Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

কঙ্গনার বিরুদ্ধে মামলা : মদের গ্লাস হাতে জানালেন প্রতিক্রিয়া

কঙ্গনার বিরুদ্ধে মামলা : মদের গ্লাস হাতে জানালেন প্রতিক্রিয়া

কঙ্গনা রানাওয়াত ও বিতর্ক এখন তার সকল কর্মে। মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) ফের কাঠগড়ায় বলিউডের ‘কন্ট্রোভার্সি কুইন’। কৃষক আন্দোলনকে ‘খালিস্তানি’ বিক্ষোভের সঙ্গে তুলনা করায় মুম্বাইয়ে তার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ (এফআইআর) দায়ের হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় তা নিয়ে নিজের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন এই অভিনেত্রী।

এফআইআর নিয়ে ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছেন কঙ্গনা। স্বল্পদৈর্ঘ্যের কালো পোশাক, হাতে মদের গ্লাস নিয়ে নিজের একটি ছবি পোস্ট করেছেন তিনি। লিখেছেন- ‘আর একটা দিন... আর একটা এফআইআর... যদি তারা আমাকে গ্রেপ্তার করতে আসে... ঘরোয়া মেজাজেই আছি।’

অনেকেই মনে করেছেন, ওই পোস্ট যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ। অভিনেত্রী সম্ভবত বোঝাতে চেয়েছেন, পুলিশের খাতায় অভিযোগকে তিনি গুরুত্বই দিচ্ছেন না। ওই ছবিটি পোস্ট করে তিনি ওই অভিযোগকে যেন উপহাসই করছেন।

সম্প্রতি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বিতর্কিত তিন কৃষি আইন প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। সেই ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই দেশজুড়ে সাড়া পড়ে যায়। তবে মোদির এ সিদ্ধান্তকে মানতে পারেননি বলিউডের ‘কন্ট্রোভার্সি কুইন’।

অভিনেত্রী সামাজিকমাধ্যমে বলেন, ‘খুবই দুঃখজনক ও সম্পূর্ণ অন্যায়। সংসদে নির্বাচিত সরকারের পরিবর্তে যদি রাস্তায় থাকা মানুষ আইন বানাতে শুরু করে তাহলে মানতেই হবে এটা একটা জিহাদি দেশ।’ এরপরই কটাক্ষ করে তিনি লেখেন, ‘তাদের সবাইকে অভিনন্দন যারা এটা চেয়েছিলেন।’

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে কৃষকদের এই প্রতিবাদকে ‘খালিস্তানি আন্দোলন’র সঙ্গে তুলনা করেন তিনি। আর সেই কারণেই মুম্বাইয়ে শিখ সম্প্রদায়ের অমরজিৎ সান্ধু নামের এক ব্যক্তি কঙ্গনার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। তার অভিযোগ, শিখদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করেছেন কঙ্গনা।

সম্প্রতি ইনস্টাগ্রামে একটি পোস্ট করেন কঙ্গনা। সেখানে নাম উল্লেখ করে দেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীকে নিয়ে লেখেন, ‘তিনি খালিস্তানি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের গুঁড়িয়ে দিয়েছিলেন।’

এরপরই যোগ করেন, ‘খালিস্তানি জঙ্গিরা আজ ফের মাথাচাড়া দিতে শুরু করেছে। কিন্তু একজন নারীকে ভুলে গেলে চলবে না। যিনি দেশের একমাত্র নারী প্রধানমন্ত্রী…। তার জন্য এই দেশকে কত অস্বস্তিতে পড়তে হয়েছে, সেটা বড় কথা না কিন্তু নিজের জীবনের বিনিময়ে তিনি তাদের মশার মতো মেরেছিলেন।’

কঙ্গনা আরও লেখেন, ‘এক যুগ পরেও তার নামে কাঁপে ওরা (খালিস্তানিরা)…সেই ভয় কাটাতে ওদের একজন গুরুর প্রয়োজন।’

অমরজিতের দাবি, এভাবে শিখদের অপমান করা হয়েছে। পুলিশ যেন তার বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেয়।

সূত্র : আনন্দবাজার

এনএস/এসকে

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS