Mir cement
logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ২৪ বৈশাখ ১৪২৮

মাস্ক না পরায় রোদে বসিয়ে শাস্তি দিচ্ছে পুলিশ, আইন কী বলছে?

মাস্ক না পরায় রোদে বসিয়ে শাস্তি দিচ্ছে পুলিশ, আইন কী বলছে?
মাস্ক না পরায় রোদে বসিয়ে শাস্তি দিচ্ছে পুলিশ, আইন কী বলছে?

স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে মাস্ক পরিধান না করায় ৩০ যুবককে রোদে বসিয়ে রেখে শাস্তি দিয়েছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) দুপুরে চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা থানা চত্বরে মাস্ক-বিহীন যুবকদের বসিয়ে রেখে শাস্তি দেয়া হয়। সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন ২০১৮-এর কোনো ধারায় এ ধরণের শাস্তির বিধান না থাকলেও মানুষকে সচেতন করতে একটু কঠোর হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

দেশের তীব্র তাপমাত্রার এই সময় এভাবে ২০-৩০ মিনিট রোদে বসিয়ে রাখলে বা দাঁড় করিয়ে রাখলে হিটস্ট্রোক, মাথা ব্যথা, চর্মরোগসহ বিভিন্ন শারীরিক জটিলতা তৈরি হতে পারে বলে মনে করেন চিকিৎসকরা।

পুলিশ জানিয়েছে, জন-সাধারণের মাঝে সচেতনতা বাড়াতে ও স্বাস্থ্যবিধি মানাতে চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপারের নির্দেশে আলমডাঙ্গা থানা পুলিশের পক্ষ থেকে মাস্ক বিতরণ করা হচ্ছে। যারা মাস্ক-বিহীন চলাচল করছে তাদের আটক করে থানা চত্বরে প্রায় ২০ মিনিট রোদে বসিয়ে রাখা হয়। পরে তাদের মাঝে মাস্ক বিতরণ করে ছেড়ে দেয়া হয়। যাদের মুখে মাস্ক নেই কেবল তাদেরকেই শাস্তির মুখে পড়তে হয়েছে।

এদিকে, সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন, ২০১৮-এর কোনো ধারায় অবশ্য এ ধরণের শাস্তির বিধান পাওয়া যায়নি। এ আইনের ২৪ (১) ধারায় সংক্রামক রোগের বিস্তার এবং তথ্য-গোপন এর অপরাধের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি সংক্রামক জীবাণুর বিস্তার ঘটান বা বিস্তার ঘটিতে সহায়তা করেন, বা জ্ঞাত থাকা সত্ত্বেও অপর কোনো ব্যক্তি সংক্রমিত ব্যক্তি বা স্থাপনার সংস্পর্শে আসিবার সময় সংক্রমণের ঝুঁকির বিষয়টি তাহার নিকট গোপন করেন তাহলে উক্ত ব্যক্তির অনুরূপ কার্য হইবে একটি অপরাধ। এ অপরাধের দণ্ড হিসেবে ২৪ (২) ধারায় বলা হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি উপ-ধারা (১) এর অধীন কোনো অপরাধ সংঘটন করে তাহলে তিনি অনূর্ধ্ব ৬ (ছয়) মাস কারাদণ্ডে বা অনূর্ধ্ব ১ (এক) লক্ষ টাকা অর্থদণ্ডে বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।

মাস্ক পরিধান না করলে অর্থদণ্ড বা কারাদণ্ডের বিধান থাকলেও সেটি কেন অনুসরণ করা হয়নি, এমন প্রশ্নের জবাবে আলমডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর কবীর বলেন, পুলিশ সুপারের নির্দেশে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে একটু কঠোর হতে হচ্ছে। আমরা মাইকিং করে মানুষকে সচেতন করছি, মাস্ক দিচ্ছি।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) জাহাঙ্গীর আলম জানান, আমরা কেবল মাত্র মানুষকে সচেতন করতে কাজ করছি। এখানে আইনের কোনো প্রয়োগ করা হয়নি। মাস্ক না পরার অপরাধে যাদেরকে থানা চত্বরে বসিয়ে রাখা হয়েছিল তাদেরকে মাস্ক দিয়ে সতর্ক করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার বলেন, স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করলে শারীরিক বা মানসিকভাবে কাউকে শাস্তি দিতে হবে এমন বিধান নেই। আইনের কোথাও এমনটা বলা হয়নি। তবে পুলিশ ভালোর জন্য হয়তো কাজটি করেছে।

চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন ডা. এএসএম মারুফ হাসান জানান, এই তাপমাত্রায় মানুষকে একটানা ২০-৩০ মিনিট কড়া রোদে বসিয়ে রাখলে বা দাঁড় করিয়ে রাখলে হিটস্ট্রোক, মাথা ব্যথা, চর্মরোগসহ বিভিন্ন শারীরিক জটিলতা দেখা দিতে পারে। একেক জনের জন্য একেক রকম উপসর্গ দেখা দিতে পারে।

এসআর/

RTV Drama
RTVPLUS