Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ০৯ মে ২০২১, ২৬ বৈশাখ ১৪২৮

পাঞ্জাবির বোতাম লাগানোকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব, গুলিতে প্রাণ গেল প্রহরীর

পাঞ্জাবির বোতাম লাগানোকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব, গুলিতে প্রাণ গেল প্রহরীর
পাঞ্জাবির বোতাম লাগানোকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব, গুলিতে প্রাণ গেল প্রহরীর

নরসিংদীতে পাঞ্জাবির বোতাম লাগানোকে কেন্দ্র করে বাকবিতণ্ডার জেরে টেইলার্সে হামলার সময় গুলিবিদ্ধ নিরাপত্তা প্রহরী আব্দুস সালামের (৬০) মৃত্যু হয়েছে। ১২ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) সকাল ১০টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যু হয় তার।

নিহত আব্দুস সালামের স্ত্রী আরজান বেগম ও মাধবদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দুজ্জামান নিশ্চিত করেন মৃত্যুর বিষয়টি।

এর আগে ১৫ এপ্রিল রাত ৯টায় সদর উপজেলার পাঁচদোনা বাজারে সোহাগ টেইলার্সে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এতে ৪ জন আহত হয়। নিহত আব্দুস সালাম সদর উপজেলার নেহাব গ্রামের বাসিন্দা ও পাঁচদোনা বাজারের মাইক্রো গ্রীণ সিটি মার্কেটের নিরাপত্তা প্রহরী ছিলেন।

পুলিশ, আহত ব্যক্তি ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গত ১৫ এপ্রিল সন্ধ্যায় পাঞ্জাবির বোতাম লাগানোকে কেন্দ্র করে সোহাগ টেইলার্সের মালিক সিরাজ মিয়ার সঙ্গে পাঁচদোনা গ্রামের মাইন উদ্দিনের ছেলে জাহাঙ্গীরের কথা কাটাকাটি হয়। এসময় জাহাঙ্গীর ও তার সহযোগীরা সিরাজকে মারধর করে। এ ঘটনার পর সিরাজ টেইলার্স বন্ধ করে বাসায় চলে গেলে বাজারের অন্যান্য ব্যবসায়ীরা তাকে দেখতে বাসায় যান এবং বিচারের আশ্বাস দেন। পরে সিসিটিভি ফুটেজ দেখে অভিযুক্তদের শনাক্ত করার জন্য টেইলার্স মালিক সিরাজকে নিয়ে বাজারে আসেন ব্যবসায়ী ও অন্যান্যরা।

এসময় অভিযুক্ত জাহাঙ্গীর ও সাইদুর রহমান এর ছেলে নূর আলম (২১) এর নেতৃত্বে ১৫/২০ জন সন্ত্রাসী আবার কেন দোকান খোলা হলো এমন অভিযোগে হামলা চালায়। এসময় ফাঁকা গুলিতে বাজারের মার্কেটের নিরাপত্তা প্রহরী আব্দুস সালাম গুলিবিদ্ধসহ চাপাতির কোপে আহত হয় ৪ জন। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে পাঠালে চিকিৎসকরা গুলিবিদ্ধ নিরাপত্তা প্রহরীকে ঢাকা মেডিকেলে পাঠায়।

নিহত সালাম ভূইয়ার স্ত্রী আরজান বেগম বলেন, সামান্য পাঞ্জাবির বোতাম লাগানোর ঘটনাকে কেন্দ্র করে মাধবদী পৌর মেয়র মোশাররফ হোসেন প্রধান মানিকের গাড়িচালক আলামিন ও তার সহযোগীরা আমার স্বামীকে গুলি করে। ড্রাইভার আলামিন মেয়রের ব্যবহৃত গাড়ি থেকে নামার পরই এই গুলির ঘটনা ঘটেছে।

মাধবদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দুজ্জামান বলেন, এ ঘটনার পরই পুলিশ বাদী হয়ে অস্ত্র আইনে একটি মামলা করেন। এছাড়া গুলিবিদ্ধ সালামের পরিবারের পক্ষ থেকেও একটি মামলা করা হয়েছে। ওই মামলাটিই এখন আইন অনুযায়ী হত্যা মামলায় পরিণত হবে। এ পর্যন্ত ৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এসআর/

RTV Drama
RTVPLUS