logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ২ মাঘ ১৪২৭

বাঘের পায়ের ছাপে আতঙ্কে দিন পার করছেন গ্রামবাসী

Tiger, locality, again, villagers, panic
বাঘের পায়ের ছাপে আতঙ্কে দিন পার করছেন গ্রামবাসী
বাগেরহাটের সুন্দরবন সংলগ্ন লোকালয়ে আবারও বাঘের আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। শনিবার রাতে সুন্দরবন থেকে একটি বাঘ বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলার রায়েন্দা ইউনিয়নের দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামে ঢুকে পড়ে। বাঘটি ওই গ্রামের প্রায় দেড় কিলোমিটার এলাকাজুড়ে বিচরণ শেষে আবার সুন্দরবনে ফিরে গেছে। বাঘের পায়ের অসংখ্য ছাপ পড়ে রয়েছে গ্রামের ফসলের মাঠ, মাছের ঘের, নদীর চরে। আজ রোববার (১০জানুয়ারি) সকালে বাঘের পায়ের ছাপ নজরে আসে গ্রামবাসীর।

সুন্দরবন বিভাগ জানায়, শনিবার রাতে পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের দাসের ভারণী টহল ফাঁড়ি সংলগ্ন নদী সাঁতরে রসুলপুর বাজারের পাশে আলমগীর তালুকদারের বাড়ির সামনে থেকে বাঘটি গ্রামে চলে আসে। রাতে বিভিন্ন এলাকায় ঘোরাঘুরি করে রোববার সকালে নাংলী টহল ফাঁড়ির কাছের ভোলা নদী পার হয়ে আবার সুন্দরবনে ফিরে গেছে বাঘটি। এর তিন মাস আগে (৭ অক্টোবর-২০২০) আরো একটি রয়েল বেঙ্গল টাইগার ভারাট হওয়া ভোলা নদী পার হয়ে বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলার ধানসাগর ইউনিয়নের পশ্চিম রাজাপুর গ্রামে এসেছিল।

এদিকে বাঘ আসার খবরে দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামের মানুষ ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছে। গ্রামবাসী তাদের গরু-মহিষ রক্ষায় গোয়ালে শক্ত ঘেরা দিয়ে রাতে আলো জ্বালিয়ে রাখার ব্যবস্থা করেছে। এ ব্যাপারে সুন্দরবন সুরক্ষায় নিয়োজিত ওয়াইল্ড টিম ও ভিলেজ টাইগার রেসপন্স টিমের (ভিটিআরটি) সদস্যরা গ্রামের মানুষকে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন।

দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামের বাসিন্দা ইব্রাহীম জানান, বাঘ আসার খবর শুনে মানুষজন ভয়ে আছে। বাঘের আক্রমণ থেকে বাঁচার জন্য গরু মহিষের গোয়ালে রাতে আলোর ব্যবস্থা করেছেন তারা। ওয়াইল্ড টিমরে শরণখোলার মাঠ কর্মকর্তা আলম হাওলাদার জানান, গ্রামের আলমগীর তালুকদার প্রথমে বাঘের পায়ের ছাপ দেখে তাদেরকে জানিয়েছেন। এর পরে তারা আলমগীরের বাড়ি থেকে ইনুছ সরদারের মাছের ঘের পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার ঘুরে বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য পায়ের ছাপ দেখতে পান।

পরিমাপ করে দেখা গেছে পায়ের ছাপের ব্যাসার্ধ ৯ সেন্টিমিটার। ছাপের আকৃতি দেখে বাঘটি ‘মাদি’ বলে ধারণা করছে বন বিভাগের কর্মকর্তারা।

সুন্দরবন বিভাগের দাসের ভারাণী টহল ফাঁড়ি ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম জানান, বনরক্ষীরা ওই গ্রাম পরিদর্শন করে গ্রামবাসীকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছে। গত ১৫দিন আগে তাদের অফিসের পাশে একটি বাঘ দেখতে পান তারা। ধারণা করা হচ্ছে ওই বাঘটিই গ্রামে ঢুকেছে।

বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের সহকারী বনসংরক্ষক (এসিএফ) মো. জয়নাল আবেদীন জানান, রোববার সকাল থেকে শরণখোলা স্টেশন কর্মকর্তার নেতৃত্বে বনরক্ষীদের একটি দল ঘটনাস্থলে রয়েছে।

জিএম/এফএ

RTV Drama
RTVPLUS