Mir cement
logo
  • ঢাকা বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ২ আষাঢ় ১৪২৮

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ০২ জুন ২০২১, ১৯:৫২
আপডেট : ০২ জুন ২০২১, ১৯:৫৯

পরপর ভে'ঙে পড়লো ৩ সেতু, দায় নিচ্ছে না কেউ!

ভেঙে পড়া সেতু

ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলায় চরআলগীতে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের মরা খালে পানি উন্নয়ন বোর্ড অপরিকল্পিতভাবে খাল খননের ফলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার অধিদপ্তরের ১ কোটি ৩২ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন তিনটি সেতু ভেঙে পানিতে পড়ে গেছে। সেতু ভেঙে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় চরআলগী ইউনিয়নের ১০ গ্রামের হাজার হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা সচল রাখতে গফরগাঁও উপজেলার চরআলগী ইউনিয়নের চরমছলন্দ কুরতলী পাড়া রাস্তায় পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের মরা খালের উপর ২০১৩-২০১৪ অর্থ বছরের ৪৭ লাখ ৪২ হাজার ৭১৮ টাকা ব্যয়ে ৬০ ফুট সেতু, কলেজ ফেরিঘাট হতে পূর্ব টেকিরচর রাস্তায় ২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরের ৫৪ লাখ ৪ হাজার ৬৫১ টাকা ব্যয়ে ৬০ ফুট সেতু এবং ২০১৭-২০১৮অর্থ বছরে বুরাখালী চরে খালের উপর ৩০ লাখ ৭৭ হাজার ৬৫৭ টাকা ব্যয়ে ৪০ ফুট সেতু নির্মাণ করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর। সেতু তিনটি নির্মাণে মোট ব্যয় হয় ১ কোটি ৩২ লাখ ২৫ হাজার ২৬ টাকা।

স্থানীয়রা জানায়, পানি উন্নয়ন বোর্ড অপরিকল্পিতভাবে খাল খননের ফলে সেতুগুলোর নিচ থেকে মাটি সরে গিয়ে গত ২৬, ২৭ ও ২৮ মে তিন দিনের ব্যবধানে স্রোতের কারণে দুই কিলোমিটারের মধ্যে তিনটি সেতুই ধসে পড়ে। নির্মাণের কয়েক বছরের মধ্যে তিনটি সেতু ভেঙে পড়ায় দুর্গম চরাঞ্চলবাসী বর্তমানে ভোগান্তি পোহাচ্ছেন।

কৃষক আবু সাঈদ ফকির জানান, এভাবে খাল খনন করা ঠিক হয়নি। সেতুগুলো ভেঙে যাওয়ায় আমারা এখন চরম দুর্ভোগে পড়েছি।

চরআলগী ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুজ্জামান বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ড পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদে (মরা খালের) অপরিকল্পিতভাবে খাল খনন করছেন। অপরিকল্পিতভাবে খাল খননের ফলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর নির্মাণাধীন তিনটি সেতুর নিচ থেকে মাটি সরে গিয়ে ভেঙে পড়েছে।

এদিকে নির্মাণের অল্প সময়ে মধ্যে সেতুগুলো ভেঙে যাওয়া নিয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড ও সেতু নির্মাণকারী কর্তৃপক্ষ ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর একে অপরকে দোষারোপ করে বক্তব্য দিয়েছেন।

ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের গফরগাঁও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রেজাউল করিম বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ড আমাদের না জানিয়ে খাল খনন কাজ শুরু করেছেন। সেতুগুলো নির্মাণের আগে খালগুলো সরু ছিল। দরপত্রের সময় অনুযায়ী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলো সেতু নির্মাণ করেছেন। পানি উন্নয়ন বোর্ড সেতুগুলোর কাছে গভীর করে খাল খনন করায় মাটি সরে গিয়ে বেইজমেন্টে ফাটল ধরে ভেঙে পড়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মুসা জানান, পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের মরা খালে সেতু নির্মাণের আগে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় কর্তৃপক্ষ আমাদের কাছ থেকে কোনো মতামত নেয়নি। নিজেদের দোষ আড়াল করতে তারা এখন পানি উন্নয়ন বোর্ডকে দোষারোপ করছেন।

এসআর/

RTV Drama
RTVPLUS