logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ৪ বৈশাখ ১৪২৮

যৌতুক মামলায় কারাগারে ইঞ্জিনিয়ার মেহেদী হাসান

যৌতুক মামলায় কারাগারে ইঞ্জিনিয়ার মেহেদী হাসান

স্ত্রী নির্যাতন ও যৌতুক মামলায় কারাগারে পাঠানো হয়েছে ইঞ্জিনিয়ার মেহেদী হাসানকে। শুক্রবার (০৫ মার্চ) সকালে ঢাকা চীফ মেট্টোপলিটন মেজিস্ট্রেট কোর্টের বিচারক মোহাম্মদ জসিম এই আদেশ দেন। গতকাল সন্ধ্যায় উত্তরার ৭ নং সেক্টরে অবস্থিত এটিএস গ্রুপে কর্মরত অবস্থায় তাকে আটক করে উত্তর পশ্চিম থানা পুলিশ।

আরও পড়ুন : ফেঁসে যাচ্ছেন নাসিরের স্ত্রী তামিমা!

ঘরে স্ত্রী থাকার পরও খাদিজা নামের আরেক নারীর সাথে অনৈতিক সম্পর্ককে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার মেঘলা (ছদ্ম নাম) স্ত্রীর সাথে সম্পর্কের অবনতি হতে থাকে। ২০১৯ সালের ৫ জুলাই বিয়ে হলেও বিয়ের কয়েক মাস পেরোতে না পেরোতেই চাপ দিতে থাকে যৌতুকের জন্য। ১০ লাখ টাকা এনে দিতে না পারলে তালাকের হুমকি দেন মেহেদী হাসান। বিভিন্ন সময় শ্বশুর বাড়ী থেকে উপটৌকন পাঠালেও মন ভরেনি মেহেদি হাসানের। টাকা না পেয়ে বেপরোয়া মেহেদি হাসান স্ত্রী মেঘলার উপর নির্যাতন শুরু করে।

আরও পড়ুন : গোসলের ভিডিও ফাঁসের ভয় দেখিয়ে ভাবিকে দিনের পর দিন ধর্ষণ

পেশা ইঞ্জিনিয়ার হলেও নিজে ব্যবসা করার অজুহাতে যৌতুকের জন্য চাপ সৃষ্টি করে মেহেদী হাসান। কথায় কথায় মারধর করতো বলে জানান স্ত্রী মেঘলা। ১ সন্তানের জননী খাদিজা সাথে রয়েছে মেহেদী হাসানের পরকীয় প্রেম। মাঝে মাঝে সেখানেও রাত কাটান তিনি। এই নিয়ে সংসারে অশান্তি বলে জানান মেঘলা। নারী লোভি মেহেদী হাসানের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন স্ত্রী মেঘলা।

মেহেদী হাসান বাবার নাম মৃত মোঃ আলি মিয়া মায়ের নাম ফাতেমা খাতুন। নারায়ণগঞ্জ জেলার কাশিপুর বাংলা বাজার এলাকারস স্থায়ী বাসিন্দা হলেও উত্তরায় বসবাস করতো।

আরও পড়ুন : ১ লাখ ৮০ হাজার মুক্তিযোদ্ধার খসড়া তালিকা প্রকাশ

আসামী মেহেদী হাসান ছোট ভাই মাহবুব হাসানের বিরুদ্ধেও রয়েছে একই অভিযোগ। স্ত্রী নির্যাতন যৌতুকের কারণে তারও ছাড়াছাড়ি হয়।

এফএ

RTV Drama
RTVPLUS