Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ২০ জুন ২০২১, ৬ আষাঢ় ১৪২৮

চাঙ্গা পুঁজিবাজার, সাড়ে ১০ বছর পর সর্বোচ্চ লেনদেন

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)

করোনাভাইরাস মহামারিতে দেশের অর্থনীতির বিভিন্ন খাতে মন্দাভাব পরলেও পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি। বরংচো করোনার মধ্যেও পুঁজিবাজারে চাঙ্গা অবস্থা বিরাজ করছে। যা গত সাড়ে ১০ বছরের তুলনায় রোববার (০৬ জুন) পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) একদিনে সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে।

রোববার (০৬ জুন) ডিএসইতে ২ হাজার ৬৬৯ কোটি ৩৮ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট কেনাবেচা হয়েছে। এর আগে ২০১০ সালের ৬ ডিসেম্বর ডিএসইতে ২ হাজার ৭১০ কোটি টাকার শেয়ার ও ইউনিট কেনাবেচা হয়।

গত বৃহস্পতিবার বাজেট ঘোষণার পর রোববার ডিএসইতে গত সাড়ে দশ বছরের মধ্যে একদিনে ডিএসইতে সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে।

আরও পড়ুন : আজিমপুরে ঢাবি ছাত্রী তুষ্টির মৃ’ত্যুর কারণ জানালেন সহপাঠীরা

পুঁজিবাজারে আর্থিক লেনদেন বাড়লেও কমেছে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ইনডেক্স। দিনশেষে ডিএসইতে ৩৬৬টি কোম্পানির ৭৯ কোটি ৪৬ লাখ ১ হাজার ৮২৪ টি শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিটের লেনদেন হয়েছে। লেনদেন হওয়া এসব কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে মাত্র ১৪৫টির, কমেছে ২০১ টির এবং ২০টির শেয়ারের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। দিনশেষে ডিএসইতে আর্থিক লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ২ হাজার ৬৬৯ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। আগের দিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২ হাজার ১৮২ কোটি টাকা। এদিন ডিএসই ব্রড ইনডেক্স আগের কার্যদিবসের চেয়ে ১৫ পয়েন্ট কমে ৬ হাজার ৩৮ পয়েন্টে নেমে আসে। এছাড়া ডিএসই শরিয়া সূচক ৬ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ২৯৯ পয়েন্ট, ডিএসইএ-৩০ সূচক ১৮ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ২২২ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

অন্যদিকে দেশের অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ২৯২টি কোম্পানির ৩ কোটি ৯৭ লাখ ৯২ হাজার ৩২৯টি শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। লেনদেন হওয়া এসব কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১৩০টির, কমেছে ১৪৩টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৯টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। দিনশেষে সিএসইতে ১৫৯ কোটি ৮৪ লাখ টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৫৬ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। এদিন সিএসইর প্রধান সূচক আগের দিনের চেয়ে ৩৬ পয়েন্ট কমে ১৭ হাজার ৫০৭ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

এফএ

RTV Drama
RTVPLUS