তাবলীগ মামলায় মোদী সরকারের সমালোচনা করলো ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

প্রকাশ | ০৯ অক্টোবর ২০২০, ২০:৪৯ | আপডেট: ১০ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি নিউজ
ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

ভারতে তাবলীগ জামাত মামলায় মোদী সরকারের কড়া সমালোচনা করেছে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। সরকারের দেয়া হলফনামায় অসন্তুষ্ট হয়ে সুপ্রিম কোর্ট দ্বিতীয় দফায় হলফনামা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে।

দিল্লিতে করোনাকালে সমাবেশ করেছিল তাবলীগজামাত। তারপর সেখান থেকে সারা ভারতে দ্রুত করোনা ছড়ায় বলে তাবলীগকে কাঠগড়ায় দাঁড় করায় ভারতের বেশ কিছু সংবাদমাধ্যম। সেই সব সংবাদমাধ্যমের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আদালতে মামলা করা হয়েছে। তার শুনানিতে প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদে জানিয়েছেন, বর্তমান সময়ে মত প্রকাশের অধিকারের সব চেয়ে বেশি অপব্যবহার করা হয়েছে।

তবে এই আবেদনের সূত্রে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রবল সমালোচনা করেছেন প্রধান বিচারপতি। সর্বোচ্চ আদালত আগেই কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে হলফনামা চেয়েছিল। সেই হলফনামা দিয়েছেন সরকারের জুনিয়ার অফিসাররা। তাতে তাবলীগ নিয়ে প্রকাশিত ও প্রচারিত যাবতীয় রিপোর্টের সমর্থন করে বলা হয়েছে, খারাপ রিপোর্টিংয়ের কোনো উদাহরণ তারা খুঁজে পাননি। 

এই হলফনামা পেয়ে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ ক্ষুব্ধ হয়। বিচারপতিদের প্রশ্ন, একজন জুনিয়ার অফিসার কী করে এর জবাব দেন? তাদের মতে, এই জবাব একেবারে নির্লজ্জ। সরকারকে জানাতে হবে, কোথায় খারাপ রিপোর্টিং হয়েছিল এবং তারা কী ব্যবস্থা নিয়েছেন?
বিচারপতিদের নির্দেশনা দেন এবার কোনো জুনিয়ার অফিসার নয়, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিবকে হলফনামা দিতে হবে। 

প্রধান বিচারপতি বলেছেন, আপনারা এভাবে সুপ্রিম কোর্টের সঙ্গে ব্যবহার করতে পারেন না। কিছু জুনিয়ার অফিসার হলফনামার জবাব দেবে এবং সেই জবাবে দায় এড়ানোর চেষ্টা ছাড়া আর কিছু থাকবে না, এটা হতে পারে না। 

সরকারের যুক্তি, আবেদনকারী কোনো উদাহরণ দিতে পারেননি। আপনারা আবেদনের সঙ্গে একমত নাও হতে পারেন। কিন্তু আপনারা কী করে বলতে পারেন, খারাপ রিপোর্টিংয়ের কোনো উদাহরণ দেয়া সম্ভব নয়?''

প্রধান বিচারপতি বলেছেন, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিবকে জানাতে হবে, আবেদনকারী যে সব ঘটনার কথা উল্লেখ করেছেন, সে ব্যাপারে তিনি কী মনে করেন। আগের জবাব পুরোপুরি দায় এড়ানোর চেষ্টা বলে আমরা মনে করি। প্রধান বিচারপতি বোবদে পরিষ্কারভাবে জানিয়েছেন, দ্বিতীয় হলফনামায় যেন অযৌক্তিক, অপ্রয়োজনীয় কথা না থাকে। 

দুই সপ্তাহ পরে মামলার আবার শুনানি হবে। 

সূত্র- ডিডব্লিউ

আরও পড়ুন: 
ট্রাম্পের সেনা সরানোর সিদ্ধান্তে খুশি তালেবান
যৌতুক নিষিদ্ধ করেছে পাকিস্তান
ভিক্ষায় পাওয়া লটারিতে লাখপতি

জিএ