Mir cement
logo
  • ঢাকা শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮

মায়ের নির্যাতন থেকে বাঁচতে চাকরি চাওয়ায় তরুণীকে যৌন পল্লীতে বিক্রি!

প্রতীকী ছবি

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে বিক্রির সময় রক্ষা পেল এক তরুণী (২০)। মঙ্গলবার (৮ জুন) দিবাগত রাতে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর প্রধানগেট থেকে ওই তরুণীকে উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় পঞ্চগড় জেলার পঞ্চগড় সদর উপজেলার রাজমহল গ্রামের মো. জালালের ছেলে মো. মনির (২৫) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অপর আসামি পঞ্চগড় জেলার পঞ্চগড় সদর উপজেলার মফিজার রহমান কলেজের পেছনে বাদুমৃধা গ্রামের মো. শাহউদ্দিনের ছেলে মো. মাসুম (৩০) ও অজ্ঞাত নামা আরও একজন পলাতক রয়েছে। বুধবার (৯ জুন) দুপুরে এক এজাহারের মাধ্যমে এ তথ্য জানান গোয়ালন্দ ঘটি থানা পুলিশ।

এজাহার সূত্রে জানা যায়, তরুণীর সৎ মা তাকে প্রতিনিয়ত অত্যাচার ও খাবারের কষ্ট দিত। কষ্টের কথা পূর্ব পরিচিত মাসুমকে জানালে সে ভালো বেতনে চাকরির কথা বলে পঞ্চগড় থেকে ঢাকায় পাঠায়। সেখানে চাকরির ব্যবস্থা না হওয়ায় সে গোয়ালন্দে আসলে মাসুম তাকে ভালো বেতনে চাকরির ব্যবস্থার কথা বলে। সরল বিশ্বাসে দৌলতদিয়া ঘাটে পৌঁছালে মনির ও মাসুম তরুণীকে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৮টার দিকে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর প্রধান গেটে নিয়ে বিক্রির চেষ্টা করে যৌনপল্লীতে ঢোকানোর চেষ্টা করে। এ সময় তাদের কথাবার্তায় সন্দেহ হলে ডাক চিৎকার করে তরুণী। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে মনিরকে আটক করলেও মাসুম ও অজ্ঞাতনামা একজন পালিয়ে যায়। তখন স্থানীয়রা তরুণীকে উদ্ধার ও মনিরকে পুলিশে সোপর্দ করে।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল্লাহ্ আল তায়াবীর জানান, তরণীকে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে বিক্রির চেষ্টাকালে স্থানীয়রা একজনকে আটক ও তরুণীকে উদ্ধার করে পুলিশে দেন। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং অন্য দুজনকে গ্রেপ্তার চেষ্টা চলছে। ওই তরুণী মানবপাচার আইনে থানায় মামলা করেছেন। গ্রেপ্তারকৃত আসামিকে আদালতের মাধ্যমে রাজবাড়ীর কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এসআর/

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS