Mir cement
logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ৮ আষাঢ় ১৪২৮

বরিশাল প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ১০ জুন ২০২১, ২২:৪১

বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে সাপেকাটা তরুণীর চিকিৎসা, পুলিশ দেখে পালালো কবিরাজ

বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে সাপেকাটা তরুণীর চিকিৎসা, পুলিশ দেখে পালালো কবিরাজ

বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার আগরপুর গ্রামে সাপেকাটা এক তরুণীকে সুস্থ্য করতে তরুণীর স্বজনদের সঙ্গে ৩৭ হাজার টাকা চুক্তি করেন কবিরাজ। গত দুই দিন ধরে ঢাক-ঢোল ও বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে তরুণির চিকিৎসা করছিলেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে দলবল নিয়ে পালিয়ে যান কবিরাজ।

সাপেকাটা অসুস্থ তরুণীকে উদ্ধার করে বরিশালের শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন পুলিশ। সেখানে চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বৃহস্পতিবার (১০ জুন) বাড়ি ফেরেন তিনি।

জানা গেছে, কথিত ওই কবিরাজের নাম মো. আলী আকবর হোসেন। তিনি মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার দক্ষিণ রমজানপুর গ্রামের বাসিন্দা। তার দলের সদস্যরা হলেন একই উপজেলার দক্ষিণ রমজানপুর গ্রামের মো. তফেল, মো. হাফিজুল, মো. বাপ্পি, মো. হানিফ ও মো. শাজাহান।

স্থানীয়রা জানায়, গত রোববার রাতে ওই তরুণীকে সাপ বা বিষাক্ত কোনো পোকা কামড় দেয়। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়লে ওই রাতেই কবিরাজ আলী আকবরের কাছে নিয়ে যাওয়া হয় তরুণীর স্বজনরা। ঝাড়ফুঁক শেষে বাড়ি ফিরলে গত মঙ্গলবার ফের অসুস্থ হয়ে পড়েন তরুণী। পরে ফের কবিরাজ মো. আলী আকবরকে ডেকে আনেন তরুণীর স্বজনরা।

কবিরাজের ঝাড়ফুঁকের তথ্য পেয়ে জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম তারেক গতকাল বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে কবিরাজ ও তার দল পালিয়ে যায়।

তরুণীর স্বজনরা জানান, তরুণীকে আধ্যাত্মিক চিকিৎসা দেওয়ার কথা বলে ৪৫ হাজার টাকা দাবি করেন কবিরাজ। পরে ৩৭ হাজার টাকা চুক্তি হয়। ওই কবিরাজের চিকিৎসায় সাপেকাটা অনেক রোগী ভালো হয়েছে। এই বিশ্বাসে তিনি ওই কবিরাজের চুক্তি করা টাকা অগ্রিম পরিশোধ করেন।

জাহাঙ্গীরনগর ইউপি চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম তারেক বলেন, সাপেকাটা রোগীর চিকিৎসার নামে ভণ্ডামি চলছিল। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে কবিরাজ দলবল নিয়ে পালিয়ে যায়।

পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মহিদুল আলম বলেন, কবিরাজের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এফএ

RTV Drama
RTVPLUS