• ঢাকা রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯, ২ আষাঢ় ১৪২৬

বাড়ি থেকে ২ লাখ পিস ইয়াবাসহ গৃহবধূ আটক

টেকনাফ প্রতিনিধি
|  ২৮ এপ্রিল ২০১৯, ১০:৫৬ | আপডেট : ২৮ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:৩০
টেকনাফে প্রায়ই বন্দুকযুদ্ধে মারা যাচ্ছেন ইয়াবা ব্যবসায়ী। তারপরও নির্মূল হচ্ছে না ইয়াবা ব্যবসা। ইয়াবাসহ আটক হচ্ছেন কারবারিরা।

whirpool
শনিবার রাতে র‌্যাবের একটি দল টেকনাফ পৌর এলাকার ৪ নং ওয়ার্ডের নতুন পল্লনপাড়ায় নজির আহমদের ছেলে সলিমুল্লার বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করে। এসময় বসত-বাড়ি হতে তল্লাশি  চালিয়ে দুই লাখ পিস ইয়াবাসহ গৃহবধূ সাবেকুন নাহারকে (২৫) আটক করা হয়। আটককৃত নারী ইয়াবা গডফাদার ছলিমুল্লাহ’র স্ত্রী। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে সলিমুল্লাহ পালিয়ে যান।

এই ব্যাপারে রাতেই আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন করে অভিযানের বর্ণানা দেয় র‌্যাব- ১৫ এর কক্সবাজার অফিস।

র‌্যাব কর্মকর্ততা লে. মির্জা শাহেদ মাহতাব বলেন, আটককৃত নারীকে সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা দায়ের করে টেকনাফ থানায় হস্তান্তরের করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, একই সময়ে কক্সবাজার সদর থানাধীন মেরিন সিটি কমপ্লেক্স এলাকা হতে অপর একটি আভিযানিক দল ২ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ মহেষখালী কালামারছড়া এলাকার মৃত সৈয়দ আলমের ছেলে মোঃ শাকের মিয়া (২৭), দরিয়া নগর এলাকার মোঃ মোস্তাকের ছেলে  মোঃ হাসন (২০) এবং লাহারপাড়া মৃত আবু তালেকের ছেলে  মোঃ আব্দুল জলিলকে (২৮) আটক করতে সক্ষম হয়। তাদেরকে কক্সবাজার সদর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাব কক্সবাজার ক্যাম্পের উপ অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ রবিউল ইসলাম।

এদিকে, টেকনাফে এ পর্যনত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন শতাধিক মাদককারবারী। তাদের মধ্যে রোহিঙ্গা নারী-পুরুষও রয়েছেন। সেই সাথে দু’গ্রুপের বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় মামলার আসামি হয়েছেন বেশ কয়েকশত মাদক কারবারি।

টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার দাশ জানান, মাদক বিরোধী অভিযানে বিন্দুমাত্র গাফেলতি নেই। অভিযান অব্যাহত রয়েছে। পাশাপাশি কয়েক শ’ মাদক বিরোধী কমিটি গঠন করা হয়েছে। সেই সাথে নানা পেশাজীবীদের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে মাদকবিরোধী সমাবেশ প্রতিটি অঞ্চলে করা হয়েছে।

জেএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়