Mir cement
logo
  • ঢাকা বুধবার, ০৪ আগস্ট ২০২১, ২০ শ্রাবণ ১৪২৮

গরুর চামড়া ৩০০, ছাগলের চামড়া ফ্রি

কোরবানির পশুর চামড়া

এবার সারাদেশে এক কোটি পশু জবাই হচ্ছে। তবে এত পরিমাণ পশু কোরবানি হলেও কাঙ্ক্ষিত দর মেলেনি চামড়ার। এ অবস্থায় পাড়া-মহল্লার অনেকেই ফড়িয়াদের চামড়া ফ্রিতে দিয়েছেন। আবার কোনো কোনো আড়তদার পানির দরে চামড়া কিনেছেন।

সরেজমিনে বুধবার (২১ জুলাই) বিকেলে কোরবানির গরু-ছাগলের চামড়া ৩০০ টাকা ও ছাগলের চামড়া পাড়া-মহল্লায় ফ্রি দিতে দেখা যায় ফড়িয়াদের।

নওগাঁ জেলা চামড়া ব্যবসায়ী গ্রুপের সভাপতি মমতাজ হোসেন বলেন, চাহিদা না থাকায় গরুর চামড়া কিছুটা দাম দিয়ে এবং ছাগলের চামড়া ফ্রিতে নিয়েছি। গরুর ২০০ থেকে ৩০০ টাকা দরে চামড়া কিনে স্থানীয় আড়তে নিয়ে বিক্রি করব। তবে পরিবহন খরচ বাদ দিয়ে গরু-ছাগলের চামড়ায় কোনো লাভ হয় না। এবারও গরুর চামড়ার দর বিপর্যয়ের কারণে ছাগলের চামড়ার করুণ পরিণতি হয়েছে বলে মনে করছেন তিনি।

জেলা চামড়া ব্যবসায়ী গ্রুপের সাবেক কোষাধ্যক্ষ ফরিদ বলেন, চাহিদা না থাকায় চামড়া কম দামে কিনতে হচ্ছে। এসব চামড়া কিনেও লাভ হবে কি না জানি না। তারপরও ঝুঁকি নিয়ে কিনছি। ফড়িয়াদের কাছ থেকে দু-এক টাকা বেশি দিয়ে চামড়া কিনছি।

উকিলপাড়ার বাসিন্দা সনি বলেন, একজন গরুর চামড়ার সঙ্গে চার পিস ছাগলের চামড়া নিয়ে এসেছে। ফড়িয়ারা ওই বিক্রেতার কাছ থেকে ছাগলের চামড়া কিনতে অপারগতা জানান। তারপর চামড়ার মালিক ৪টি চামড়াই ফ্রি দিয়ে দেন। আমি দেড় লাখ টাকা দামের গরুর চামড়া মাদরাসায় দান করে দিয়েছি।

ফড়িয়া ব্যবসায়ী মানিক হোসেন বলেন, এবার কোনো আড়তদার চামড়া নিতে চাচ্ছে না। ফলে গরু-ছাগলের চামড়া কিনে খরচ ওঠা দূরের কথা, চায়ের দামও হচ্ছে না। ফুটপাতে এখন এক কাপ চা খেতে ১০ টাকা লাগে। আর একটি চামড়ার লাভ হচ্ছে মাত্র দুই টাকা। গরু-ছাগলের চামড়ার এমন করুণ পরিণতি গত দুই বছর ধরেই চলছে।

এদিকে নওগাঁয় গরু-ছাগলের চামড়ার পাশাপাশি এদের মাথার চামড়ার কদর অনেক। তবে এবার ছাগলের চামড়ার মতো একই অবস্থা গরুর মাথার চামড়ার। নির্ধারিত দর হিসেবে ঢাকায় প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ৩৫ থেকে ৪০ টাকা। একটি মাথার চামড়ায় ৪ বর্গফুট হিসাবে ন্যূনতম দরে ১৪০ টাকায় বিক্রি হওয়ার কথা। কিন্তু মাথার চামড়ার কোনো দর মেলেনি।

নওগাঁ গোস্তহাটির মোড় আড়তে মাথার চামড়া ফেলে রেখে গেছেন অনেক বিক্রেতা। মাথার চামড়ার কদর এতটাই কম যে ফেলে রেখে যাওয়া চামড়া নিতে দেখা যায় না আড়তদারদের। এখানে কর্মরত শ্রমিকরা বলেন, চামড়ার এমন করুণ পরিণতি ঘটানোর খেসারত দিতে হবে ট্যানারি মালিকদের।

এসআর/

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS