Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ২ কার্তিক ১৪২৮

কালীগঙ্গা নদীতে অবৈধ ড্রেজিং, হুমকির মুখে সেতুসহ শতাধিক স্থাপনা

কালীগঙ্গা নদী

কালীগঙ্গা নদীতে অবৈধভাবে ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলনের ফলে নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে মানিকগঞ্জ পৌরসভার জয়নগর এলাকার শতশত বিঘা ফসলি জমি। ভাঙনের মুখে পড়েছে ওই সেতু ও সরকারি-বেসরকারি স্থাপনাসহ শতশত বাড়ি-ঘর।

২০১০ সালের বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন অনুযায়ী সেতু, কালভার্ট, ড্যাম, ব্যারেজ, বাঁধ, সড়ক, মহাসড়ক, বন, রেললাইনসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা অথবা আবাসিক এলাকার এক কিলোমিটারের মধ্যে বালু বা মাটি উত্তোলন নিষিদ্ধ। অথচ, জয়নগর এলাকাটি বেউথা সেতু এবং তরা সেতুর মধ্যবর্তী এলাকায় এবং অত্যন্ত ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা। নদী ভাঙনের ফলে জয়নগর এলাকার পাশাপাশি আন্ধারমানিক, চর বেউথা, বান্দুটিয়া এবং পৌলি এলাকাও মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

এলাকাবাসীর পক্ষে গত ৭ জুলাই মানিকগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো. রমজান আলী জেলা প্রশাসকের নিকট ড্রেজিং বন্ধে এবং বেড়িবাঁধ নির্মাণের আবেদন করেন। আবেদনে তিনি উল্লেখ করেন, মানিকগঞ্জ পৌরসভার জয়নগর, আন্ধারমানিক, চর বেউথা ও পৌলি এলাকাগুলি কালীগঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত। এসব এলাকায় প্রায় ২৫ হাজার লোকের বসবাস। এখানে রয়েছে কালীগঙ্গা নদীর উপর বেউথা সেতু, জয়নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জয়নগর উচ্চ বিদ্যালয়, পৌরসভার পানির পাম্প, ডা. যোসেফ মেমোরিয়াল হাসপাতাল ও ফুডজোনের বিভিন্ন রেস্তোরাসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা। কিন্তু কালীগঙ্গা নদীর জয়নগর এলাকায় অবৈধ ড্রেজিং-এর ফলে নদীপাড়ে ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে। এ কারণে শতশত পরিবার গৃহহীন ও ভূমিহীন হয়ে পড়েছে। ফসলি জমিসহ বিভিন্ন স্থাপনা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এ কারণে এলাকাবাসী চরম আতঙ্কে রয়েছে। এলাকাবাসীর স্বার্থে জরুরি-ভিত্তিতে ড্রেজিং বন্ধ করতে হবে। অন্যথায় এসব এলাকা এবং স্থাপনাগুলি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাবে।

এ ব্যাপারে নবাগত জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফ আরটিভি নিউজকে বলেন, এলাকার ক্ষতি করে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে কেউ নদীতে ড্রেজিং করতে পারবে না। ইতোমধ্যে ইউএনওকে নির্দেশনা দিয়েছি। জনস্বার্থে যা যা করণীয় তা করা হবে।

এসআর/

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS