logo
  • ঢাকা সোমবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২১, ৪ মাঘ ১৪২৭

আরটিভি নিউজ ডেস্ক

  ২৬ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭:১২
আপডেট : ২৬ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭:৩১

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে জনপ্রিয় আরটিভি 

RTV is popular, in remote areas of the country, rtv news
ছবি আরটিভি নিউজ
১৫ বছর অতিক্রম করে আজ শনিবার ১৬তম বর্ষে পদার্পণ করেছে দেশের জনপ্রিয় সাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল আরটিভি। ‘আজ এবং আগামী’র স্লোগান নিয়ে ২০০৫ সালের ২৬ ডিসেম্বর দেশের পঞ্চম বেসরকারি টেলিভিশন হিসেবে যাত্রা শুরু করে গণমানুষের চ্যানেলটি। দীর্ঘ পথপরিক্রমায় আরটিভি দর্শক-শ্রোতাদের ভালোলাগাকে প্রাধান্য দিয়ে তার সংবাদ ও অনুষ্ঠানকে সাজিয়েছে। বিপরীতে পেয়েছে দর্শকদের ভালোবাসা।

দর্শকের চাহিদা পূরণের লক্ষ্য নিয়ে কেবল সামনে এগিয়ে গেছে চ্যানেলটি। নতুন নতুন অনুষ্ঠান, নাটক, টকশো, রিয়েলিটি শো, অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠান আর ভিন্নধারায় সংবাদ দিয়ে কয়েক বছরে দর্শকপ্রিয়তার শীর্ষে উঠে আসে আরটিভি। সেইসঙ্গে আরটিভি পৌঁছে যায় বিভাগীয় শহর থেকে একেবারে প্রত্যন্ত অঞ্চলে। গ্রাম-বাংলার সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের কাছেও আজ আরটিভি জনপ্রিয়তার শীর্ষে। 

আরটিভির নিয়মিত দর্শক ময়মনসিংহের সম্পা বসাক বলেন, ‘মানসম্মত অনুষ্ঠান এবং বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রচারের জন্য আরটিভি আমার প্রথম পছন্দ। মানুষের দুর্ভোগ এবং সমস্যার কথা তুলে ধরার পাশাপাশি চলমান ও সমসাময়িক ঘটনাপ্রবাহ গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার করে। এজন্য আরটিভির খবর জনপ্রিয়তার শীর্ষে। এছাড়া আরটিভির অন্যান্য অনুষ্ঠান, নাটক ও গোলটেবিল বৈঠক নিয়মিত দেখি।

তিনি আরও বলেন, ‘বিশেষ করে গোলটেবিল বৈঠক এবং প্যাকেজ নাটকের বিশেষত্ব ও বৈচিত্র্য আমাকে সবচেয়ে বেশি আকৃষ্ট করে। এছাড়া কৃষি ও অর্থনীতি বিষয়ক অনুষ্ঠানগুলোও যথেষ্ট পছন্দনীয়। আমার দৃঢ় বিশ্বাস আরটিভি অনুষ্ঠান এবং খবরের মান ধরে রাখলে আরও অনেক দূর এগিয়ে যাবে।

এদিকে লাক্স-ব্রাইডাল শো, ভিট-লুকএটমি এবং রান্নাবান্না অনুষ্ঠান বেশ পছন্দের ফ্যাশন সচেতন মনি সাহার। এ ধরনের অনুষ্ঠান নিত্যনতুন দেশি-বিদেশি ফ্যাশন ও নান্দনিকতা সম্পর্কে সব আপডেট তুলে ধরে। এমনকি অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা ও খবর পাঠের ক্ষেত্রেও এই বিশেষত্ব লক্ষ্য করা যায়। এজন্য একজন ফ্যাশন সচেতন ব্যক্তি হিসেবে তিনি আরটিভির অনুষ্ঠানগুলো কখনো মিস করেন না বলে জানান।

সোহেল নামে সিলেটের এক দোকানের সেলস কর্মী জানান, আমাদের দোকানে প্রায়  সময়েই আরটিভি চালানো থাকে। কেননা আরটিভির নাটকগুলো খুব মজার হয়। পাশাপাশি গোলটেবিল বৈঠক ও টকশোগুলো দেখতেও ভালো লাগে। এছাড়া বস্তুনিষ্ট সংবাদ এবং জেলা প্রতিনিধিদের লাইভগুলো ভালো লাগে সোহেল নামে আরটিভির ওই দর্শকের।

