logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

চীনা কমিউনিস্ট পার্টির ১৯তম সম্মেলনের পঞ্চম পূর্ণাঙ্গ অধিবেশন সমাপ্ত

চীনা কমিউনিস্ট পার্টির ১৯তম সম্মেলন
চীনা কমিউনিস্ট পার্টির ১৯তম সম্মেলনের পঞ্চম পূর্ণাঙ্গ অধিবেশন ২৯ অক্টোবর চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে সমাপ্ত হয়। সম্মেলনে চীনের আর্থিক ও সামাজিক উন্নয়নের চতুর্দশ পাঁচসালা পরিকল্পনা পর্যালোচনা করা হয়। সম্মেলনে বলা হয়, চীনে উচ্চমানের উন্নয়ন পর্যায়ের সূচনা হয়েছে এবং চীনের সার্বিক সংস্কার ও উন্মুক্তকরণের মান সার্বিকভাবে উন্নত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সম্মেলনে ২০৩৫ সালের মধ্যে চীনে সমাজতান্ত্রিক আধুনিকায়ন বাস্তবায়নের লক্ষ্যমাত্রাও নির্ধারণ করা হয়।

সম্মেলনে পরবর্তী পাঁচ বছরে চীনের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়। এসব লক্ষ্যের মধ্যে রয়েছে: উচ্চমানের ভিত্তিতে অর্থনীতির টেকসই ও সুষ্ঠু উন্নয়ন বাস্তবায়ন করা, আধুনিকায়নে অর্থনৈতিক ব্যবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন বাস্তবায়ন করা, উচ্চমানের বাজার অর্থনীতি ব্যবস্থা সম্পূর্ণ করা, পরিবেশ উন্নয়নে নতুন বিকাশ অর্জন ও জনজীবন নতুন পর্যায়ে উন্নীত করা।

সম্মেলনে প্রকাশিত ইস্তাহারে বলা হয়, চীন উচ্চমানের উন্মুক্ত অর্থনৈতিক ব্যবস্থা গড়ে তুলবে, উন্মুক্তকরণের মান সার্বিকভাবে উন্নত করবে, অবাধ বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাস্তবায়ন করবে, বাণিজ্যের নব্যতাপ্রবর্তন উন্নয়ন করবে, ‘এক অঞ্চল, এক পথ’ উদ্যোগ যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করবে, এবং বিশ্ব অর্থনৈতিক পরিচালনা ব্যবস্থার সংস্কারে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করবে।

ইশতেহারে বলা হয়, চীন উন্নয়ন ও নিরাপত্তা সমন্বয় করার পথে সামনে এগুবে। উন্নয়ন ও নিরাপত্তাকে জাতীয় উন্নয়নের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ও পুরো প্রক্রিয়ায় সমন্বয় করবে, আধুনিকায়নের বিভিন্ন ঝুঁকি প্রতিরোধ ও সমাধানের চেষ্টা করবে, জাতীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও সামর্থ্য জোরদার করবে, এবং জাতীয় অর্থনৈতিক নিরাপত্তা, জননিরাপত্তা ও সামাজিক স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে।

ইশতেহারে আরও বলা হয়, চীন নিজের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির মান উন্নয়নকে জাতীয় উন্নয়নের কৌশল হিসেবে গ্রহণ করেছে। চীন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ক্ষেত্রে শক্তিশারী দেশ হিসেবে দাঁড়াতে চায়। প্রতিরক্ষা ও সশস্ত্রবাহিনীর আধুনিকায়ন দ্রুততর করা হবে, দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা হবে, এবং নিরাপত্তা ও উন্নয়নের কৌশলগত সামর্থ্য উন্নত করা হবে।

সম্মেলনে ২০৩৫ সালে চীনে সমাজতান্ত্রিক আধুনিকায়ন বাস্তবায়নের লক্ষ্যের কথা বলা হয়। এতে বলা হয়: দেশের অর্থনৈতিক শক্তি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শক্তি, এবং সার্বিক শক্তি উন্নত হবে; জিডিপি এবং শহর ও গ্রামের নাগরিকদের আয় নতুন পর্যায়ে উন্নীত করা হবে; নবত্যপ্রবর্তনের ওপর অধিক গুরুত্ব দেওয়া হবে; আধুনিক অর্থনীতি ব্যবস্থা বাস্তবায়িত হবে; কার্বন ছড়ানো পরিমাণ শীর্ষে পৌঁছার পর কমিয়ে আনা হবে; উন্মুক্তকরণ কার্যক্রম নতুন পর্যায়ে উন্নীত হবে; আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অগ্রসর অবস্থায় থাকার চেষ্টা করা হবে; মাথাপিছু গড় জিডিপি মাঝারি উন্নত দেশের মানে উন্নীত করা হবে।

সম্মেলনের প্রস্তাবগুলো উপসংহার করে ‘চতুর্দশ পাঁচসালা পরিকল্পনায়’ পরিণত হবে এবং তা চীনের জাতীয় গণকংগ্রেসে পর্যালোচনা করে চূড়ান্তভাবে গ্রহণ করা হবে। এ পরিকল্পনা পরবর্তী পাঁচ বছরে চীনের উন্নয়নের দিক্‌নির্দেশনা হিসেবে কাজে লাগবে।

এমকে

RTVPLUS