logo
  • ঢাকা সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬

সবজির দাম অপরিবর্তিত থাকলেও বেড়েছে মাছ-মুরগির দাম

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:৫৯
ফাগুনের আগুন শুধু প্রকৃতিতে লাগেনি। আগুন কিছুটা রাজধানীর মাছ মুরগির বাজারেও লেগেছে। রাজধানীর বাজারগুলোতে সবজির দাম অপরিবর্তিত থাকলেও সপ্তাহের ব্যবধানে ব্রয়লার মুরগি ও মাছের দাম বেড়েছে। সপ্তাহের ব্যবধানে ব্রয়লার মুরগির দাম কেজিতে বেড়েছে ২৫ টাকা এবং গরুর মাংসের দাম বাজারভেদে কেজিতে বেড়েছে ২০ টাকা। ভিন্ন ভিন্ন প্রায় প্রতিটি মাছের দাম কেজিতে ২০ টাকা বেশি। তবে অপরিবর্তিত রয়েছে খাসির মাংসের দাম।

শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ানবাজার ঘুরে বাজারের ক্রেতা বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া যায়।

ব্রয়লার মুরগির দাম বাড়লেও অপরিবর্তিত রয়েছে লাল লেয়ার ও পাকিস্তানি কক মুরগির দাম। লাল লেয়ার মুরগি আগের সপ্তাহের মতোই বিক্রি হচ্ছে ১৯৫ টাকা থেকে ২০৫ টাকায়। আর পাকিস্তানি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২৬০ থেকে ২৮০ টাকা কেজি দরে। ব্রয়লার মুরগির দাম ১৩০ টাকা থেকে বেড়ে ১৫৫ টাকা হয়েছে।

কারওয়ান বাজারে ব্রয়লার মুরগির পাইকারি ব্যবসায়ী ইয়াসিন আরটিভি অনলাইনকে বলেন, বাজারে ব্রয়ালার মুরগির আমদানি কম। কারণ শীতকালে ব্রয়লার মুরগির অসুখ হয় বেশি। মুরগি মারা যায় বেশি। এইজন্য খামারিরা খামারে মুরগি কম উঠায়। সেই সংকট এখন দেখা গেছে। কারণ বাজারে এখন মুরগির চাহিদা বেশি। পিকনিক ও বিয়ে সিজন হওয়ার কারণে চাহিদা বেড়ে গেছে। 

এ ব্যবসায়ী আরও বলেন, প্রথমে দাম বেড়েছে পাকিস্তানি কক মুরগির। তবে বেশ কিছুদিন ধরেই পাকিস্তানি কক মুরগির কেজি ২৬০ থেকে ২৮০ টাকার মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে।

 

কারওয়ান বাজারে গুরুর মাংসের ব্যবসায়ী কাশেম মিয়া বলেন, গরুর মাংস ৫০০ টাকা কেজিতে বিক্রি করলেও এখন কোনো ব্যবসায়ী ৫২০ টাকার নিচে গরুর মাংস বিক্রি করছেন না।তবে গুরুর মাংসের দাম কেজিতে ৫০০ থেকে ৫২০ এর মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে।

রুই মাছ বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২২০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা কেজিতে। পাবদা মাছ বিক্রি হচ্ছে ৪৫০ থেকে ৬০০ টাকা কেজি দরে। টেংরা মাছের কেজি ৫০০ থেকে ৬৫০ টাকা, তেলাপিয়া মাছ ১৪০ থেকে ১৮০ টাকা, পাঙাশ মাছ ১২০ টাকা থেকে ১৬০ টাকা, শিং মাছ ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা, বোয়াল মাছ ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা, চিতল মাছ ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা কেজি।

এদিকে টমেটো, বেগুন, গাজর, মুলা, শালগম, শিম, নতুন আলু, ফুলকপি, বাঁধাকপি, লাল শাক, পালন শাকসহ হরেক রকম শাক-সবজির সরবরাহে ঘাটতি না থাকায় সপ্তাহের ব্যবধানে দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

পটল ও ঢেড়স ৮০ টাকা কেজি। মরিচের দাম কিছুটা কমতি । গত সপ্তাহে মরিচের দাম ৬০ টাকা ছিল। চলতি সপ্তাহে মরিচের দাম ৪০ টাকা। 

১০ থেকে ১৫ টাকা কেজির মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে বেগুন, শালগম, মুলা, পেঁপে ও বিচিবিহীন শিম। আর বিচিসহ শিম বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ৩০ টাকা কেজিতে। ফুলকপি ১০ থেকে ২০ টাকা পিস এবং বাঁধাকপি ১৫ থেকে ২৫ টাকা পিস বিক্রি হচ্ছে।

সপ্তাহের ব্যবধানে দাম অপরিবর্তিত রয়েছে পাকা টমেটো ও নতুন আলুর। আগের মতো পাকা টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ৩০ টাকা কেজি দরে। আর নতুন আলু ১৫ থেকে ২০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

দাম অপরিবর্তিত রয়েছে পেঁয়াজ ও কাঁচামরিচের। আগের সপ্তাহের মতো নতুন দেশি পেঁয়াজ ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। আর আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজের কেজি ১৫ থেকে ২০ টাকা কেজি। কাঁচামরিচের পোয়া (২৫০ গ্রাম) বিক্রি হচ্ছে ১০ থেকে ১৫ টাকা।

পালন শাক বিক্রি হচ্ছে ৫ থেকে ১৫ টাকা আঁটি। লাল ও সবুজ শাক বিক্রি হচ্ছে ৫ থেকে ১০ টাকা আঁটি। লাউ শাক পাওয়া যাচ্ছে ২০ থেকে ৩০ টাকায়। সরিষা শাক ৫ থেকে ৫ থেকে ১০ টাকা আঁটি বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে নতুন মৌসুমের ফল তরমুজ দেখা গেছে। তরমুজ প্রতি পিস ২৫০ টাকা থেকে ৩৫০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া বাজারে রয়েছে আতা ২৫০ টাকা কেজি। বেল প্রতি পিস ৬০ থেকে ৮০ টাকা। স্ট্রোবেরি ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা কেজি ।

আরসি/এমকে  

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়