টাঙ্গাইলের প্রত্যন্ত অঞ্চলেও ছড়িয়ে পড়েছে আরটিভির জনপ্রিয়তা। বাসা-বাড়ি থেকে শুরু করে বিভিন্ন চায়ের দোকানেও মানুষ দেখছে আরটিভি। যতদিন যাচ্ছে ততো জনপ্রিয় হচ্ছে আরটিভি। আরটিভি ১৬ বছর যাবত বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ, নাটক, টকশো প্রচার করে ওই এলাকার মানুষের প্রশংসা কুড়িয়েছে। 

আজ শনিবার সকালে টাঙ্গাইলের বিখ্যাত তাঁতশাড়ীর বাজারের একটি চায়ের দোকানে ঘুরে দেখা গেছে সেখানে বসে চায়ের কাপে চুমুক দিচ্ছে যারা, তাদের দৃষ্টি আরটিভির পর্দায়।

তাদের সঙ্গে বসে চা খেতে খেতে কথা হয় বেল্লাল হোসেন নামে একজনের সঙ্গে। তিনি জানালেন, আরটিভির নাটকগুলো তার খুব পছন্দ। প্রিয় মানুষগুলোকে নিয়ে একত্রে নাটকগুলো দেখতে তার খুব ভালো লাগে।

এ সময় আরেক দর্শক শাহীন আলমগীর বলেন, আমার কাছে বেশি ভালো লাগে আরটিভির খবরগুলো। টাঙ্গাইলের সব খবর সবার আগে জানতে পারি আরটিভির মাধ্যমে।

বাবু নামে একজন বলেন, আমি আরটিভির প্রচারিত বাংলা সিনেমা দেখি।তাদের  প্রচারিত সিনেমাগুলো ভালো লাগে। দিপু নামের এক দর্শক বলেন, সময় উপযোগী বাংলার গায়েন অনুষ্ঠানটি আমি এক পর্বও মিস করি না।এভাবেই নিয়মিত জনগণের চাহিদা পূরণে এগিয়ে যাক আরটিভি, এমনটাই প্রত্যাশা সকলের।

নওগাঁ সদর উপজেলার খাগড়া মোড়ে প্রদীপের চায়ের দোকানে আজ দুপরে জমেছে আড্ডা। সেখানে পৌঁছে লক্ষ্য করা যায় চা খেতে আসা সকলে আরটিভিতে প্রচারিত অনুষ্ঠান দেখছেন। আরটিভির অনুষ্ঠানমালা নিয়ে তাদের প্রশ্ন করলে তারা জানান- সংবাদ, নাটক, টকশো, সিনেমাসহ সকল অনুষ্ঠান তাদের খুব পছন্দের। বিশেষ করে ঈদ মৌসুমে নাটক জমজ সিরিজের নাটক তাদের কাছে খুবই জনপ্রিয়। আরটিভির ১৬তম জন্মদিনে প্রতিষ্ঠানটির সকলকে অভিনন্দন এবং শুভেচ্ছা জানান দর্শকরা।

এদিকে চা দোকানি প্রদীপ জানান, সারাদিন দোকানে কাজের ফাঁকে বিনোদন পাওয়ার সুযোগ করে দেয় আরটিভির অনুষ্ঠানগুলো। বিনোদনের সঙ্গে কাজ করতে পেরে তাদের সময়ও পার হয়; অপরদিকে কাজের প্রতি মনযোগটাও বাড়ে। আরটিভির বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ ও বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান দোকানে আসা কাস্টমারদের কাছে খুবই জনপ্রিয়।

পাবনায় দিন দিন বেসরকারি টিভি চ্যানেল আরটিভির গ্রহণযোগ্যতা ও দর্শকপ্রিয়তা বৃদ্ধি পেয়েছে। সারা দেশের মতো পাবনায় অন্যান্য দর্শকদের সঙ্গে সঙ্গে ব্যবসায়ীদের মধ্যেও আরটিভির ব্যাপক সাড়া মিলেছে।

