Mir cement
logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ১০ বৈশাখ ১৪২৮

কু-প্রস্তাব পেয়েছি, সময় হলে নাম বলব: সূচনা আজাদ

I have received a bad proposal, I will name it when the time comes, rtv
কু-প্রস্তাব পেয়েছি, সময় হলে নাম বলব সূচনা আজাদ

সূচনা আজাদ। র‌্যাম্প মডেল হিসেবে শোবিজে পথচলা শুরু তার। এরপর ফটোশুট, বিজ্ঞাপন, মিউজিক ভিডিও ও নাটকে কাজ করেছেন। এরই ধারাবাহিকতায় বড় পর্দাতেও নাম লেখান তিনি। আশিকুর রহমান পরিচালিত ‘অপারেশন অগ্নিপথ’র মাধ্যমে প্রথম সিনেমা ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান সূচনা। তবে তার অভিনীত মুক্তিপ্রাপ্ত প্রথম সিনেমা ‘আব্বাস’। এই অভিনেত্রীর অঞ্জন আইচ পরিচালিত ‘আগামীকাল’ ও ‘কানামাছি’ সিনেমা দুটি মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। আরও দুটি সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ রয়েছেন এই গ্লামার গার্ল। ক্যারিয়ার ও ব্যক্তিজীবন নিয়ে আরটিভি অনলাইনের মুখোমুখি হয়েছেন সূচনা আজাদ।

করোনাকালে কেমন আছেন?

আলহামদুলিল্লাহ, ভালোই আছি। তবে করোনার জন্য অনেক ক্ষতি হয়েছে। ২০২০ সাল নিয়ে পরিকল্পনা ছিল তুঙ্গে। কলকাতায় কাজের কথা ছিল আমার। এছাড়াও কিছু কাজ ছিল যা করোনার জন্য সম্ভব হয়নি। জীবন থেকে একটি বছর বাদ দিতে হয়েছে। করোনার ক্ষতিটা আসলে ভয়াবহ, এটা কখনো পূরণ করা সম্ভব না।

সিনেমা কাজের সুযোগ আসে কীভাবে?

২০১৩ সালের শুরু। প্রথম র‌্যাম্প মডেল হয়ে কাজ করতে থাকি। মাঝে কিছুটা গ্যাপ ছিল আমার। আবার নিয়মিত হই। এরপর ফটোশুট, টিভিসি ও নাটক কাজ করতে থাকি। নিয়মিত কাজ করার সময় দু’একটা সিনেমার প্রস্তাব আসতে থাকে। সেখান থেকেই বড় পর্দায় অভিষেক হয়।

র‌্যাম্প মডেল থেকে বড় পর্দায়, অভিজ্ঞতা কেমন?

শুরুর দিকে পথচলা কঠিন ছিল। আমি কাজ করতে চাই এজন্য অনেক ঘুরতে হয়েছে। তবে এখন ভালো লাগে। সিনেমার প্রস্তাব আসে, কাজ করছি। এখন আমাকে বলতে হয় না আমি কাজ করতে চাই, আমি আগ্রহী। আর যদি চ্যালেঞ্জের কথা বলি তাহলে বলব সব কাজেই চ্যালেঞ্জ রয়েছে। আমার কথা বললে অবশ্যই বড় পর্দায় চ্যালেঞ্জ বেশি। এখানে ইউনিট, সেট, ক্যামেরা থেকে শুরু করে আর্টিস্ট পর্যন্ত সবই বড় বড়। এখানে নিজেকে তুলে ধরার ব্যাপারও থাকে। সম্পূর্ণ ভিন্ন অভিজ্ঞতা।

সিনেমায় কাজের ক্ষেত্রে কোন দিকে বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকেন?

প্রথম বিষয় হলো সিনেমার চরিত্র নির্বাচন। আমি সব সময় কাহিনী ও নিজের চরিত্রকে বেশি গুরুত্ব দেই। কাজের পরিবেশও গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আমি যেকোনো পরিবেশে কাজ করতে আগ্রহী না। তাই কাজের পরিবেশের দিকেও সতর্ক ও সচেতন থাকি।

আপনার নায়কদের সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা নিয়ে জানতে চাই?

