Mir cement
logo
  • ঢাকা বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১২ কার্তিক ১৪২৮

ভাগ্য বদলালেও সৌদিতে প্রাণটাই গেল জাকিরের

ভাগ্য বদলালেও সৌদিতে প্রাণটাই গেল জাকিরের
গাজী জাকির হোসেন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার গাজী জাকির হোসেন। ভাগ্যবদলের আশায় ও পরিবারের অসচ্ছলতা ঘুচানোর স্বপ্ন নিয়ে প্রায় এক যুগ আগে বড় ভাইয়ের সঙ্গে সৌদি আরব পাড়ি জমিয়েছিলেন। জাকিরের তিন ভাই থাকেন সৌদি আরব। তিন ভাইয়ের আয়ে তাদের পরিবারে ফিরে এসেছে স্বচ্ছলতা।বাড়িতে নির্মিত হয়েছে একাধিক ভবন। জাকিরের বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। পাত্রীও দেখা হয়েছে।বিয়ের জন্য এ মাসেই দেশে ফেরার কথা ছিলো তার।কিন্তু বিয়ে করা আর হয়নি জাকিরের।দেশে ফিরেছেন ঠিকই তবে লাশ হয়ে।

গাজী জাকির হোসেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার অরুয়াইল ইউনিয়নের ধামাউড়া গ্রামের গাজী কাঞ্চন মিয়ার ছেলে। আজ বৃহস্পতিবার (২৬ আগস্ট) সকালে তার গ্রামের বাড়িতে লাশ এসে পৌঁছায়। লাশ দেখতে বাড়িতে ছিল মানুষের ভিড়।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ৪ আগস্ট সৌদি আরবের রিয়াদের হারা এলাকায় জাকির হোসেনের নিজ বাসায় দুর্বৃত্তরা তাকে গলা কেটে হত্যা করে। ২২ পর দিন গ্রামের বাড়িতে আজ সকালে তার লাশ এসে পৌঁছেছে। লোকজনের ভিড় এড়াতে তিন ঘণ্টা পরই তার লাশ নিয়ে যাওয়া হয় অরুয়াইল আবদুস সাত্তার ডিগ্রি কলেজ মাঠে। সেখানে বাদ জোহর তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

পারিবার জানায়, ৪ আগস্ট দুপুরে জাকিরের মেজ ভাই গাজী সুরাহান মিয়া সৌদি আরব থেকে পরিবারের লোকজনকে মুঠোফোনে জানান, জাকির হোসেন আর বেঁচে নেই। তাকে গলা কেটে ও পেটে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। হত্যার পর তার কাছে থাকা দেড় লাখ রিয়ালও লুটে নিয়েছে তারা।

জাকিরের বড় ভাই দুলাল মিয়া সংবাদ মাধ্যমকে জানান, তাদের গ্রামের দুই ব্যক্তি একই কক্ষে জাকির হোসেনের সঙ্গে থাকতেন । একজন ভাতিজা আক্কাস মিয়া(৩৫)ও অপরজন চাচাতো ভাই রুমান মিয়া। পাশের কক্ষে থাকতেন জাকিরের বড় ভাই গাজী সুরাহান মিয়া। ৪ আগস্ট স্থানীয় সময় সকাল সাতটার দিকে সবাই একসঙ্গে ঘর থেকে বের হয়ে নিজ নিজ কর্মস্থলে চলে যান। এ সময় জাকির হোসেন তার কক্ষেই ছিলেন। দুপুরের দিকে সুরাহান মিয়া জানতে পারেন, তার ভাইকে গলা কেটে ও পেটে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় সেখানকার পুলিশ রুমান মিয়া, আক্কাস মিয়াসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠিয়েছে।

দুলাল মিয়া জানান, জাকির হোসেন সেখানে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চুক্তিভিত্তিক বাংলাদেশি শ্রমিক নিয়োগ দিতেন। এ নিয়ে ধামাউড়া গ্রামের কয়েকজনের সঙ্গে জাকির হোসেনের বিরোধ চলছিল। দুলাল মিয়ার ধারণা, অরুয়াইল ইউনিয়নের ছয়জন মিলে তার ভাইকে খুন করেছেন। এর মধ্যে দুজন হত্যাকাণ্ডের দুই সপ্তাহ আগে দেশে এসেছেন। তাদের পরিকল্পনাতেই তার ভাই খুন হয়েছেন।

দুলাল মিয়া বলেন, বাংলাদেশে অবস্থানরত দুজনসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা দিতে থানায় গিয়েছিলাম। কিন্তু মামলা নেয়নি পুলিশ। উপযুক্ত প্রমাণসহ আবার থানায় যাব ও মামলা দেব।

সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, যেহেতু ঘটনাটি সৌদি আরবে ঘটেছে তাই সৌদি আরবে বাংলাদেশি নাগরিক খুনের ঘটনায় সেখানকার আইনে সেখানেই মামলা হবে। বাংলাদেশি কোনো লোক পরিকল্পনায় বা অন্যভাবে যুক্ত আছেন কি না, তা তদন্ত করে দেখা হবে।

এমএন

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS