Mir cement
logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ৪ আষাঢ় ১৪২৮

নরসিংদী সংবাদদাতা, আরটিভি নিউজ

  ১৬ মে ২০২১, ১৮:২৬
আপডেট : ১৬ মে ২০২১, ১৮:৩০

দোকান দখল নিয়ে আ.লীগ-বিএনপি সমর্থকদের গোলাগুলি, আহত বেড়ে ১০

দোকান দখল নিয়ে আ.লীগ-বিএনপি সমর্থকদের গোলাগুলি, আহত বেড়ে ১০
দোকান দখল নিয়ে আ.লীগ-বিএনপি সমর্থকদের গোলাগুলি, আহত বেড়ে ১০

নরসিংদী সদর উপজেলার আলোকবালীতে আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরে দুই পক্ষের সংঘর্ষের সময় ১০ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। রোববার (১৬ মে) সকালে সদরের প্রত্যন্ত চরাঞ্চল আলোকবালী ইউনিয়নের মুরাদনগর গ্রামে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় বেশ কয়েকটি বাড়িঘরে হামলা-ভাংচুর ও মালামাল লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। বিবাদমান দুই পক্ষের মধ্যে একটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মো. আসাদুল্লাহ ও অন্যটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেম্বার আইয়ুব আলী।

এর আগে দুপুরের দিকে জানানো হয় দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় ২ জন গুলিবিদ্ধসহ ৪ জন আহত হয়েছেন।

স্থানীয়রা বলছেন, দুই পক্ষের মধ্যে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ চলছে। সংঘর্ষে দু’পক্ষের গুলিবিদ্ধ ব্যক্তিরা হলেন আসাদ আলী পক্ষের জানু মোল্লার ছেলে আনিছ মোল্লা (৫০), সালাম মোল্লার ছেলে সাদেক মোল্লা (২৮), নুরচানের ছেলে আমির মোল্লা (২৫), নূর ইসলামের ছেলে মো. হিমেল (২৮) ও আবুল মিয়ার ছেলে মো. তপন (২০)। অন্যদিকে আইয়ুব আলী মেম্বারের পক্ষের মৃত. মোতালিব হোসেনের ছেলে আমির হোসেন (৩৫), তার ভাই মনির মিয়া (২৯), পাতা শিরু মিয়ার ছেলের মো. আসাদ (২৫), আব্দুল রহিম মিয়ার ছেলে সজল মিয়া (৪৫) ও মোখলেস মিয়ার ছেলে মোরাদ মিয়া ((১৮)। তাদের নরসিংদী শহর ও রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, নরসিংদীর সদর উপজেলার আলোকবালীতে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মো. আসাদুল্লাহ ও ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আইয়ুব আলী মেম্বারের বিরোধ দীর্ঘদিনের। এক সপ্তাহ আগে বাজারের একটি দোকানের দখল নিয়ে দুই গ্রুপের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এ নিয়ে ওই এলাকায় দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। এরই জের ধরে আজ সকালে দুই গ্রুপই আগ্নেয়াস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।

নরসিংদী সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক রোজী সরকার জানান, এই ঘটনায় গুলিবিদ্ধ দু’জন ব্যক্তিকে আমরা চিকিৎসা দিয়েছি। তাদের একজনের শরীরে পাঁচটি ছিটাগুলি ও একটি বুলেট পাওয়া গেছে। আমরা তাদের ভর্তি রেখে চিকিৎসা দিচ্ছি।

নরসিংদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার দত্ত চৌধুরী জানান, আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি মোকাবেলায় ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এসআর/

RTV Drama
RTVPLUS