নিরব ভাই খুবই ভালো একজন মানুষ। ‘আব্বাস’ সিনেমায় তার সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতার কথা বলে শেষ করা যাবে না। ইমন ভাইও ভালো মানুষ। তারা দু’জনেই বেশ সহায়ক। তাদের সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে নতুন অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি, নতুন কিছু শিখেছি। তাছাড়া এ পর্যন্ত যতগুলো কো-আর্টিস্ট পেয়েছি সবাইকে ভালোই মনে হয়েছে।

বর্তমানে ব্যস্ততা কী নিয়ে?

সামনে আমার দু’টি সিনেমার শুটিং শুরু হবে। নতুন সিনেমার জন্য নিজেকে প্রস্তুত করছি। এছাড়া আমার অভিনীত দু’টি সিনেমা মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। অঞ্জন আইচ পরিচালিত ‘আগামীকাল’ একদম প্রস্তুত শিগগিরই রিলিজ হবে। আর ‘কানামাছি’ সিনেমার কাজ প্রায় শেষ। এটা চলতি বছর ঈদকে কেন্দ্র করে মুক্তি দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে।

‘আগামীকাল’ সিনেমাটি দর্শক কেন দেখবে?

সিনেমার গল্প, নির্মাণ, গান সবকিছু দুর্দান্ত। দর্শক যদি মাত্র পাঁচ মিনিট সিনেমাটি দেখেন তাহলে গল্পের রহস্য খোঁজার জন্যই শেষ পর্যন্ত থাকবেন। অ্যাকশন, থ্রিলার সবই আছে এই সিনেমায়। সার্বিক দিক থেকে দর্শকদের চাহিদা মতো একটি সিনেমা। আশা করব দর্শকরা সবাই হলে গিয়ে দেখবেন সিনেমাটি।

চলচ্চিত্রে কাজ করতে গিয়ে কখনো বাজে প্রস্তাবের সম্মুখীন হয়েছেন কী?

এমনটা আমার সঙ্গেও হয়েছে, আমাকেও কু-প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল। আমি এখনই তাদের নাম বলব না, সময় হলে বলব। সিনেমায় কাজের বিষয়ে চূড়ান্ত কিছু হওয়ার আগে তাদের ইঙ্গিত-পূর্ণ কথা-বার্তা ছিল। পরে আমি স্পষ্টভাবে তাদের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেই। এরপর তাদের সঙ্গে কাজ তো দূরের কথা সম্পর্কই রাখিনি।

প্রেম-বিয়ে নিয়ে পরিকল্পনা কী?

বিয়ে আল্লাহ’র হাতে। আল্লাহ যখন চাইবে, যার সঙ্গে চাইবে তখন তার সঙ্গেই হবে। আর প্রেম ছাড়া তো জীবন চলে না! আমি যদিও প্রেম করি না, তবে প্রেম অবশ্যই ছিল। সেটা যে মানুষের প্রতিই তা নয়, প্রকৃতির প্রতিও হতে পারে। প্রেমের প্রস্তাব আগেও পেয়েছি এখনো পাই। প্রেমের বিয়েতে ভালোবাসার মানুষের সঙ্গেই যে সংসার করা যাবে তা কিন্তু নয়। দেখা যায় নিজে চাইলেও আল্লাহ না চাইলে ভালোবাসার মানুষকে বিয়ে করা যায় না। আসলে জন্ম-মৃত্যু-বিয়েতে কারো হাত নেই। তাই এসব নিয়ে ভাবি না।

পড়াশোনা ও মিডিয়া একসঙ্গে কীভাবে সামলেছেন?

ছোটবেলা থেকেই নাচ ও অভিনয়ে পারদর্শী ছিলাম। নাট্য থিয়েটারে কাজ করেছি, উপস্থাপনাও করেছি। এইচএসসি শেষ করার পর চিন্তা ভাবনা ছিল যা কিছুই করিনা কেন অন্তত পড়াশোনায় পিছিয়ে থাকব না আমি। পরে স্নাতক শেষ করেছি। ভার্সিটিতে পড়ার পাশাপাশি র‌্যাম্প মডেল, ফটোশুট, টিভিসিতে কাজ করেছি। জীবনে কী করছি না করছি তার বাইরে আমার লক্ষ্য ছিল পড়াশোনা করা। আর আমি সেটাই করেছি। পরিবার, ইউনিভার্সিটিতে এসে যখন র‌্যাম্প মডেল হয়ে কাজ করি পরিবারের কেউ দুই বছর কথাই বলেনি। পরে যখন দেখল আমি সংগ্রাম করছি, ভালো কিছু করছি তখন সব ঠিক হয়েছে আবার।

এসআর/এম

RTV Drama
RTVPLUS