মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করছে ৬৬ বছরের জরাজীর্ণ লঞ্চ

প্রকাশ | ৩০ মে ২০১৯, ১১:৪৭ | আপডেট: ৩০ মে ২০১৯, ১৩:৪২

নাজিব ফরায়েজী, আরটিভি

৬৬ বছরের পুরনো জরাজীর্ণ লঞ্চে নারায়ণগঞ্জ বন্দর থেকে যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। চরম ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ার পরও এমন লঞ্চকে চলাচলের অনুমতি দেয়া হয়েছে। এমন একটি নয়, বেশ কয়েকটি লঞ্চের একই অবস্থা। দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে থাকা এসব লঞ্চ যেকোনো সময় অসংখ্য মানুষের মৃত্যুর কারণ হতে পারে।

আরামদায়ক ও কম খরচ হওয়ায় যাত্রীদের বেশ পছন্দ নদীপথ।

তবে কিছু অসাধু লঞ্চমালিক এ পথকে অনিরাপদ করে রেখেছেন। তাদের এক একটি লঞ্চ যেন, এক একটি মৃত্যুফাঁদ।  

‘এমএল মুন্সিগঞ্জ’ তেমনই একটি। নারায়ণগঞ্জ থেকে মুন্সিগঞ্জ রুটে চলাচলকারী লঞ্চটি ১৯৫৩ সালে তৈরি। বয়সের ভারে অনেক আগেই চলাচলের যোগ্যতা হারিয়েছে। তবু এটি দিয়ে যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। মালিকের এমন অপকর্মের সাহায্যকারী, সার্ভেয়ারও ২০২০ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত এটিকে ফিট ঘোষণা করে সনদ দিয়েছেন। 

একই রুটের ‘হীরাশিকো’ নামে লঞ্চের অবস্থা আরও করুণ। জায়গায় জায়গায় ভাঙাচোরা। তলদেশের ফুটো দিয়ে পানি ওঠে। এসব ক্ষত মেরামতে বাধ্য করা দূরে থাক, উল্টো আগামী নভেম্বর পর্যন্ত ফিটনেস সনদ দিয়েছেন সার্ভেয়ার। এমন নাজুক অবস্থার কারণে ভ্রাম্যমাণ আদালতের সাজাও পেতে হয়েছে। তাতেও কাজ হয়নি।

‘দারাশিকো’ নামে লঞ্চটির অবস্থা আরও ভয়াবহ। সামান্য বৈরী আবহাওয়া মোকাবেলার ক্ষমতা নেই, অথচ উত্তাল পদ্মা পাড়ি দিয়ে নিয়মিত চাঁদপুরের মতলবে যাতায়াত করে। ফলে যেকোনো সময় ঘটতে পারে দুর্ঘটনা।

অথচ ফিটনেসহীন এসব লঞ্চের দায় নিতে রাজি নন বন্দর কর্মকর্তা।

নৌ-পরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক জানালেন সার্ভে অনিয়ম তদন্ত করার কথা।

এস/এসএস