায় স্ত্রীর নানান গুণের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছিলেন। ১৯৭৭ সালে নিউ ইয়র্কে বিয়ে করেন জো আর জিল। সংসার জীবনের ৪ বছর পর তাদের মেয়ে অ্যাশলে বাইডেনের জন্ম। এর আগে ১৯৭০ সালে জিলের বিয়ে হয়েছিল সাবেক কলেজ ফুটবলার বিল স্টিভেনসনের সঙ্গে। কিন্তু ১৯৭৪ সালে তাদের মধ্যে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। অন্যদিকে ১৯৭২ সালে এক গাড়ি দুর্ঘটনায় নিহত হন জো বাইডেনের প্রথম স্ত্রী ও এক বছর বয়সী মেয়ে। তবে ওই দুর্ঘটনায় তাদের দুই ছেলে বেঁচে গিয়েছিল।

স্ত্রী-সন্তান হারানোর তিন বছর পর জিলের সঙ্গে জো বাইডেনের পরিচয় হয়। জো-র ভাইয়ের মাধ্যমে এ পরিচয় হয়েছিল বলে জানান জিল।

জিল বাইডেন ফ্যাশন ম্যাগাজিন ভোগকে বলেন, আমি যখন কলেজের শিক্ষিকা, জো ততদিনে যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর। তিনি আমার চেয়ে ৯ বছরের বড়। প্রথম দেখায় মনে হয়েছিল আমাদের সম্পর্ক কখনোই হবে না, কয়েক লাখ বছরেও না। কারণ আমি জিন্স, টি-শার্ট পরা অনেকের সঙ্গে ডেটিং করেছি; কিন্তু তিনি যখন দরজা দিয়ে এলেন তার পরনে ছিল স্পোর্ট কোট ও লোফারস। আমরা থিয়েটারে গিয়ে ‘এ ম্যান অ্যান্ড এ উইমেন’ চলচ্চিত্র দেখি। এরপর আমরা সত্যিকার অর্থে একে অপরের সঙ্গে জড়িয়ে যাই। ফ্যাশন ম্যাগাজিন ভোগকে নিজেদের প্রথম ডেটিংয়ের কথা বলতে গিয়ে জানিয়েছিলেন জিল।

জিল জ্যাকবস বাইডেন জন্ম ১৯৫১ সালের জুন মাসে নিউ জার্সিতে। পাঁচ বোনের সবার বড় জিল। বেড়ে ওঠা ফিলাডেলফিয়ার শহরতলির উইলো গ্রোভে। ব্যাচেলর ডিগ্রির পাশাপাশি তার দুটো মাস্টার্স ডিগ্রি আছে। ২০০৭ সালে তিনি ডেলওয়্যার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডক্টরেট অব এডুকেশনও ডিগ্রি পান। রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে যাওয়ার আগে তিনি অনেকগুলো বছর তিনি কমিউনিটি কলেজ, সরকারি হাই স্কুল ও কিশোর-কিশোরীদের মনোরোগ হাসপাতালে শিক্ষকতা করেন।

জো বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্টের দায়িত্বে থাকাকালেও জিল ছিলেন নর্দার্ন ভার্জিনিয়া কমিউনিটি কলেজের ইংরেজির অধ্যাপক। এখন ৬৯ বছর বয়সী জিলের শিক্ষকতার ক্যারিয়ার কয়েক দশকের। ২০০৯ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ভাইস প্রেসিডেন্ট স্বামীর সূত্রে জিল ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের ‘সেকেন্ড লেডি’। ওই ৮ বছর তিনি কমিউনিটি কলেজের প্রসার, সামরিক বাহিনীর সদস্যদের পরিবারের সহায়তায় নানান কর্মকাণ্ড এবং স্তন ক্যান্সার রোধে সচেতনতা বৃদ্ধির কাজে যুক্ত ছিলেন। এছাড়া জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হবার পর প্রচারে বেশ সক্রিয় ভূমিকা রেখেছেন জিল।

সূত্র- ইউএসএ টুডে

জিএ

RTV Drama
RTVPLUS