spark
logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই ২০২০, ২৫ আষাঢ় ১৪২৭

করোনা আপডেট

  •     গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় মৃত্যু ৪৬ জন, আক্রান্ত ৩৪৮৯ জন, সুস্থ হয়েছেন ২৭৩৬ জন: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

গোপালপুর-চরমইনুট রুটের ফেরির আগেই চালু হচ্ছে সি-ট্রাক

জাকির হোসেন, স্টাফ রিপোর্টার
|  ২৭ জুন ২০২০, ২১:৪৮ | আপডেট : ২৭ জুন ২০২০, ২২:১৪
Sea-trucks launched before ferry Gopalpur-Charmainut route
চরভদ্রাসন উপজেলার গোপালপুর ফেরিঘাট পরিদর্শন করেন স্থানীয় সাংসদ মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন ও বিআইডব্লিওটিএ’র চেয়ারম্যান কমোডোর গোলাম সাদেকসহ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের একটি দল।

ফরিদপুর জেলার ৩টি উপজেলার মানুষের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পদ্মা নদীর ফরিদপুরের গোপালপুর ও দোহারের চরমইনুট ঘাটের ফেরি চালু হওয়া। অবশেষে চালু হতে যাচ্ছে এই রুটের ফেরি। তার আগেই এই রুটে চালু হবে সি-ট্রাক। 

শনিবার (২৭ জুন) সকালে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে একটি টিম গোপালপুর-চরমইনুট রুট পরিদর্শন করার সময় সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান। এ সময় স্থানীয় সংসদ সদস্য মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সনসহ স্থানীয় সরকারি কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। 

এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবীর প্রেক্ষিতে ফরিদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন এখানে ফেরি চালুর উদ্যোগ নেন। সড়ক ও জনপদ বিভাগের ২টি ফেরিও নিয়ে আসা হয়। কিন্তু নানা জটিলতায় সেই ফেরি ২টি চালু হয়নি। পরবর্তীতে স্থানীয় সাংসদ বিআইডব্লিওটিএ’র ফেরি চালু উদ্যোগ নেন এখানে। গতমাসে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে এই রুটে ফেরি চালুর বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। 

তারই পরিপ্রেক্ষিতে বিআইডব্লিওটিএ’র চেয়ারম্যান কমোডোর গোলাম সাদেক, প্রধান প্রকৌশলী মহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত প্রকৌশলী রাকিবুল ইসলামসহ ঊর্ধ্বতন নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় ও অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষের একটি টিম ঘাট ও নৌ রুটটি পরিদর্শনে আসেন। 

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালে এমপি নিক্সন চৌধুরীর নির্বাচনী ওয়াদা ছিল গোপালপুর-চরমইনুট রুটে ফেরি চালু করা। নির্বাচিত হওয়ার ১ বছরের মধ্যেই সড়ক ও জনপথ বিভাগের মাধ্যমে তিনি ফেরি চালুর উদ্যোগ নেন। এমনকি ২টি পল্টুন ও ২টি ফেরি নিয়ে আসা হয়। কিন্তু স্থানীয় রাজনৈতিক জটিলতায় ফেরি চালু করতে পারেনি সড়ক বিভাগ। 

স্থানীয়রা আবারও এমপি নিক্সন চৌধুরীর কাছে ফেরি চালুর ব্যাপারে আবেদন জানালে তিনি উদ্যোগ নেন নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে ফেরি চালু করার। দ্বিতীয়বারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালেদ মাহমুদের মাধ্যমে এই রুটে ফেরি চালুর উদ্যোগ নেন নিক্সন চৌধুরী। নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ও জরিপ করে ও সাধারণ মানুষের ভোগান্তির কথা বিবেচনা করে এই রুটে ফেরি চালুর নীতিগত সিদ্ধান্ত নেন। 

বিআইডব্লিওটিএ’র চেয়ারম্যান গোলাম সাদেক জানান, সড়ক বিভাগের মাধ্যমে এমপি নিক্সন সাহেব এখানে ফেরি চালুর উদ্যোগ নিয়েছিলেন। কিন্তু যেহেতু এখানে নৌ-রুটের ব্যাপার, তাই বিষয়টি নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের। সেজন্যই সড়ক বিভাগের ফেরি চালু করা সম্ভব হয়নি।

অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ জরিপসহ সকল কার্যক্রম সম্পন্ন করেছে। খুব শিগগিরই এখানে ফেরি চালু হবে। সেজন্য ড্রেজিং করা, সংযোগ সড়কটি চওড়া ও ঘাট নির্মাণ করতে হবে। এই সপ্তাহ থেকেই ড্রেজিংয়ের কাজ শুরু হবে। সড়ক বিভাগ সংযোগ সড়কটি চওড়া করে দিলেই ফেরি চালু করা সম্ভব হবে। 

তিনি আরও জানান, এর আগেই সাধারণ মানুষের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে আগামী মাসের মধ্যেই সি-ট্র্যাক চালু করা হবে। যাতে সাধারণ মানুষ ভোগান্তি ছাড়াই ঢাকা যাতায়াত করতে পারেন। 

এ সময় স্থানীয় সংসদ সদস্য বলেন, আমার নির্বাচনী ওয়াদা ছিল এখানে ফেরি চালু করা। প্রথমবার নির্বাচিত হয়েই আমি ফেরি ও পল্টুন নিয়ে এসেছি। কিন্তু নানা জটিলতায় সেটি চালু করা সম্ভব হয়নি। তাই নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বিআইডব্লিওটিএ’র ফেরি চালু করার উদ্যোগ নেই। পুরো প্রক্রিয়া শেষের পথে। আগামী মাস থেকে সি-ট্র্যাক ও ৪-৫ মাসের মধ্যে ফেরি চালু হবে। এতদিন এই অঞ্চলের মানুষে যে ভোগান্তি হত তা লাঘব হবে।

এর আগে সকালে মাওয়া ঘাট থেকে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের নিজস্ব ২টি স্পিড বোটে পরিদর্শনকারী দল গোপালপুর ঘাটে এসে পৌছায়। সেখানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন সুলতানাসহ স্থানীয় সাধারণ জনতা তাদের অভ্যর্থনা জানান।

উল্লেখ্য, চর ভদ্রাসন, সদরপুর, নগরকান্দা ও ফরিদপুর সদরের একাংশে ৩ লক্ষাধিক মানুষ ঢাকা যাওয়া আসার জন্য এই নৌ রুটটি ব্যবহার করে। এতদিন তাদের বাহন ছিল স্পিডবোট ও ট্রলার। তাও সন্ধ্যার পরে চলতো না কোনো যানই। তাই ভোগান্তি আর জীবনের ঝুঁকি ছিল নিত্যসঙ্গী। এছাড়াও বাড়তি ভাড়াও গুনতে হত যাত্রীদের।

এজে/পি

RTVPLUS
corona
দেশ আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ১৭২১৩৪ ৮০৮৩৮ ২১৯৭
বিশ্ব ১১৭৫৬৫০৬ ৬৭৫৩১৭০ ৫৪১০৮৬
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • দেশজুড়ে এর সর্বশেষ
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়