মুখ খুললেন আহনাফ তাজওয়ার আইয়ুব

বাবার মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গে আমার কাছে এলআরবিরও মৃত্যু ঘটেছে, তবে...

প্রকাশ | ১৬ এপ্রিল ২০১৯, ১৯:৫৭ | আপডেট: ১৬ এপ্রিল ২০১৯, ২০:০১

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট

গেল বছর ১৮ অক্টোবর হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি দিয়েছেন জনপ্রিয় রক ব্যান্ড লাভ রান্‌স ব্লাইন্ড (এলআরবি)র প্রতিষ্ঠাতা কিংবদন্তি শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু। তার স্বপ্নকে চলমান রাখার লক্ষ্যে ব্যান্ডটির জন্মদিনে এলআরবির ভোকাল হিসেবে যুক্ত হন কণ্ঠশিল্পী বালাম। ইতোমধ্যে এলআরবি নামটি বদলে গেছে। ‘বালাম অ্যান্ড দ্য লিগ্যাসি’ রূপে আত্মপ্রকাশ করেছে জনপ্রিয় এই ব্যান্ড দলটি।

এই বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে আলোচনা-সমালোচনা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভক্তদের কেউ কেউ বলছেন কোনও এক ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে ব্যান্ড দলটি নিশ্চিহ্ন হতে যাচ্ছে। এমনকি শিল্পীর পরিবারকে কেউ কেউ দোষারোপ করছেন। ভক্তদের অনেকেই কষ্ট পেয়ে হুমকি দিচ্ছেন শিল্পীর পরিবারকে।

সার্বিক বিষয় উল্লেখ করে দুঃখ ও অভিমানভরা কথা লিখেছেন আইয়ুব বাচ্চুর ছেলে আহনাফ তাজওয়ার আইয়ুব। বর্তমানে কানাডায় আছেন তিনি। পড়াশোনা করছেন ইউনিভার্সিটি অব ব্রিটিশ কলাম্বিয়ায়। এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি লেখেন, ‘আমি দীর্ঘদিন নিশ্চুপ ছিলাম, তবে আর থাকতে চাই না। আমার বাবা আমার ব্যক্তিগত সম্পত্তি নন। আমার বোনেরও ব্যক্তিগত সম্পত্তি নন। তিনি বাংলাদেশের জাতীয় সম্পদ। তিনি ছিলেন, আছেন এবং থাকবেন। তার গানগুলোর মধ্যে দিয়ে তিনি মানুষের হৃদয়ে বেঁচে থাকবেন।’

বাবাকে স্মরণ আহনাফ তাজওয়ার আইয়ুব আরও লেখেন, বাবার হাতেই ব্যান্ডটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তার সমতুল্য কেউ হতে পারবে না। বাবার মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গে আমার কাছে এলআরবিরও মৃত্যু ঘটেছে। কিন্তু তার অর্থ এই না যে আমার জন্য বাবার গানগুলো শেষ হয়ে গেছে। যদি আপনারা ভাবেন, আমার উদ্দেশ্য বাবার জায়গা নেয়া, তাহলে ভুল হবে। তিনি যে মাপের মানুষ ছিলেন, আমি যদি তার ১০০ ভাগের এক ভাগও হতে পারলে গর্ব করতাম। কোনোদিন তার জায়গা নিতে পারব না।‘ 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই বিরূপ মন্তব্য করছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি অন্তত এক হাজার মন্তব্য পড়েছি, যেখানে বলা হয়েছে, আমার বাবা আমার ব্যক্তিগত সম্পত্তি নন, তিনি জাতীয় সম্পদ। অবশ্যই, তবে দিন শেষে তিনি আমার বাবা।’

সমালোচকদের শুভকামনা জানিয়ে তিনি লেখেন, যারা আমার মা, বোন আর আমাকে অভিশাপ দিয়ে আনন্দ পাচ্ছেন, আরও অভিশাপ দিন আমাদের কিছু হবে না। এই সত্যিকারের ব্যথা যিনি বোঝেন তিনি আজ আমাদের পাশে নেই।’

আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুর পর সম্প্রতি তার ফেসবুক আইডিটি হ্যাক হয়েছে। এই আইডি দ্বারা বাবা তার সন্তানদের জন্য বিভিন্ন বার্তা সেন্ড করতেন। যে বার্তা শুনে ঘুমোতে যেত সন্তানরা। তবে এখন সে বার্তা সন্তানদের কানে পৌঁছায় না। বিষয়টি উল্লেখ করে হ্যাকারদের উদ্দেশে আহনাফ তাজওয়ার আইয়ুব জিজ্ঞেস করেন, ‘ধরুন, আপনি প্রতিদিন ঘুমাতে যাবার আগে একটি মাধ্যম ব্যবহার করে আপনার বাবার কণ্ঠ শোনেন, কেউ যদি আপনার সেই পথটি বন্ধ করে দেয় তাহলে আপনার কেমন লাগবে?

 

জিএ/এসএস