আজ শনিবার সকালে পাবনা শহরের বড় বাজার, নিমতলা বাজার, লাইব্রেরি বাজার, নিউমার্কেট, সেঞ্চুরি প্লাজা ও গোস্বামী কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায় বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানেই আরটিভি চ্যানেল দেখছেন।

শহরের লাইব্রেরি বাজারের পুস্তক ব্যবসায়ী দিশারী বই বিতানের মালিক আব্দুল মজিদ বিশ্বাস জানান, তিনি আরটিভি চ্যানেলটি পছন্দ করেন। আরটিভির বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ, নাটক, টক শো, পত্রিকার সংবাদ বিশ্লেষণ তার খুব ভালো লাগে।

গোস্বামী কমপ্লেক্সের ইলেকট্রনিক্স ব্যবসায়ী রামগোপাল সরকার জানান, তিনি একজন আরটিভির ভক্ত। বর্তমান সময়ে জেলা পর্যায়ের শিল্পীদের নিয়ে আরটিভিতে অনুষ্ঠিত বাংলার গায়েন তার খুব ভালো লেগেছে। তিনি আরটিভি পরিবারের উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি ও মঙ্গল কামনা করেন।  

উত্তরের জনপদ কুড়িগ্রামের গ্রাম-গঞ্জে সমান জনপ্রিয় আরটিভি। ছোট-বড়, নারী-পুরুষ সবার কাছে আরটিভির সমান কদর। কেউ পছন্দ করে শিশুতোষ অনুষ্ঠান ও কার্টুন, কেউ নাটক আবার কেউবা টেলিফিল্ম। এছাড়া আরটিভির সংবাদের গুরুত্ব সবার আগে।

গৃহিণী ইসমত আরা পারভীন জানান, আরটিভির নাটক, টক-শো, সংবাদ সবকিছুই অন্যরকম ভালোলাগা সৃষ্টি করে। তাই তিনি নিয়মিত আরটিভি দেখেন। বাড়ির দুইজন ছোট সদস্য রয়েছে তারা আরটিভির বনিবিয়ার্সের ভক্ত। জন্মদিনে আরটিভির সকলকে অভিনন্দন জানান তিনি।

আরটিভির নাটক দেখার জন্য সপরিবারে প্রতিদিন এভাবেই অপেক্ষা করেন বকুল রাণী দেবনাথ। লক্ষ্মীপুরের টিভি দর্শকদের মধ্যে বড় একটি অংশ আরটিভি নাটকের ভক্ত। কলেজছাত্র রাজু আহমেদ জানান, টিভি তেমন একটা দেখা হয় না। তবে আরটিভি প্লাস অ্যাপসের মাধ্যমে স্মার্ট ফোনেই আরটিভির সকল কন্টেন্ট দেখতে পাই।

এছাড়া  সংবাদ, টক শো,  বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান ও নাটক প্রচারের মাধ্যমে লক্ষ্মীপুরে জনপ্রিয়তার শীর্ষে অবস্থান করছে বেসরকারি টিভি চ্যানেল আরটিভি।নিয়মিত সংগীতবিষয়ক অনুষ্ঠান ‘ফোক স্টেশন’ এবং কৃষিবিষয়ক অনুষ্ঠান ‘কৃষি ও কৃষ্টি’ লক্ষ্মীপুরের দর্শকদের কাছে দারুণভাবে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে।

নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার রামপুর বাজার। আজ শনিবার দুপরে চায়ের স্টলে বসে অনেকেই আরটিভি দেখছেন। তাদেরই একজন আবুল মিয়া। তিনি বলেন, আরটিভির অনুষ্ঠান আমাদের কাছে খুবই ভালো লাগে। আরেক দর্শক কামরুল হাসান বলেন, বেসরকারি চ্যানেলগুলোর মধ্যে আরটিভি গ্রাম-বাংলার মানুষের মনের কথা বলে। তাছাড়াও আরটিভির মিউজিক, নাটক, সিনেমা, বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান ভালো লাগে।

রতন মিয়া বলেন, আরটিভির সংবাদ আমার কাছে বস্তুনিষ্ঠ মনে হয়। প্রত্যন্ত অঞ্চলের সব খবরেই আমরা দেখতে পারি জেলা সংবাদে। তবে সংবাদের সময়সীমা আর একটু বাড়ানোর জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করি।

জেবি/পি

RTV Drama
RTVPLUS