Mir cement
logo
  • ঢাকা বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ৫ কার্তিক ১৪২৮

কাজ শেষ না হতেই সড়কে সুরঙ্গ ও ফাটল

সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত স্থানের চিত্র

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে একটি আঞ্চলিক সড়কের কাজ শেষ হতে না হতেই বিভিন্ন স্থানে সুরঙ্গ ও ফাটলের সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, নিম্নমানের সামগ্রীসহ নানা অনিয়মের কারণে সড়কটি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এতে ওই সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত স্থানে দুর্ঘটনার ঝুঁকি রয়েছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লোকজন সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত স্থানগুলো কয়েক ধাপে কোনো রকম মেরামত করা হলেও অল্প সময়ের মধ্যে আবারও সুরঙ্গ ও ফাটল সৃষ্টি হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা।

এলাকাবাসী, পরিবহন শ্রমিক এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলার কালিয়াকৈর-ফুলবাড়িয়া আঞ্চলিক সড়কে এ ঘটনা ঘটেছে। বছর তিনেক আগেও বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়ে প্রায় যান চলাচলের অনুপযোগী হয় সড়কটি। ফলে প্রতিনিয়ত যানবাহন নষ্টসহ চরম জনদুর্ভোগে পড়েন মানুষ। ওই সময় বেহাল সড়কটি নিয়ে বিভিন্ন মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশ হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি গোচর হয়। এরপর ৭৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ওই সড়কের উন্নয়ন কাজ আসে।

জানা যায়, কাজটি আরবিএল এন্টারপ্রাইজ নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান পায়। পরে ওই প্রতিষ্ঠানটি ২০১৮ সালে সড়কের কাজটি শুরু করলেও নিম্নমানের সামগ্রীসহ নানা অনিয়মের মাধ্যমে ২০২০ সালে তা শেষ হয়। কিন্তু কাজটি শেষ হতে না হতেই সড়কের আমতলী, বাংলাবাজার, পাইকপাড়া, নামাশুলাইসহ বিভিন্ন এলাকায় সুরঙ্গ ও ফাটল দেখা দেয়। খবর পেয়ে চুক্তিপত্র অনুযায়ী ওই ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত স্থানগুলো কোনো রকম মেরামত করে। সর্বশেষ মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) রাতে নামাশুলাই এলাকায় ওই সড়কের মাঝখানে আবারও সুরঙ্গের সৃষ্টি হয়। এতে দুর্ঘটনার ঝুঁকি এড়াতে স্থানীয় লোকজন সেখানে বাঁশে লাল কাপড় বেঁধে রেখে দেয়।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সংশ্লিষ্ট অসাধু কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগসাজশ করে ঠিকাদারি লোকজন নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার ও নানা অনিয়ম করায় সড়কটি এভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত স্থানগুলো কয়েক ধাপে কোনো রকমে মেরামত করা হলেও অল্প সময়ের মধ্যে আবার সুরঙ্গ ও ফাটল সৃষ্টি হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্থানীয়রা।

কাজ শেষে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানটি চলে যাওয়ায় এ বিষয়ে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। তবে ওই প্রতিষ্ঠানের মালামাল রাখার একটি ক্যাম্পের দেখভালের দায়িত্বে থাকা আতাউর রহমান খান জানান, খবর পেয়ে গর্তটি মেরামত করা হচ্ছে। তবে ঈদের ছুটি শেষে সেখানে খুদাই করে পুনরায় মেরামত করা হবে।

কাজের অনিয়মের বিষয়টি অস্বীকার করে গাজীপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী রাশেদুল হাসান বলেন, শুনেছি ওই সড়কের মাঝখানে একটি গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। লোক পাঠিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত স্থান মেরামত করা হয়েছে। এছাড়া সড়কটি ক্ষতিগ্রস্ত হলেও সাধারণত ১ বছর থেকে ৩ বছর পর্যন্ত ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ক্ষতস্থান মেরামত করে থাকে।

এসআর/

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS