logo
  • ঢাকা শনিবার, ২৮ মার্চ ২০২০, ১৪ চৈত্র ১৪২৬

কোটালীপাড়ায় শিক্ষক পেটানো সেই ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

কোটালীপাড়া প্রতিনিধি
|  ২৩ মার্চ ২০২০, ১৫:৫৩
কোটালীপাড়ায় শিক্ষক পেটানো সেই ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত
সাময়িকভাবে বরখাস্ত গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার কান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান উত্তম কুমার বাড়ৈ, ছবি: ফেসবুক থেকে নেয়া
শিক্ষক পেটানোর মামলায় অভিযুক্ত গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার কান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান উত্তম কুমার বাড়ৈকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ। 

গত ১৫ মার্চ স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব মোহাম্মদ ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রজ্ঞাপনে তিনি উল্লেখ করেন, গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার কান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উত্তম কুমার বাড়ৈর বিরুদ্ধে কোটালীপাড়া থানায় দায়েরকৃত জি আর মামলা নং- ১৫১/১৯ এর অভিযোগপত্র বিজ্ঞ আদালতকর্তৃক গৃহীত হওয়ায় স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯এর ৩৪ (১) ধারা অনুযায়ী তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হলো। 

জানা গেছে, গত ৬ সেপ্টেম্বর ইউপি চেয়ারম্যান উত্তম কুমার বাড়ৈ গজালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক অমূল্য রতন হালদারকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠান। শিক্ষক পিটানোর এ ঘটনায় গোটা উপজেলায় নিন্দার ঝড় ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। 

এ ঘটনার একদিন পর শিক্ষক অমূল্য রতন হালদারের স্ত্রী মনি হালদার বাদী হয়ে চেয়ারম্যান উত্তম কুমার বাড়ৈসহ ৫ জনকে আসামি করে কোটালীপাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় কোটালীপাড়া থানা উত্তম কুমার বাড়ৈকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে। 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম মাহফুজুর রহমানের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমি এখনো মন্ত্রণালয়ের কোনো চিঠি পাইনি। চিঠি পেলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে চেয়ারম্যান উত্তম কুমার বাড়ৈ বলেন, আমাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করার বিষয়টি আমি এখন পর্যন্ত জানি না। আমি সাময়িকভাবে বরখাস্তের চিঠি পাওয়ার পরে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করবো। 

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাজী সাফায়েত হোসেন বলেন, চেয়ারম্যান উত্তম কুমার বাড়ৈকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করায় আমরা কোটালীপাড়া সকল শিক্ষক সমাজ খুশি হয়েছি। আমরা মনে করি আইনের সঠিক প্রয়োগ হয়েছে। 

শিক্ষক অমূল্য হালদারের স্ত্রী ও মামলার বাদী মনি হালদার বলেন, একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে চেয়ারম্যান উত্তম কুমার বাড়ৈ যে কাজটি করেছে তা অন্যন্ত ঘৃণিত। আমি তার স্থায়ী বরখাস্ত চাই।
পি
 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • দেশজুড়ে এর সর্বশেষ
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়