logo
  • ঢাকা বুধবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১১ ফাল্গুন ১৪২৭

চাচা-ভাতিজার মারামারি!

মারামারির দৃশ্যে ডিপজল-জয়।

তাকে বলা হয় মুভি লর্ড। তিনিই বাংলা চলচ্চিত্রের ডেঞ্জারম্যান। তিনি প্রযোজক, তিনি খলনায়ক, আবার তিনিই নায়ক। আর এই তিনিটা হলেন মনোয়ার হোসেন ডিপজল।

ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির মানুষের সঙ্গে তার নিবিড় সম্পর্ক। তরুণ প্রজন্মের আলোচিত নায়ক জয় চৌধুরীর সঙ্গে ডিপজলের সম্পর্কটা চাচা-ভাতিজার। ডিপজলের হাত ধরেই সিনেমায় পথচলা শুরু জয়ের। প্রথম থেকেই ডিপজলকে চাচ্চু বলেই ডাকেন জয়। অন্যদিকে ডিপজলও স্নেহের বাঁধনে বেঁধে রেখেছেন অন্তর জ্বালা ছবির এই অভিনেতাকে।

কিন্তু অর্থবিত্ত, প্রভাব প্রতিপত্তির লড়াইয়ের সঙ্গে সঙ্গে একই নারীর প্রেমে পড়েছেন দুজনই। এসব নিয়ে তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব। সেখান থেকেই মুখোমুখি সংঘর্ষ, মারামারি। তবে বাস্তবে নয়। তাদের দুজনকে এই লড়াইয়ে দেখা যাবে 'মানুষ কেন মানুষ' ছবিতে। এই চাচা-ভাতিজা এবার শত্রু শত্রু খেলায় মেতে উঠেছেন।

গতকাল (২৩ জানুয়ারি) সাভারে এই ছবির অ্যাকশন দৃশ্যের শুটিং হয়। সেখানে মুখোমুখি হন চাচা-ভাতিজা অর্থাৎ ডিপজল-জয়। মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত ছবির ফাইট ডিরেক্টর হিসেবে রয়েছেন মিঠু।

গতকাল শুটিং-এর ফাঁকেই কথা হয় ছবির নায়ক জয়ের সঙ্গে। তিনি আরটিভি নিউজকে বলেন, গল্পে আমার চরিত্রটি একজন ব্যবসায়ী। আর চাচ্চুর (ডিপজল) একজন গুণ্ডার। দুজনে একই এলাকার হওয়াতে শত্রুতা প্রভাব বিস্তার নিয়ে। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে সব সময় দ্বন্দ্ব লেগেই থাকে। এই ঘটনাগুলোকে কেন্দ্র করেই দুজনের মধ্যে এই লড়াই। শুধু তাই না। দুজনেই ভালোবাসি একটি মেয়েকে। সব মিলিয়ে টানটান উত্তেজনার একটি ছবি হতে যাচ্ছে 'মানুষ কেন অমানুষ'। ছবিটি দর্শকের ভালো লাগবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

জয় আরও বলেন, আমার ও ডিপজল চাচ্চুর রক্তের সম্পর্ক নেই ঠিকই। তবে তার সহযোগিতায় আজকে আমি জয়। একজন চলচ্চিত্র অভিনেতা হিসেবে কাজ করতে পারছি। আমার মাথার ওপরে সব সময় ছায়া হয়ে রয়েছেন এই মানুষটি। তার মতো একজন মানুষের স্নেহধন্য হতে পেরে আমি নিজেকে ভাগ্যবান বলে মনে করি। তিনি আমাকে সন্তানের মতোই স্নেহ করেন। তিনি আমার বাবার মতন।

জয় জানালেন, গত ১৫ জানুয়ারি সাভারে ছবিটির শুটিং শুরু হয়েছে। আগামী ৩০ জানুয়ারির মধ্যেই শুটিং শেষ হওয়ার কথা। আমরা টানা শুটিং করছি। কোনো বিরতি নেইনি। ছবিতে ডিপজল-জয়ের বিপরীতে রয়েছেন এ প্রজন্মের সম্ভাবনাময়ী চিত্রনায়িকা মৌ খান।

ছবিটি প্রযোজনা করছে ডিপজলের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান অমি বনি কথাচিত্র।

এম

RTV Drama
RTVPLUS