Mir cement
logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৩ আশ্বিন ১৪২৮

পিয়াসা-মৌদের উত্থানের পেছনে কোন রাতের রাজারা বেনিফিশিয়ারি?

পিয়াসা-মৌদের উত্থানের পেছনে কোন রাতের রাজারা বেনিফিশিয়ারি?

আলোচিত মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা ও মরিয়ম আক্তার মৌকে গ্রেপ্তারের পর তাদেরকে আইন শৃঙ্খলবাহিনীর পক্ষ থেকে ‘রাতের রানী’ বলে অভিহিত করা হয়। এই দুই মডেল নিয়মিত বিভিন্ন ক্লাব, নিজেদের বাসায় বিত্তশালীদের নিয়ে মাদকের পার্টি ও অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে গোপন ক্যামেরায় ছবি ও ভিডিও ধারণ করে ব্ল্যাক মেইল করতেন বলে দাবি করা হয়।

আজ শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) এফডিসিতে ‘বিনোদন জগতে মাদকের অপব্যবহার বাড়ার কারণ’ নিয়ে আয়োজিত ছায়া সংসদে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সমাজচিন্তক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী। এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ।

সভাপতির বক্তব্যে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, 'আটক বা গ্রেপ্তারের পর কাউকে অভিযুক্ত করে রাতের রানী বা বিভিন্ন আপত্তিকর উপাধি দেওয়া মোটেই সঠিক নয়। বিচারের আগেই রায়ের মতো স্টেটমেন্ট দিয়ে মিডিয়া ট্রায়াল করে কারও সম্মানহানি করা উচিত নয়। পিয়াসার বা মৌদের উত্থানের পেছনে কোন রাতের রাজারা বেনিফিশিয়ারি? সেই প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করে আইনের মুখোমুখি করা হলে প্রশাসনের প্রতি জনগণের আস্থা বাড়বে।'

তিনি আরও বলেন, 'বাংলাদেশ সংবিধানের ৩৫ (৫) অনুচ্ছেদে সুস্পষ্টভাবে বলা আছে- কারো প্রতি নিষ্ঠুর, অমানবিক বা লাঞ্ছনাকর দণ্ড বা এরূপ কোনো আচরণ করা যাবে না।'

প্রসঙ্গত, পিয়াসা ও মৌ মডেল হিসেবে পরিচিত হলেও মিডিয়ায় তাদের তেমন কোনও কাজই আলোচনায় আসেনি। মডেল বা অভিনেত্রী হিসেবে এ অঙ্গনে সফলতা পাননি। তবে বিলাসী জীবনযাপন করতেন তারা। নিজেদের পরিচয় দিতেন মডেল হিসেবে। আর এই মডেল পরিচয়ের অন্তরালে মদ, ইয়াবাসহ নানান নেশাদ্রব্যের পসরা সাজিয়ে পার্টি করতেন তারা। আর এসব পার্টিতে আমন্ত্রণ জানাতেন সমাজের প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তি ও ধনী পরিবারের সন্তানদের। ফ্ল্যাটে ডেকে নিয়ে তাদের সঙ্গে অন্তরঙ্গ হতেন। সেসব দৃশ্য কৌশলে ধারণ করা হতো গোপন ক্যামেরায়। আর ওইসব ছবি, ভিডিওকে পুঁজি করে দিনের পর দিন ব্ল্যাকমেইল করতেন তাদের। পিয়াসা ও মৌ এভাবে বছরের পর বছর ধরে বহু মানুষকে পথে বসিয়েছেন বলে পুলিশের একাধিক সূত্র থেকে বলা হয়েছে।

পিয়াসা ও মৌয়ের বিরুদ্ধে ব্ল্যাকমেইল করার অনেকগুলো অভিযোগ থাকায় গেলো ১ আগস্ট রাত ১০টার দিকে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ পিয়াসার বারিধারার বাসায় অভিযান চালায়। এ সময় তাকে আটক করা হয়। একই রাতে (১ আগস্ট) আরেক মডেল মরিয়ম আক্তার মৌয়ের (মৌ আক্তার) মোহাম্মদপুরের বাবর রোডের বাসা থেকে অন্তত ১ ডজন বিদেশি মদ ও ৫ প্যাকেট ইয়াবাসহ তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এনএস

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS